৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ ২২:০০
বিশ্ব ক্যান্সার দিবস

চট্টগ্রামে পুরুষরা বেশি আক্রান্ত গলায়, মহিলা স্তন ক্যান্সারে

রেজা মুজাম্মেল, চট্টগ্রাম

চট্টগ্রামে পুরুষরা বেশি আক্রান্ত গলায়, মহিলা স্তন ক্যান্সারে

প্রতীকী ছবি

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের রেডিওথেরাপি বিভাগের বহির্বিভাগে গত এক বছরে মোট ৩ হাজার ১৩১ জন পুরুষ রোগী চিকিৎসা গ্রহণ করেন। এর মধ্যে ২০ শতাংশই গলার ক্যান্সারে আক্রান্ত, যা মোট ৬৩৫ জন। অন্যদিকে, একই সময়ে হাসপাতালের বহির্বিভাগে মোট ২ হাজার ৫২০ মহিলা রোগী চিকিৎসা গ্রহণ করেন। এর মধ্যে সর্বোচ্চ ৬১৪ জন স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত, যা প্রায় ২৪ শতাংশ। 

রবিবার বিশ্ব ক্যান্সার দিবস। ক্যান্সার নিয়ে সচেতনতা বৃদ্ধি করতে প্রতিবছর এই দিনে দিবসটি পালিত হয়। এবার দিবসের প্রতিপাদ্য বিষয় হল ‘ক্যান্সার চিকিৎসায় কমাতে হবে বৈষম্য’। দিবস উপলক্ষ্যে চমেক হাসপাতাল, চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতাল, সিভিল সার্জন কার্যালয় ও জেনারেল হাসপাতালে নানা কর্মসূচি গ্রহণ করেছে।

চমেক হাসপাতালের রেডিওথেরাপি বিভাগের সহকারি অধ্যাপক ডা. আলী আজগর চৌধুরী বলেন, এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় হল ক্যান্সার চিকিৎসায় বৈষম্য কমানো। সরকারের লক্ষ্য দেশের সর্বস্তরের সব শ্রেণী পেশার মানুষ যাতে এ চিকিৎসার আওতায় আসে। চট্টগ্রামের একজন রোগী যে চিকিৎসা পাবেন, টেকনাফের একজন রোগীও যেন সে চিকিৎসা পান। এরই ধারাবাহিকতায় চমেক হাসপাতালে নিয়মিত চলছে কেমোথেরাপি ও ব্রেকিথেরাপিসহ প্রয়োজনীয় চিকিৎসা। তাছাড়া, চট্টগ্রামসহ দেশের আটটি বিভাগে ক্যান্সার ইনস্টিটিউট নির্মাণ করা হচ্ছে। এর মাধ্যমে চিকিৎসা বিস্তৃত হচ্ছে।  

চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালের রেডিওথেরাপি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. শেফাতুজ্জাহান বলেন, মা ও শিশু হাসপাতালে গত এক বছরে ৫ হাজার ৬৩০ জন ক্যান্সার রোগী চিকিৎসা নেন। এর মধ্যে সর্বোচ্চ ২৭ শতাংশই ফুসফুস ক্যান্সারে আক্রান্ত। তারা নিয়মিত চিকিৎসা গ্রহণ করছে। তাছাড়া গত ১৪ জানুয়ারি চালু করা হয় অত্যাধুনিক প্রযুক্তির রেডিওথেরাপি মেশিন। এ মেশিনে বর্তমানে এখানে দৈনিক প্রায় ৫০ জন রোগী রেডিওথেরাপি গ্রহণ করতে পারছেন।

চমেক হাসপাতালের রেডিওথেরাপি বিভাগ সূত্রে জানা যায়, ২০২৩ সালে হাসপাতালের অন্তঃবিভাগে মোট ৩ হাজার ১০৮ জন ক্যান্সার রোগী চিকিৎসা গ্রহণ করে। এর মধ্যে পুরুষ ১ হাজার ২৮৮ জন ও মহিলা ১ হাজার ৮২০ জন। এ সময় হাসপাতাল থেকে কেমোথেরাপি চিকিৎসা গ্রহণ করেন ২ হাজার ৩৩৩ জন, রেডিওথেরাপি চিকিৎসা গ্রহণ করেন ৭৭৫ জন। ইতোমধ্যে হাসপাতালের ব্রেকিথেরাপি চিকিৎসা গ্রহণ করেন ৬০০ জন। তাছাড়া, চমেক হাসপাতালের বিভিন্ন ওয়ার্ড থেকে ক্যান্সার বিভাগে দৈনিক গড়ে ১৫ জন করে রোগী রেফার করা হয়।

বিডি প্রতিদিন/হিমেল

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর