শিরোনাম
প্রকাশ : ১১ জুলাই, ২০২০ ০০:৫১
আপডেট : ১১ জুলাই, ২০২০ ০১:২০

এদেরকে দলে ভেড়ালো কারা?

বাণী ইয়াসমিন হাসি

এদেরকে দলে ভেড়ালো কারা?
বাণী ইয়াসমিন হাসি

এ ওমুক দল থেকে এসেছে, সে তমুক দল থেকে আসছে। এসব বাকোয়াজ বন্ধ করেন। দলের দুঃসময়ের ত্যাগী কর্মীদের বাদ দিয়ে এদেরকে দলে ভেড়ালো কারা? দল টানা বারো বছর ক্ষমতায়। কিছু ঘটলেই বিএনপি-জামায়াত করেছে। তো গত বারো বছর ধরে আপনারা কি করলেন ? কারো কারো বিএনপি জামায়াতের সাথে এতটাই সখ্যতা যে ঘুমের মধ্যেও এদেরকে দেখে। শেখ হাসিনার যে কোন শুভ উদ্যোগকেই বিতর্কিত করার জন্য এক পাল শুয়োর ওঁৎ পেতে বসে থাকে।

কোন গাফিলতি, গল্পবাজি আর বক্তৃতার সুযোগ আর নেই। আজ হোক বা কাল; অনেককে জবাব দিতে হবে। পিয়ন, দারোয়ানরা কি করে দলীয় পদ পায়? রাস্তার টোকাই, ফ্রীডম পার্টি, বিএনপি-জামায়াত কি করে দলীয় পদে বসে? যাদের উত্তর দেওয়ার কথা তারা প্রশ্ন করে বক্তৃতা দিলে এই জবাব কে দেবে? দিনের পর দিন আইন প্রয়োগকারী সংস্থার চোখের সামনে কি করে অপরাধ সাম্রাজ্যের বিস্তার ঘটে ? হাজারো প্রশ্ন মানুষের মনে। দল ও সরকার চালানোর দায়িত্ব একা শেখ হাসিনার নয়। যার যা দায়িত্ব তা পালন করতে হবে।

রাজনৈতিক দল কর্পোরেট বাণিজ্যের মত বেচাকেনায় চলতে পারে না। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বাংলাদেশ দুর্নীতিবাজ আর অদক্ষদের দিয়ে তৈরি সম্ভব নয়। আগাছা বেছে ফেলতে হবে। স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার বিকল্প নেই। বাংলাদেশ এগিয়ে চলেছে। আরও এগিয়ে যাবে। রাজনৈতিক সততা জাদুঘরে চলে যেতে পারে না। এ সততাকে ফিরিয়ে আনতেই হবে। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর অনেকের ধারণা ছিল আওয়ামী লীগ আর রাজনীতিতে ফিরে আসতে পারবে না। কিন্তু শেখ হাসিনা সেই অসাধ্য সাধন করেছেন। ফিনিক্স পাখির মতন আওয়ামী লীগকে আবার নতুন করে জাগিয়ে তুলেছেন। নিয়ে গেছেন অন্য উচ্চতায়। সেই রাজনীতি গত ১২ বছরে উইপোকা নীরবে খেয়ে ফেলছে।

অতিলোভীরা সর্বনাশ করে ছাড়ছে। আওয়ামী লীগের ভিতরে ঢুকে গেছে, জামায়াত, ফ্রীডম পার্টি, বিএনপি। তারা আওয়ামী লীগের সুবিধাবাদীদের সাথে মিলে ভাগবাটোয়ারা করছে। তারা সবাই মিলেমিশে ভালো আছে। কিন্তু ক্ষতি হচ্ছে দেশ ও আওয়ামী লীগের।

কাক বাজার বা গৃহস্থবাড়িতে গিয়ে তক্কে তক্কে থাকে এবং যখনই সুযোগ পায়, ছোঁ মেরে মাছ বা মাংসের টুকরোটি নিয়ে উড়াল দেয়। প্রাকৃতিক কাউয়ারা কাজটি লুকিয়ে ছাপিয়ে করলেও রাজনৈতিক কাউয়ারা সেটি করে প্রকাশ্যে। সবাইকে জানান দিয়ে। প্রয়োজনে ‘যার যা ন্যায্য বখরা’, তাও তারা পুরোপুরি শোধ করে।

আওয়ামী লীগ অদূর ভবিষ্যতে এসব কাউয়া, বহিরাগত তাড়াতে কিংবা আগাছা পরগাছা পরিষ্কার করতে পারবে কি না, সেই আলোচনায় যাওয়ার আগে যে প্রশ্নটি করতে হয়, তা হলো, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় লালিত ও বঙ্গবন্ধুর আদর্শে গড়া দলটিতে এরা ঢুকলো কি করে? কাদের হাত ধরে? আওয়ামী লীগ কিংবা এর সহযোগী কোনো সংগঠনে যে বহিরাগত, হাইব্রিড, আগাছা পরগাছা আছে, সেটি নেতারা  স্বীকারই করতে চান না!

যখনই কেউ ধরা পড়ে তখনই বলা হয় এরা বহিরাগত, এরা হাইব্রিড। গত বছরের সেপ্টেম্বর থেকেই আওয়ামী লীগে ‘হাইব্রিড ও বহিরাগত’ শব্দ দুটি বেশি উচ্চারিত হচ্ছে। এর সীমারেখা ২০০৮, ২০১৪ না ২০১৮? গত ডিসেম্বরে আওয়ামী লীগের কাউন্সিলের আগে কেন্দ্র থেকে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে চিঠি লিখে গত ১০ বছরে যারা দলে এসেছেন, যারা দুর্নীতিবাজ হিসেবে পরিচিত, তাদের তালিকা চেয়ে পাঠানো হয়েছিলে। সেই তালিকা দেখলে ভিরমি খাওয়ার অবস্থা। ২০১৮ সালের নির্বাচনের আগে বিএনপি, জাতীয় পার্টি ও জামায়াত থেকে অনেক নেতা-কর্মী আওয়ামী লীগে এসেছে। এদের অনেকেই এসেছে গ্রুপিং এর সুযোগে। নিজস্ব বলয় তৈরি করার সুবিধার্থে এদেরকে দলে ঢুকানো হয়েছে।

এখন প্রশ্ন হলো আওয়ামী লীগে বহিরাগতরা ঢুকলো কিভাবে? অনুপ্রবেশকারীরা কি আওয়ামী লীগকে জোর করে দখল করে নিয়েছে? বাস্তবতা হলো আওয়ামী লীগে যারা যোগ দিয়েছেন, তারা জোর করে আওয়ামী লীগে ঢোকেননি। তাদের যোগদান করিয়েছেন আওয়ামী লীগের নেতারাই। এই যোগদান পর্বে নানা স্বার্থের হিসাব থাকে। আর আওয়ামী লীগের শুধু তৃণমূল নয়, উপরের সারিতেও বহিরাগত ও অনুপ্রবেশকারী আছে। বহিরাগত আর অনুপ্রবেশকারীদের দলে এনেছে হাইব্রিড নেতারা।

আওয়ামী লীগে নেতার অভাব নেই। তারাই নিজের অনুসারী বাড়াতে গিয়ে অনুপ্রবেশের মত কাজগুলো করেন। আশরাফ ভাই চলে যাওয়ার পর আগাছাদের উপদ্রব শতগুণ বেড়েছে। টাকায় মেলে পদ-পদবি। আচ্ছা বলেন তো ইউরোপ-আমেরিকায় কেন শ্রমিক লীগ কিংবা কৃষক লীগের কমিটি থাকবে? ওখানে তাদের কাজ কি? কেন এসব কমিটি অনুমোদন দেওয়া হয়? এই আওয়ামী লীগ বড্ড অচেনা লাগে। এই সংগঠন বঙ্গবন্ধুর হতে পারে না। গণতান্ত্রিক আন্দোলন-সংগ্রামের নেত্রী শেখ হাসিনার হতে পারে না।

শেখ হাসিনা শুধু আওয়ামী লীগের নেত্রী নন, তিনি সাধারণ মানুষের শেষ ঠিকানা। এভাবে আর চলে না। আবারও বলছি, বঙ্গবন্ধুকন্যা সঠিক পথে রয়েছেন। কোন অন্যায় দীর্ঘমেয়াদে চলতে পারে না। ক্ষমতায় থাকতে হয় মানুষের মন জয় করে। উন্নয়ন ব্যাহত হয় আইনের শাসনের অভাবে। সুন্দর আগামীর পথে বাধা সৃষ্টিকারী দানবদের প্রতিরোধ করতে হবে সবাইকে মিলিতভাবেই। এ চেষ্টা যত কঠিন হোক না কেন বাস্তবায়ন করতে হবে।

একদিকে চলছে হাইব্রিড আর অনুপ্রবেশকারীদের স্বর্নযুগ। অন্যদিকে সমানতালে ত্যাগী, অনুগত আর পরীক্ষিতদের পিষে ফেলার চেষ্টাও চলছে। হালের আমিনুল ইসলাম আমিন কিংবা সেদিনের ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাট। বিচারের আগেই এদেরকে বলি দিয়ে দেওয়া হলো। কার স্বার্থে? আমিন ভাইয়ের ৪০ বছরের রাজনৈতিক ক্যারিয়ার। এর আগে একটা মামলা তো দূরের কথা একটা জিডি পর্যন্ত নেই উনার নামে। কিন্তু যেভাবে উনার মিডিয়া ট্রায়াল হলো সেটা নিঃসন্দেহে দুঃখজনক।

এই ইট পাথরের শহরে একজন মানবিক মানুষ ছিলেন। এই করোনা কালে অসহায় সম্বলহীন মানুষের পাশে উনাকে বড্ড বেশি প্রয়োজন ছিল। একজন ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাটের সমালোচনা খুব সহজেই করা যায় কিন্তু উনার সাহস, ত্যাগ আর কমিটমেন্টের ধারে কাছেও যাওয়া যায় না। বঙ্গবন্ধু মেডিকেলে করোনা চিকিৎসা শুরু হয়েছে। নানা রকম শারীরিক জটিলতায় ভোগা সম্রাট ভাইয়ের স্বাস্থ্যঝুঁকি বেড়েছে। মানবিক বিবেচনায় খালেদা জিয়ার জামিন মিললেও পার্টিজান সম্রাটকে সিসিইউ এর বেডে শুয়ে প্রতি মুহূর্তে নিজের মৃত্যুর গুজব ফেস করতে হয়। আজ অনুপ্রবেশকারীদের বাড়বাড়ন্ত দেখে দুর্দিনের কর্মীদের হৃদয়ে রক্তক্ষরণ হয়। দেরি হোক যাইনি সময়। সব শেষ হওয়ার আগে এবার লাগামটা টেনে ধরেন প্লিজ।

লেখক: সম্পাদক, বিবার্তা২৪ডটনেট

বিডি প্রতিদিন/আরাফাত


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর