শিরোনাম
প্রকাশ : ২০ জানুয়ারি, ২০২০ ১৩:১২

'সিটি নির্বাচনের মাধ্যমে বিএনপির নেতা-কর্মীরা চাঙা হয়েছেন'

এনআরবি নিউজ, নিউইয়র্ক

'সিটি নির্বাচনের মাধ্যমে বিএনপির নেতা-কর্মীরা চাঙা হয়েছেন'

বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য এবং জাসাসের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক চিত্রনায়ক হেলাল খান বলেছেন, ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনের মাধ্যমে বিএনপির নেতা-কর্মীরা চাঙা হয়েছেন। এর মধ্যদিয়ে বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি আন্দোলন রাজপথে বেগবান হচ্ছে। সেই পথ বেয়েই বাংলাদেশের গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের পথ সুগম হবে। নির্বাচনের ফলাফল কী হবে, তা কারো অজানা নেই। তা সত্ত্বেও বিএনপি মাঠে থাকবে শেষ পর্যন্ত-আন্দোলনের অংশ হিসেবে।

বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা-চেয়ারমান প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৮৫তম জন্মদিন উপলক্ষে ১৯ জানুয়ারি নিউইয়র্ক মহানগর বিএনপির আলোচনা সভায় হেলাল খান বলেন, জিয়াউর রহমানের দেখানো পথ ধরেই বাংলাদেশের গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার করতে দেশ ও প্রবাসের সকলকে শান্তিপূর্ণ আন্দোলন রচনা করতে হবে।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি বিএনপির সহ-আন্তর্জাতিক সম্পাদক কণ্ঠশিল্পী বেবী নাজনীন বলেন, জিয়ার উত্তরসূরি হিসেবে অত্যন্ত বিচক্ষণতার সাথে ৩ বার প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালনকারি বেগম জিয়াকে কারাগারে নিক্ষেপের মধ্য দিয়ে গণতন্ত্রকে হত্যা করা হয়েছে। এ জন্য সকলকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে।

আয়োজক সংগঠন ‘নিউইয়র্ক মহানগর বিএনপি’র সভাপতি হাবিবুর রহমান সেলিম রেজার সভাপতিত্বে এ অনুষ্ঠানের প্রধান বক্তা বিএনপি নেতা শরাফত হোসেন বাবু বলেছেন, জিয়ার জন্মদিনে আমাদের শপথ হউক সকল ভেদাভেদ ভুলে ঐক্য রচনার।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক যুগ্ম সম্পাদক আকতার হোসেন বাদল কেন্দ্রীয় নেতাদের সমালোচনা করে বলেন, খালেদা জিয়া মুক্তি পাক এবং তারেক রহমান সসম্মানে বাংলাদেশে ফিরুক-এটি কোন কোন নেতা আন্তরিক অর্থে চায় না। এজন্যেই তারা দুর্বার আন্দোলনের কর্মসূচি প্রদানে রহস্যজনকভাবে নিরবতা পালন করছেন। শুধু তাই নয়, প্রবাসের নেতা-কর্মীদের মাঝেও বিভক্তির বিষবাস্প ছড়িয়ে গেছেন কয়েকজন নেতা। এখন সময় হচ্ছে, তৃণমূলের কর্মীদের ঐক্যবদ্ধ হয়ে এই প্রবাস থেকেই আন্দোলন রচনার।

বাদল অভিযোগ করেন, সিনেট-কংগ্রেস এবং জাতিসংঘে বিএনপির পক্ষে দেন-দরবারে গিয়ে বিব্রত হতে হচ্ছে। কারণ, সাংগঠনিক কোন পরিচয় নেই আমাদের। ৮ বছর আগে যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির কমিটি ভেঙে দেয়ার পর এক অদৃশ্য কারণে নতুন কমিটির অনুমোদন এখনও আসেনি। এভাবেই প্রবাসের নেতা-কর্মীদেরকে স্থবিরতায় ঠেলে দেয়া হয়েছে।

অপর বিশেষ অতিথি যুবদলের কেন্দ্রীয় নেতা এম এ বাতিন জিয়াউর রহমানের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা এবং তার আত্মার শান্তি কামনা করে বলেন, বেগম জিয়াকে মুক্তির প্রশ্নে আর কালক্ষেপণের অবকাশ নেই।

যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক কোষাধ্যক্ষ জসীম ভূইয়া বলেছেন, জিয়াউর রহমানের জন্মদিনে সকলের শপথ হউক বেগম জিয়াকে কারামুক্তির আন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পড়ার।

অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন যুক্তরাষ্ট্র জাসাসের সভাপতি ও কেন্দ্রীয় আন্তর্জাতিক সম্পাদক আলহাজ্ব আবু তাহের, যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক যুগ্ম সম্পাদক গিয়াসউদ্দিন, বিএনপি নেতা কাজী আছাদ উল্লাহ, আরাফাত রহমান কোকো স্মৃতি পরিষদের যুক্তরাষ্ট্র শাখার সভাপতি ও কেন্দ্রীয় কমিটির আন্তর্জাতিক সম্পাদক শাহাদৎ হোসেন রাজু, যুক্তরাষ্ট্র জাসাসের সেক্রেটারি কাওসার আহমেদ, মহানগর বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি রুহুল আমিন নাসির, জাসাস নেতা শেখ হায়দার আলী, বিএনপি নেতা মুক্তিযোদ্ধা মীর মশিউর রহমান, রাশিদা আহমেদ মুন, আলমগীর মৃধা, শেখ কাইয়ুম, আনোয়ার হোসেন, জাফর ফারাজি, তাহমিনা আকতার, নিউজার্সি স্টেট বিএনপির সভাপতি নূরল ইসলাম খসরু এবং সেক্রেটারি আবুল কালাম।

সভাপতির সমাপনী বক্তব্যে হাবিবুর রহমান সেলিম রেজা বলেন, জিয়াউর রহমানের নেতৃত্বে বাংলাদেশ বহুদলীয় গণতন্ত্রে প্রত্যাবর্তন করেছিল। সেই চেতনায় প্রতিটি নেতা-কর্মীকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে পুনরায় বাংলাদেশের গণতন্ত্রকে মুক্ত করার আন্দোলন রচনা করতে হবে।

বিডি প্রতিদিন/ফারজানা


আপনার মন্তব্য