শিরোনাম
প্রকাশ : ১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ২০:৫৩

কলকাতার সল্টলেকে ঐহিক’র সাহিত্য-আড্ডা

অনলাইন ডেস্ক

কলকাতার সল্টলেকে ঐহিক’র সাহিত্য-আড্ডা

কলকাতার সল্টলেকের করুণাময়ীর স্বস্তিনীড়, ডি এল ৮৪তে ‘ঐহিক’ পত্রিকা আয়োজন করেছিল এক সাহিত্য পাঠের অনুষ্ঠান। পত্রিকাটির কর্ণধার শিশির সামন্ত আর উত্তম মণ্ডলের সহযোগিতায় তাদের অতিথি নিবাসের হলে সাহিত্য পাঠের আয়োজন কর হয়। 

সাহিত্য পাঠে একে একে উপস্থিত হতে থাকেন বাংলা ভাষার যশস্বী কবিরা। সেই আড্ডায় উপস্থিত ছিলেন-গৌতম বসু, একরাম আলি, সৈয়দ কওসর জামাল, সমরজিৎ সিংহ, সুব্রত সরকার, রাহুল পুরকায়স্থ, রাণা রায়চৌধুরী, গৌতম চৌধুরী, কালীকৃষ্ণ গুহ, বহতা অংশুমালী, শতাব্দী দাশ, অনিন্দ্য বর্মন, ফরিদ ছিফাতুল্লাহ ও বাংলানিউজটোয়েন্টি ফোর.কমের সম্পাদক কবি-অনুবাদক জুয়েল মাজহার এবং ঐহিক বাংলাদেশের সম্পাদক, কবি মেঘ অদিতি ও ঐহিক সম্পাদক কথাসাহিত্যিক তমাল রায়। 

কবি গৌতম বসুর কবিতা পাঠ দিয়ে শুরু হয় অনুষ্ঠান। একে একে অগ্রজ ও অনুজদের কবিতা ও গল্প পাঠে সন্ধ্যে কখন রাতের দিকে গড়িয়ে গেছে, উপস্থিত সাহিত্যিকদের তা খেয়ালই হয়নি। 

জুয়েল মাজহারের কবিতা পাঠ ছিল রীতিমত আকর্ষণীয়। ঢাকাইয়া কুট্টি ভাষায় লিখিত 'চান্নিপশর রাইতের লৌড়' কবিতাটি পাঠ শেষে উপস্থিত সকলেই পাঠোল্লাসে বিস্মিত হন। প্রতিটি কবিতা পাঠই সোশাল মিডিয়ায় লাইভ দেখানো হচ্ছিলো এবং অত্যাশ্চর্যের বিষয়, দর্শকরা সরাসরি প্রিয় কবি ও গল্পকারদের কাছে তাদের প্রিয় কবিতা ও গল্পপাঠের অনুরোধ জানাচ্ছিলেন সোশাল মিডিয়াতেই। 

তিরিশে পা দেওয়া ঐহিক ইতোমধ্যেই দুই বাংলাতে সাহিত্য সংস্কৃতি সংক্রান্ত কর্মকাণ্ডে এক উল্লেখযোগ্য নাম। সারা বছর ধরেই দুই বাংলা জুড়ে এমন ছোট বড় বিবিধ অনুষ্ঠান বই ও পত্রিকা প্রকাশের মধ্য দিয়ে তারা উদযাপন করবে তাদের ত্রিশতম বছর পূর্তি। একটি লিটল ম্যাগাজিনের ক্ষেত্রে যা এক মাইলস্টোন।


বিডি-প্রতিদিন/বাজিত হোসেন


আপনার মন্তব্য