শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ২৮ নভেম্বর, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৭ নভেম্বর, ২০২০ ২২:৫২

কিশোর গ্যাংয়ের গডফাদার কারা

সব অপরাধের নিয়ন্ত্রণ বড় ভাইদের হাতে

মুহাম্মদ সেলিম, চট্টগ্রাম

চট্টগ্রাম নগরীতে চলছে কথিত রাজনৈতিক বড় ভাইদের দাপট। এলাকায় চাঁদাবাজি, ছিনতাই, মাদক ব্যবসাসহ নানান অপরাধের ক্রীড়নক হচ্ছেন এসব বড় ভাই। অভিযোগ রয়েছে, বড় ভাইদের নির্দেশে খুন, সংঘাতসহ নানান অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে কিশোর গ্যাংয়ের কথিত ছোট ভাইরা।

চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ (সিএমপি) কমিশনার সালেহ মোহাম্মদ তানভীর বলেন, ‘কিশোর গ্যাং নিয়ন্ত্রণকারী কথিত বড় ভাইদের তালিকা তৈরি অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া শুরু হয়েছে। গ্রেফতার করা হয়েছে কয়েকজন কথিত বড় ভাইকে।’

র‌্যাব-৭ অধিনায়ক লে. কর্নেল মশিউর রহমান জুয়েল বলেন, ‘কিশোর গ্যাং ও তাদের গডফাদারদের নিয়ন্ত্রণে অভিযান শুরু করেছে র‌্যাব।’

অনুসন্ধানে জানা যায়, চট্টগ্রাম নগরীর ১৬টি থানা এলাকায় রয়েছে রাজনৈতিক কথিত বড় ভাই। তারা মাদক ব্যবসা, টেন্ডারবাজি, বিভিন্ন খাতে চাঁদাবাজি, জায়গা দখল-বেদখলসহ সব অপরাধ কার্যক্রমের ক্রীড়নক হিসেবে কাজ করছেন। চট্টগ্রামে দেড় শতাধিক কথিত বড় ভাই রয়েছেন। যার মধ্যে নগরীর অভিজাত এলাকা হিসেবে পরিচিত খুলশীর মাদক ব্যবসা, জমি দখল-বেদখল, ছিনতাই, চাঁদাবাজিসহ নানা অপরাধে জড়িত কমপক্ষে ১০টি গ্রুপ। এ গ্রুপগুলোর ছায়া হিসেবে রয়েছেন মহিউদ্দিন, রকিবুল হুদা ওরফে রকিব, আহমেদ বাপ্পি, সোহাগ, ডেসকি শরীফ ও আবুল হাসনাত বেলাল। চকবাজার থানাধীন গুলজার মোড়, কাপাসগোলা, মেডিকেল কলেজ রোড, চট্টেশ্বরী, ধনিরপুল, কেয়ারি মোড়সহ বিভিন্ন এলাকার চাঁদাবাজি, ছিনতাইসহ নানা অপরাধ আখড়ার নিয়ন্ত্রণে রয়েছে কমপক্ষে ১৫টি গ্রুপ। এসব গ্রুপের নিয়ন্ত্রণ করে নুর মোস্তফা টিনু, এস এম সামাদ ওরফে টমটম সামাদ, দেলোয়ার হোসেন ওরফে ছোট দেলোয়ার, কিলার ফয়সাল ওরফে লালু ফয়সাল ও গিয়াস সিদ্দিকী ওরফে পিস্তল গিয়াস। পাঁচলাইশের মুরাদপুর, কাতালগঞ্জ, বড় গ্যারেজ, কালারপুল, খতিবেরহাট, বহদ্দারহাটসহ বিভিন্ন এলাকার পরিবহন ও বিভিন্ন খাতে চাঁদাবাজি, মাদক ব্যবসাসহ নানান অপরাধে জড়িত ২৭টি গ্রুপ। এসব গ্রুপের নিয়ন্ত্রণকারী বড় ভাই হিসেবে রয়েছেন সাবেক এক ছাত্র নেতাসহ সাদ্দাম হোসেন ইভান, ফিরোজ ওরফে ডাকাত ফিরোজ, নাছির ওরফে লম্বা নাছির ও রাজু বাদশা ওরফে হামকা রাজু। নগরীর বাণিজ্যিক এলাকা হিসেবে পরিচিত আগ্রাবাদের চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজি, ঘাট দখল, ইয়াবা ব্যবসাসহ নানা অপরাধের নিয়ন্ত্রণে রয়েছেন এস এম পারভেজ, জহির উদ্দিন বাবর, মোস্তাফা কামাল টিপু ও খলিলুর রহমান। সদরঘাট এলাকায় সাজ্জাদ হোসেন, মাহবুবুল হক সুমন, ছোট বাবু, কিলার আলমগীর ও এসএম রাসেল। কোতোয়ালি এলাকায় হেলাল আকবর চৌধুরী বাবর, রায়হান নেওয়াজ সজীব, কালা জুয়েল, শাহ আলম ওরফে রেল শাহ আলম, সাইফুল্লাহ সাইফ, আবু জিহাদ সিদ্দিকী ও বেটারি গলির শাহ আলম। চান্দগাঁও থানা এলাকার ত্রিশটি গ্রুপের নিয়ন্ত্রণে রয়েছেন মঈন  উদ্দিন ফরহাদ ওরফে লম্বা মহিউদ্দিন, নোমান চৌধুরী ও হামকা রাজু। আকবর শাহ এলাকার মনোয়ারুল আলম চৌধুরী নোবেল, বাকলিয়ায় মোরশেদ খান ও তার দুই ভাই, পতেঙ্গায় মুছা, ফরিদুল আলম, নুরুল আবছার, লোকমান, ওয়াহিদুল আলম চৌধুরী, ইপিজেড মোহাম্মদ সেলিম, সোহেল, আরমান, শাহীন কবির প্রমুখ।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর