শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ১৮ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৭ মার্চ, ২০১৯ ২৩:২৬

ময়নাতদন্তে গলদ

মির্জা মেহেদী তমাল

ময়নাতদন্তে গলদ

২০১৬ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি। মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে শ্বশুরবাড়িতে তিন সন্তানের জননী নিলুফা আখতারের (২৫) লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। নিলুফারের ময়নাতদন্ত এবং ভিসেরা ও হিস্টোপ্যাথলজিক্যাল প্রতিবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজের এক চিকিৎসক মতামত দেন, তিনি আত্মহত্যা করেছেন। পুলিশ ও সিআইডিও তাদের তদন্তে আত্মহত্যার কথা উল্লেখ করে। পরে পিবিআইর তদন্তে আসে ধর্ষণ করতে গিয়ে ব্যর্থ হয়ে নিলুফারের দেবর তাকে শ্বাসরোধে হত্যা করে। রাজধানীর চকবাজারের একটি বাসা থেকে ২০১০ সালের ২৩ জুন আনিসুর রহমান নামের এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার হয়। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ময়নাতদন্ত শেষে চিকিৎসক মতামত দেন, আনিস আত্মহত্যা করেছেন। একাধারে থানা-পুলিশ, গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) ও পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ তদন্ত শেষে একই মতামত দেয়। কিন্তু আনিসের পরিবারের দাবি, আনিসকে হত্যা করা হয়েছে। তারা আত্মহত্যার বিষয়টি মানতে পারেনি। আনিসের ভাই মামলার বাদী জাহাঙ্গীর মিয়া তৃতীয়বারের মতো নারাজি দিলে আদালত পিবিআইকে তদন্তের নির্দেশ দেয়। পাঁচ বছর পর তদন্তে বেরিয়ে আসে আসল তথ্য। পিবিআই জানতে পারে, প্রেমের সম্পর্কের জেরে আনিসুর রহমান খুন হয়েছিলেন। এ ঘটনায় অভিযুক্ত দুই আসামি গ্রেফতারের পর আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিও দেয়। পিবিআই জানায়, আনিসের মাথার পেছনের অংশে কাটা দাগ ও রক্তক্ষরণ, বাঁ উরুতে তিন থেকে চারটি কাটা চিহ্ন, বুকের বাঁ পাশে খামচির দাগ ছিল। সুরতহাল প্রতিবেদনেও এসব চিহ্নের কথা উল্লেখ ছিল। ঘটনাস্থলেই রক্তমাখা একটি বাটালি ফেলে রাখা ছিল। কিন্তু ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসক বা তদন্ত কর্মকর্তারা এর কিছুই আমলে নেননি। চিকিৎসক সঠিকভাবে ময়নাতদন্ত না করেই আত্মহত্যা বলে মত দিয়েছিলেন।

শুধু এ দুটি ঘটনাই নয়। এমন অসংখ্য খুনের ঘটনা ময়নাতদন্তের ভুলের কারণে আত্মহত্যা হয়ে যাচ্ছে। খুন করেও আসামিরা ছাড়া পেয়ে যাচ্ছে। একটি খুন করার পর যখন মুক্ত জীবন যাপন করতে থাকে খুনিরা, পরে জড়িয়ে পড়ে নতুন কোনো খুনের ঘটনায়। খুন, আত্মহত্যা, দুর্ঘটনা বা অন্য কোনোভাবে কারও অস্বাভাবিক মৃত্যু হলে ফৌজদারি আইন অনুসারে মৃত্যুর কারণ ও ধরন জানতে মৃতদেহকে ব্যবচ্ছেদ করে একটি প্রতিবেদন প্রস্তুত করেন ফরেনসিক চিকিৎসকরা, যা ময়নাতদন্ত নামে পরিচিত। মামলার প্রমাণে এ প্রতিবেদনের গুরুত্ব অনেক।

পিবিআই বলছে, ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসকরা ডোমদের ওপর ‘অতিমাত্রায়’ নির্ভরশীল। এ ছাড়া বিভিন্ন প্রভাবকের দ্বারা প্রভাবিত হয়ে প্রতিবেদন দেওয়া, সাক্ষী হওয়ার ভয়ে জ্যেষ্ঠ চিকিৎসকদের ময়নাতদন্তের কাজে অংশ না নেওয়া, পর্যাপ্ত প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত চিকিৎসক না থাকাও ময়নাতদন্ত ভুল হওয়ার কারণ বলে মনে করে সংস্থাটি। তবে অপরাধ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ময়নাতদন্ত করে কেউ আত্মহত্যা করেছে, না হত্যা করা হয়েছে, সে বিষয়ে ফরেনসিক চিকিৎসকের মতামত দেওয়া উচিত নয়। চিকিৎসক শুধু মৃত্যুর কারণ বলবেন। এটি হত্যা না আত্মহত্যা, সেটা বের করার দায়িত্ব পুলিশের। এ নিয়ে পুলিশের বিশেষায়িত তদন্ত সংস্থা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) এক গবেষণায় হত্যা আত্মহত্যা হয়ে যাওয়ার মতো চিত্র উঠে এসেছে। গবেষণায় এ ধরনের বেশ কয়েকটি খুনের ঘটনা উল্লেখ করা হয়। এসব ঘটনায় কোনো কোনো লাশের সুরতহাল প্রতিবেদনে স্পষ্ট আঘাতের কথা উল্লেখ ছিল। কোথাও ঘটনার পারিপার্শ্বিকতার মধ্যেই ছিল খুনের স্পষ্ট ইঙ্গিত। কিন্তু তদন্তকারী কর্মকর্তারা এসব আমলে নেননি। শুধু ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনের ভিত্তিতেই আদালতে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দিয়েছিলেন। অথচ পরে জানা যায়, লাশের ময়নাতদন্তই ভুল ছিল। আগে যে ঘটনাগুলোকে ‘আত্মহত্যা’ বলা হয়েছিল, আদতে তা ছিল খুন। গবেষণায় বলা হয়, থানা-পুলিশের তদন্তে ও ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে ত্রুটি এবং তদন্তসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের গাফিলতির কারণে ৫৩ শতাংশ হত্যা মামলায় আসামিরা খালাস পেয়ে যায়। একই গবেষণায় এসেছে, বিচার কার্যক্রমে দীর্ঘ সময় লাগার কারণে ৩৭ শতাংশ হত্যা মামলায় সাক্ষীরা আসামিপক্ষের সঙ্গে আপস করে ফেলেন। গবেষণা প্রতিবেদনে তদন্তকারী কর্তৃপক্ষকে তদন্তের সময় সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত করা এবং তদন্তের বিষয়ে তাদের নিয়মিতভাবে প্রশিক্ষণ দেওয়ার সুপারিশ করা হয়েছে। একই সঙ্গে তদন্তের জন্য পুরস্কার, তিরস্কার ও শাস্তির ব্যবস্থা আরও জোরদার করার কথাও বলা হয়েছে। গবেষণায় এসেছে সিলেট, চট্টগ্রাম, রংপুর, বরিশাল, ময়মনসিংহ, ফরিদপুর, বগুড়া ও খুলনা জেলার ২৩৮টি হত্যা মামলার মধ্যে ১২৩টি অর্থাৎ প্রায় ৫২ শতাংশ মামলাতেই আসামি খালাস পেয়েছে। এর মধ্যে ১১১টিতেই তদন্তসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের কোনো না কোনো ভুল পেয়েছে পিবিআই। খালাস হওয়া মামলার মধ্যে মাত্র ১৫টি অর্থাৎ ১২ শতাংশ মামলায় বাদী, সাক্ষী ও রাষ্ট্রপক্ষ মামলা প্রমাণে সচেষ্ট ছিল। পিবিআইয়ের প্রধান, পুলিশের উপমহাপরিদর্শক বনজ কুমার মজুমদার গবেষণা নিয়ে সম্প্রতি গণমাধ্যমকে বলেন, তদন্ত কর্মকর্তার বিভিন্ন ভুলের কারণে মামলার ক্ষতি হয়, আসামিপক্ষ সেই সুযোগটাই গ্রহণ করে। তদন্তকারী কর্তৃপক্ষকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত সম্পূর্ণ করতে হবে। তিনি বলেন, পুলিশের তদন্ত এখন অনেকটা স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি ও ময়নাতদন্তের প্রতিবেদনভিত্তিক হয়ে গেছে। এ প্রক্রিয়া থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। মামলা প্রমাণে অভিযোগপত্রে নিজেদের তদন্তে প্রাপ্ত ফলাফলের পক্ষে শক্ত প্রমাণাদি উপস্থাপন করতে হবে। এমনকি সাক্ষী যাতে সাক্ষ্য দিয়ে তা থেকে বেরিয়ে আসতে না পারেন, সে জন্য এর পক্ষেও প্রমাণ সংগ্রহ করতে হবে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজকল্যাণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের সহকারী অধ্যাপক সমাজ ও অপরাধ বিশ্লেষক তৌহিদুল হক বলেন, মামলায় আসামি খালাস পেয়ে যাওয়ার পেছনে তদন্ত এবং বিচারপ্রক্রিয়া উভয়ের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের দায়ভার রয়েছে। এ থেকে উত্তরণের জন্য সব পক্ষকে আন্তরিকভাবে কাজ করতে হবে। জবাবদিহির বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে। যাদের গাফিলতির কারণে আসামি ছাড়া পাবে, তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা অবশ্যই নিতে হবে। এটা করতে পারলে সমস্যার সমাধান পাওয়া যাবে।


আপনার মন্তব্য