শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ২৬ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৫ জানুয়ারি, ২০২০ ২৩:৫০

মুজিববর্ষ উপলক্ষে বর্ণিল কুমিল্লা

বঙ্গবন্ধু আজ ও আগামীর সেতুবন্ধ : অর্থমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক, কুমিল্লা থেকে

মুজিববর্ষ উপলক্ষে বর্ণিল কুমিল্লা

মুজিববর্ষ উদযাপন উপলক্ষে কুমিল্লা শহর, লালমাই উপজেলাসহ কুমিল্লার প্রায় সবগুলো উপজেলায় ব্যাপক আলোকসজ্জা করা হয়েছে। এ ছাড়া শহরে ও শহরের বাইরের প্রায় সবগুলো রাস্তা এবং সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে ব্যানার, ফেস্টুন, তোরণ নির্মাণ করা হয়েছে। মুজিববর্ষ উদযাপনের অংশ হিসেবে গতকাল কুমিল্লার লালমাই উপজেলা মাঠে আয়োজিত এক জমকালো অনুষ্ঠানে অংশ নেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। এতে মুজিববর্ষ ভিক্টোরিয়ানস ক্রিকেট টি-২০ টুর্নামেন্টের ট্রফি উন্মোচন করা হয়। এতে অর্থমন্ত্রী ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানসের চেয়ারপারসন নাফিসা কামাল, জেলা প্রশাসক আবুল ফজল মীর, সাবেক রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক, ইআরডি সচিব মনোয়ার আহমেদ প্রমুখ। পরে সাংস্কৃতিক পরিবেশনায় দেশবরেণ্য শিল্পীরা সংগীত পরিবেশন করেন।

এদিকে ওই অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়ার আগে নিজ বাড়িতে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল সাংবাদিকদের বলেন, ‘জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ আগামী প্রজন্মের কাছে রেখে যেতে চাই। তিনি হচ্ছেন আজ ও আগামীর মধ্যে সেতুবন্ধ।’ মন্ত্রী বলেন, ‘যার জন্ম না হলে বাংলাদেশের জন্ম হতো না, আজকে আমরা এখানে দাঁড়িয়ে কথা বলতে পারতাম না।  এটি অত্যন্ত শাশ্বত সত্য। এই শাশ্বত সত্যটাকে আবার নতুন করে এলাকার মানুষের সামনে নিয়ে আসার উদ্দেশ্য হচ্ছে, যারা বঙ্গবন্ধুকে কাছ থেকে দেখেছেন, তার নির্দেশে যুদ্ধ করেছেন, তাদের জন্য এক ধরনের সিনারিও। অনেকে শহীদ হয়েছেন, অনেকে আহত হয়ে এখনো আমাদের মধ্যে আছেন। তাদেরও একত্র করা আমাদের মূল উদ্দেশ্য।’

তিনি বলেন, ‘যারা বঙ্গবন্ধুকে দেখেছেন, তাদের কাছে বঙ্গবন্ধু এক রকম। এখনকার আমাদের যে তরুণসমাজ, তারা বঙ্গবন্ধুকে দেখেনি, এমনকি মুক্তিযুদ্ধও করার সুযোগ পায়নি, তাদের সঙ্গে বঙ্গবন্ধুকে পরিচয় করিয়ে দেওয়া। সে সময় কোনো কারণে যারা বঙ্গবন্ধুকে সামনে থেকে দেখেননি, তাদের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেওয়া হলো আমাদের মূল লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য।’

বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত আনন্দমেলা সম্পর্কে মন্ত্রী বলেন, ‘আমি লক্ষ্য করলাম, কোনো একটা লক্ষ্যকে সামনে রেখে কাজ করলে সবাইকে সম্পৃক্ত করা যায়। সবাইকে সম্পৃক্ত করা না গেলে আমাদের সব আয়োজন, সব উদ্দেশ্য ব্যর্থ হবে। আমি এই এলাকার নির্বাচিত এমপি। এখানে ১০ লাখ লোকের বসবাস। আমার ভোটারের সংখ্যা সাড়ে ৫ লাখ। এখানে একটা বিরাট জনগোষ্ঠী। আমি লক্ষ্য করলাম যে আমি যদি এটি শুরু করতে পারি, তাহলে অন্য এমপি, মন্ত্রীরা এগিয়ে আসবেন এভাবে অনুষ্ঠানটি আয়োজন করতে।’

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘কয়েক সপ্তাহ ধরে আমরা এ অঞ্চলের প্রত্যেকটি মানুষের কাছে ওয়ান টু ওয়ান গিয়েছি। তাদের এ আয়োজনের সঙ্গে সম্পৃক্ত করার চেষ্টা করেছি এবং সম্পৃক্ত করতে পেরেছি। এটিই আমাদের সফলতা। মানুষকে সম্পৃক্ত করে, তাদের সামনে একটি আদর্শকে উপস্থাপন করা- আদর্শটি বঙ্গবন্ধুর আদর্শ। এই জাতীয় চেতনায় যারা বিশ্বাস করে না, তাদের বিশ্বাসী করার জন্য এবং এই আদর্শকে আগামী প্রজন্মের কাছে, আমাদের তরুণসমাজসহ আগামী প্রজন্মের কাছে, যারা এই পৃথিবীতে আসেনি, তাদের কাছে আমরা রেখে যেতে চাই। আজকের এই দিনটি হবে একটি সেতুবন্ধ। আমাদের আজ এবং আগামীর মধ্যকার এ সেতুবন্ধ সফল হোক, আপনারা দোয়া করবেন।’

এ সময় অর্থমন্ত্রীর মেয়ে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানসের চেয়ারপারসন নাফিসা কামাল বলেন, ‘আমাদের সার্থকতা হচ্ছে, কুমিল্লা-১০ আসনের সবাই বঙ্গবন্ধুর চেতনায় এক হয়ে অনুষ্ঠানটিতে কাজ করেছে।’ তিনি বলেন, ‘অন্য অনুষ্ঠান আর এ অনুষ্ঠানটির পার্থক্য একটাই, সেটি হলো বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন।  এই অনুষ্ঠান এর আগে কখনো আমাদের জীবনে আসেনি, হয়নি, কখনো আসবেও না। বাঙালি জাতি হিসেবে এটি আমাদের সবচেয়ে সৌভাগ্য।’


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর