শিরোনাম
প্রকাশ : ২৬ মার্চ, ২০২০ ১২:৪০

মানবজাতিকে হেফাজত করো আল্লাহ দয়াময় প্রভু

পীর হাবিবুর রহমান

মানবজাতিকে হেফাজত করো আল্লাহ দয়াময় প্রভু
পীর হাবিবুর রহমান

হে আল্লাহ আমার দয়াময় প্রভু, তুমি সর্বশক্তিমান রাহমানুর রাহিম, ক্ষমাশীল। গোটা পৃথিবীর মানব জাতি আজ করোনাভাইরাসের ভয়াবহ আক্রমণে অসহায়। সকল মানুষের জন্য তোমার রহমত বর্ষণ করো। তোমার সৃষ্টির শ্রেষ্ট জীব আজ করোনার ভয়াবহ আগ্রাসনের সামনে নিঃস্ব অসহায়।

হে আল্লাহ, আজ সকল মানুষ মূলতঃ একা, এ যেনো কেয়ামতের আজাবের মুখে। পৃথিবীর মানুষের শ্রেষ্ঠত্বের সকল অহংকার দম্ভ চূর্ণবিচূর্ণ হয়ে গেছে। এতো বিজ্ঞান, এতো গবেষণা, এতো অর্থ, এতো জ্ঞানের সকল কর্তৃত্ব দম্ভ তোমার শ্রেষ্ঠত্বের কাছে মাথা নত করেছে।
হে আল্লাহ, তুমিই সর্বজ্ঞানী সর্বময় ক্ষমতার মালিক। তোমার মানবজাতিকে আজ এই ভয়কংর করোনা জীবাণু ধ্বংসের শক্তি দাও। তুমি দুনিয়ার প্রতি করুনা দেখাও। শক্তি সামর্থ্য দাও এই অচেনা শত্রুকে চেনার ও নিয়ন্ত্রণ ধ্বংস করার।

হে আল্লাহ, এই দুর্দিনে আমার মা-বাবার কথা খুব মনে পড়ছে। তাদের আজন্ম তোমার প্রতি নিঃশর্ত আনুগত্যে নত হয়ে ইবাদত বন্দেগী করতে দেখেছি। পাপ নয়, মিথ্যা নয়, সত্যের উপর সহজ সরল জীবনে সততার সাথে কেবল তোমার অনুগ্রহ লাভ ছাড়া কোন লোভ দেখিনি। তাই তোমার দয়ার পরেই বাবা- মার দোয়াকেই পথের পাথেয় হিসেবে আত্মবিশ্বাসে পথ হেঁটেছি। আজ আমাদের সন্তান সহ সকল সন্তানদের মুখের দিকে তাকালে মনে হয় জীবন কত তুচ্ছ! কত অসহায়, আতংকের নি:সঙ্গ জীবন।

হে আল্লাহ, আমরা মানবজাতি হাঁড়ে হাঁড়ে উপলব্ধি করছি তোমার সকল আদেশ উপেক্ষা করে অবিরাম মানুষ হত্যাকেই সহজ মনে করেছি। তোমার করুনা লাভের চেয়ে ক্ষণস্থায়ী ক্ষমতাবানদের করুনাশ্রিত হয়েছি। বিবেক মনুষ্যত্ববোধকে নির্বাসনে দিয়ে সভ্যতার নামে প্রকৃতিকে লন্ডভন্ড করেছি। জলবায়ুর বারোটা বাজিয়েছি প্রকৃতিও আজ আমাদের প্রতি রুদ্রুরুষ্ট। ধর্মের পবিত্র শান্তি ও কল্যাণের বাণীকে উপেক্ষা করে ব্যক্তি স্বার্থে বাণিজ্য করেছি। শান্তির বদলে হিংসা সন্ত্রাসের দাবানল ছড়িয়েছি। আমরা লোভে অন্ধ হয়ে মানবজাতি এমন কোন অপরাধ পাপ অন্যায় ব্যভিচার নেই যেখানে লাভ আর লোভে, বিলাসিতায় ডুবে গিয়ে দাম্ভিকতা দেখাইনি।

হে আল্লাহ আমার দয়াময়, আজ এমন এক রোগ জীবানু বাতাসের আগে ছড়িয়েছে তা শুধু পৃথিবীকেই সন্ত্রস্ত করেনি পুরো হতবিহ্বল মানবজাতিকে মৃত্যু ভয়ে করেছে আতঙ্কিত। এ কেমন রোগ যে মানুষকে নিঃসঙ্গ করে খাঁচায় বন্দী করেছে। আল্লাহ, এ কেমন রোগ যে আক্রান্ত হলে মা সন্তানের কাছে যাবে না, পিতার লাশ সন্তান দাফন করার কোনো সুযোগ পাবে না! পাশে থেকেও যোজন যোজন দূরে থাকা। কালেমা পাঠ নয়, গোসল নয়, জানাজা নয়- এমনকি কাফন পরিয়েও দাফন নয়!

হে আল্লাহ, আজ তোমার দিকে তাকিয়ে সমস্ত পৃথিবীর মানুষ। তোমার এ অভিশাপ থেকে তোমার নিজের সৃষ্টিকে মুক্তি দাও। মানবজাতিকে আজ এধরনের মৃত্যু ও তার যন্ত্রনা থেকে মুক্তি দাও। এ জীবানু ধ্বংস করার ক্ষমতা দাও।

হে আল্লাহ, আজ সকল আত্মীয়, প্রিয়জন, বন্ধু- বান্ধব পরিবার সন্তান একজন থেকে আরেকজন বিচ্ছিন্ন। তুমি আমাদের সবার জন্য রহমত দাও। সবাইকে হেফাজত করো। কোন আপনজন, প্রিয়জন এমনকি আর একজন মানুষও যেনো করোনাভাইরাসের কারনে মৃত্যুর দুয়ারে না যায়। আল্লাহ, তুমি সবাইকে রহম করো।

চিকিৎসা বিজ্ঞানে বা স্বাস্থ্য সেবায় পৃথিবীতে নাম্বার ওয়ান ফ্রান্সে, প্যারিসে মানুষ মারা যাচ্ছে। স্পেনের ঘরে ঘরে আজানের ধ্বনি উচ্চারিত হচ্ছে। মাবুদ, তোমার আরশ কাঁপানো আর্তনাদ আজ ঘরে ঘরে। মৃত্যুশোকে কাতর মানুষ! হে আল্লাহ আমরা চিকিৎসা সেবার নাম্বার টু ইতালির মৃত্যু যন্ত্রনার বিভৎস ভয়াবহতাই দেখছিনা, প্রতাপশালী আমেরিকার নিউ ইয়র্কেও আজ লাশের মিছিল। রোগীরা ভেন্টিলেশন, শয্যা সংকটের মুখে।

কতো দেশে চিকিৎসকরা মানুষ বাঁচাতে গিয়ে মরছেন। কাবাঘর থেকে মসজিদে নামাজ বন্ধ! সব ধর্ম বর্নের মানুষের মর্মান্তিক মৃত্যুতে পৃথিবীর বাতাস ভারি। দম নেয়া যাচ্ছেনা। এমন বিষাদ পৃথিবী জুড়ে কখনো নামেনি, এভাবে থামেনি দুনিয়া! কত দেশে তোমার দ্বীনের দাওয়াত দিতে গিয়েও ইন্তেকাল করছেন মুমিন মুসলমান।

হে আল্লাহ, হে আমার মালিক, হে আমার প্রতিপালক গোটা পৃথিবীর মুসলমানরা আজ করোনার ভয়াবহতার মুখে কেবল তোমার দিকেই তাকিয়ে আছে। তোমাকেই ডাকছে অন্তর দিয়ে দয়ালু আল্লাহ আমার, মানবজাতিকে তুমি রক্ষা করো দয়াময়। পৃথিবীর দেশে দেশে যে মৃত্যু আতংক তা আজ আমাদের তাড়া করছে আল্লাহ।আমাদের তুমি হেফাজত করো। রক্ষা করো এ ভয়ংকর রোগ থেকে যেখানে চিকিৎসকদের জীবনই নয় সবার জীবনই ঝুঁকিতে। মৃত্যুভয়ে আতংকিত শংকিত পৃথিবীতে শান্তি আনন্দ স্বস্তি এনে দাও আল্লাহ। হাশরের মময়দানে শেষ বিচারের মালিক আমার আল্লাহ, তাবৎ দুনিয়া আজ আসমানের দিকে তাকিয়ে জমিনের হেফাজত চাইছে, মানব জাতি কেবল তোমার করুনাই চাইছে। আল্লাহ রহম করো আল্লাহ ক্ষমা করে বাঁচাও মানবজাতিকে।

লেখক: নির্বাহী সম্পাদক, বাংলাদেশ প্রতিদিন। 

বিডি প্রতিদিন/সালাহ উদ্দীন


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর