প্রকাশ : ১ এপ্রিল, ২০২১ ০০:২০
প্রিন্ট করুন printer

স্যার সৈয়দ ও গালিবের বিরোধ বই দিয়ে শুরু মদের বোতল দিয়ে শেষ

আনোয়ার হোসেইন মঞ্জু

স্যার সৈয়দ ও গালিবের বিরোধ বই দিয়ে শুরু মদের বোতল দিয়ে শেষ
আনোয়ার হোসেইন মঞ্জু। ফাইল ছবি

ব্রিটিশ কর্তৃপক্ষ যখন সমগ্র ভারতে তাদের শাসন ও শোষণ পাকাপোক্ত করে ফেলেছে, পুরো সমাজ, রাজনীতি, ভূমি ব্যবস্থা, বিচার ও প্রশাসনে তাদের কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠা করেছে এবং পুরনো সালতানাত বা সাম্রাজ্যের কোনো কিছু আর অবশেষ নেই, তখন স্যার সৈয়দ আহমদ খান ফেলে আসা বিস্মৃত দিনের ঐতিহ্য ও ইতিহাসকে নতুন করে স্মরণ করতে শুরু করেন।

দিল্লির এক বিদ্যানুরাগী ব্যবসায়ী মোগল সম্রাট আকবরের সময়ে প্রণীত গুরুত্বপূর্ণ গ্রন্থ “আইন-ই-আকবরী”কে সংকলন ও সম্পাদনা করে প্রকাশ করার পরামর্শ দেন। আকবরের নবরত্ন সভার অন্যতম দরবারি আবুল ফজলের লেখা এই গ্রন্থে আকবরের শাসনামলের ইতিহাস, সংস্কৃতি-সভ্যতা, প্রশাসন ব্যবস্থাসহ মোগল দরবারের সকল কার্যাবলির বিস্তারিত বিবরণ লিপিবদ্ধ রয়েছে। 

স্যার সৈয়দ আহমদ খান এতে সম্মত হন। সিপাহি বিদ্রোহের পর মুসলমানদের ভাগ্যে যে বিপর্যয় নেমে এসেছিল এবং ব্রিটিশ কর্তৃপক্ষ যেভাবে মুসলমানদের প্রতি বিমাতাসুলভ আচরণ করছিল তা কাটিয়ে মুসলমানদের পুনরায় ভারতের মূলধারায় নিয়ে আসতে যে প্রচারণা প্রয়োজন স্যার সৈয়দ আহমদ খান সেই সুযোগ সৃষ্টির উদ্দেশ্যে এ দায়িত্ব গ্রহণ করেন। এর আগেই তিনি ফারসি ভাষায় “আসার-উস-সানাদীদ” বা প্রাচীন বীরদের কীর্তির অবশেষ’ নামে একটি গুরুত্বপূর্ণ গ্রন্থ রচনা করেছিলেন। এতে দিল্লি নগরীর প্রাচীন অট্টালিকাগুলোর ইতিহাস, ভূগোল এবং এসবের সঙ্গে জড়িত সভ্যতার কথা বর্ণনা করেছেন। 

“আইন-ই-আকবরী” প্রকাশনার আগে স্যার সৈয়দ আহমদ খান গ্রন্থটির ভূমিকা মির্জা আসাদুল্লাহ খান গালিবকে দিয়ে লিখিয়ে নিলে ভালো হয়। তিনি গালিবকে অনুরোধ জানান, গ্রন্থটির ওপর তার বক্তব্য লিখে দেওয়ার জন্য, যা ভূমিকা হিসেবে জুড়ে দেওয়া হবে। গালিব তার বক্তব্য লিখে সৈয়দ আহমদ খানের কাছে পাঠিয়ে দেন। এটি গালিবের ফারসি দিওয়ান এ “তকরীজ-এ-আইন-ই-আকবরী” নামে অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। 

গালিব তাঁর ভূমিকায় স্যার সৈয়দের অতীত-প্রেমের মানসিকতার কঠোর সমালোচনা করে তার দুঃখ প্রকাশ করেন যে, স্যার সৈয়দের মতো একজন বিজ্ঞ ব্যক্তি পুরনো বিষয়ের দিকে ফিরে নিজের সময়ের অপচয় করছেন। ইংরেজদের তৈরি আইনকানুনের কাছে সম্রাট আকবরের আইন অসার ও অর্থহীন বলে মন্তব্য করেন গালিব। তিনি লিখেন: “মুর্দা পরওরদতমুবারক কার নিস্ত” অর্থ্যাৎ ‘মৃত মানুষের কার্যকলাপ নিয়ে চর্চা করা ভালো কোনো কাজ নয়।” গালিবের মতে “আইন-ই-আকবরী” এমন কোনো গুরুত্বপূর্ণ গ্রন্থ সম্পাদনা বা ঠিকঠাক করার জন্য স্যার সৈয়দ আহমদ খানের মতো একজন ব্যক্তিকে তার সময় অপচয় করতে হবে।

প্রগতিশীল চিন্তাভাবনার ক্ষেত্রে গালিবের তুলনীয় মানুষ কমই ছিল। তিনি ভাবতেন অতীতের মধ্যে বেঁচে থাকার চেয়ে ভারতীয় জাতির উচিত নতুন জ্ঞান ও নতুন জীবনধারার সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলা। ভূমিকায় তিনি স্যার সৈয়দ আহমদ খানের সমালোচনার চেয়েও বেশি গুরুত্ব দিয়েছেন সময়ের ব্যবধানে আকবরের আইন যে অর্থহীন তা প্রমাণ করতে। গালিবের জীবনী লেখক আলতাফ হোসেন হালি লিখেছেন, “মির্জা গালিবের লেখা ভূমিকা স্যার সৈয়দের কাছে পৌঁছার পর তিনি সেটি আবারও গালিবের কাছে ফেরত পাঠান এবং একটি চিঠিতে লিখেন; “আমার এ ধরনের কোনো ভূমিকার প্রয়োজন নেই।” অতএব গালিবের লেখা ভূমিকা স্যার সৈয়দের সম্পাদিত “আইন-ই-আকবরী”তে স্থান পায়নি। 

এ ঘটনার পর দু’জনের মধ্যে দূরত্ব সৃষ্টি হয় ও সম্পর্ক খারাপ হয়ে যায়। এভাবে কয়েক বছর কেটে যাওয়ার পরও স্যার সৈয়দ ও মির্জা গালিবের সম্পর্কের উন্নতি ঘটেনি। একবার হঠাৎ এমন এক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়, যা দু’জনের দূরত্ব ঘোচানোর ক্ষেত্রে অবদান রাখে। এ সম্পর্কে স্যার সৈয়দ স্বয়ং লিখেছেন: “আমি যখন মুরাদাবাদে ছিলাম (মুরাদাবাদে তিনি জজ হিসেবে নিযুক্ত ছিলেন) তখন মির্জা সাহিব নওয়াব ইউসূফ আলী খাঁ’র সঙ্গে সাক্ষাৎ করার উদ্দেশে রামপুর যান। আমি সেখানে তার যাওয়ার খবর না পেলেও যখন তিনি সেখান থেকে ফিরে আসেন, তখন আমি জানতে পারি যে, তিনি মুরাদাবাদের এক সরাইখানায় ওঠেছেন। খবর পেয়েই আমি সরাইখানায় উপস্থিত হয়ে মির্জা সাহিবের মালামাল ও সফরসঙ্গীদের আমার বাড়িতে নিয়ে আসি।”

মির্জা গালিব স্যার সৈয়দের বাড়িতে পৌঁছার পর তার অভ্যাসগতভাবে মদের বোতল বের করে টেবিলের ওপর রাখেন। বোতলটি এমন জায়গায় ছিল যে সেদিক দিয়ে কেউ গেলে তার দৃষ্টি বোতলের ওপর পড়বে। স্যার সৈয়দ মদের বোতলটি উঠিয়ে বাড়ির ভেতরে লুকিয়ে রাখেন। কিছুক্ষণ পর মির্জা গালিব বোতল নিতে এসে দেখতে পান যে বোতলটি যথাস্থানে নেই। তিনি জানতে চান: “আমার মদের বোতল কোথায় গেল?”

স্যার সৈয়দ যেখানে বোতলটি লুকিয়ে রেখেছিলেন মির্জা গালিবকে সেই কামরায় নিয়ে যান। বোতল দেখেই গালিব বলেন, “বোতল থেকে কিছু মদ গায়েব হয়েছে। সত্যি কথা বলুন, কে পান করেছে?”এরপর তিনি হাফিজের কবিতা আবৃত্তি করেন: 
“বাইজাঁ কি জলওয়া-পর মেহরাব-ও-মিম্বর মি কুনাদ,
চুঁ ব-খলওত মি-রওন্দ আঁ কার-এ-দিগর মি কুনাদ।”

অর্থ্যাৎ “দেখানোর জন্য মিম্বর এবং মসজিদ থেকে নসিহত খয়রাত করো,
আর যখন একা থাকো তখন ভিন্ন কিছু করো।”

স্যার সৈয়দ আহমদ খান হেসে ফেলেন এবং এভাবে দু’জনের মাঝে সৃষ্ট মানসিক দূরত্বের অবসান ঘটে। 

বিডি প্রতিদিন/জুনাইদ আহমেদ


 


আপনার মন্তব্য