শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ২৬ অক্টোবর, ২০১৫ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৫ অক্টোবর, ২০১৫ ২৩:৫৯

নিজেদের রেকর্ড স্পর্শ করল প্রোটিয়ারা

ক্রীড়া প্রতিবেদক

নিজেদের রেকর্ড স্পর্শ করল প্রোটিয়ারা

৪৭ নম্বর ওভারে এবি ডি ভিলিয়ার্স যখন সাজঘরে ফিরেন, তখনো দক্ষিণ আফ্রিকার ইনিংস শেষ হতে বাকি ২০ বল। বিশ্ব রেকর্ড থেকে দূরে মাত্র ৪৪ রান! পরের ৮ বলে প্রোটিয়াদের স্কোর কার্ডে যোগ হয় ৬ রান। আর তখনই পিছিয়ে পড়ে দক্ষিণ আফ্রিকা। ফলে ক্রিকেট ইতিহাসে প্রথম দল হিসেবে সাড়ে ৪০০ রান করার রেকর্ড গড়া হলো না। ভাঙা হলো না বিশ্ব রেকর্ডও। ভাঙতে না পারলেও একমাত্র দল হিসেবে তিনবারের মতো চারশ বা ততোধিক রান করার রেকর্ডটা গড়ে নেন ভিলিয়ার্সরা। ওয়াংখেড় স্টেডিয়ামে সিরিজ মীমাংসার ম্যাচে কুইন ডি ককস্, এবি ডি ভিলিয়ার্স ও ফাফ ডু প্লেসিসের ‘ত্রয়ী’ সেঞ্চুরিতে ভারতের বিপক্ষে ৪ উইকেটে ৪৩৮ রান করে। যা ওয়ানডে ক্রিকেট ইতিহাসে যুগ্মভাবে তৃতীয় সর্বোচ্চ স্কোর। ৩৭০০ ওয়ানডে ক্রিকেট ইতিহাসে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড শ্রীলঙ্কার, ৪৪৩/৯, প্রতিপক্ষ নেদারল্যান্ডস। 

সর্বোচ্চ দলগত স্কোরের বিশ্বরেকর্ড হয়নি ওয়াংখেড়ে। কিন্তু ব্যক্তিগত মাইলফলকে উজ্জ্বল। ওয়ানডে ক্রিকেট ইতিহাসে এ নিয়ে এক ইনিংসে তিন তিনটি সেঞ্চুরির রেকর্ড হল দু’বার। দুবারই করেছে দক্ষিণ আফ্রিকা এবং এই বছরে, ৯ মাসের ব্যবধানে। এ বছরের জানুয়ারিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে প্রোটিয়ারা ২ উইকেটে ৪৩৯ রান করেছিল ভিলিয়ার্স, হাশিম আমলা ও রাইলি রুশোর সেঞ্চুরিতে। ওই ম্যাচে ডি ভিলিয়ার্স গড়েছিলেন দ্রুততম সেঞ্চুরির রেকর্ড। মাত্র ৩১ বলে করেছিলেন সেঞ্চুরি। কালও সেঞ্চুরি করেন। ভুবনেশ্বর কুমার, মোহিত শর্মা, অমিত মিশ্র, হারভজন সিংদের নিয়ে ছেলেখেলায় মেতে ১১৯ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলেন মাত্র ৬১ বলে। সেঞ্চুরি ৫৭ বলে! ডি ভিলিয়ার্সের ইনিংসে বাউন্ডারি ৩টি হলেও ওভার বাউন্ডারির সংখ্যা ১১। অপর দুই সেঞ্চুরিয়ানের একজন কুইন ডি ককস্ ১০৯ রানের ইনিংস খেলেন ৮৭ বলে এবং মাসল ক্র্যাম্প করার আগে ফাফ ডু প্লেসিস ১৩৩ রানের ইনিংসটি খেলেন ১১৫ বলে। তিন সেঞ্চুরি পাশে হাশিম আমলার ২৩ রানের ইনিংসটিকে অন্ধকারই বলা যায়! কিন্তু ইনিংসটি খেলার পথে বিরাট কোহলীকে ফেলে গড়েছেন নতুন বিশ্বরেকর্ড। কোহলী ছয় হাজার রানের মাইলফলক গড়েছিলেন ১৩৬ ইনিংসে। আমলা গড়েন ১২৩ ইনিংসে। কোহলী রেকর্ড ভেঙেছিলেন লিজেন্ড ক্রিকেটার ভিভ রিচার্ডসের। ২০০৮ সালে অভিষিক্ত আমলা দ্রুততম ২০০০, ৩০০০, ৪০০০ ও ৫০০০ রানের মালিকও। ওয়ানডেতে দ্রুততম সাত হাজার রানের রেকর্ডটি দক্ষিণ আফ্রিকার ওয়ানডে অধিনায়ক এবি ডি ভিলিয়ার্সের। ১৬৬ ইনিংসে এই রান করে ভারতের সাবেক অধিনায়ক সৌরভ গাঙ্গুলির (১৭৪) রেকর্ড ভাঙেন তিনি ম্যাচটিতে সর্বোচ্চ স্কোরের রেকর্ড হয়নি। কিন্তু বাউন্ডারি থেকে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড হয়েছে। ম্যাচে ছক্কা হয়েছে ২০টি এবং বাউন্ডারি ৩৮টি। মিলিত রান ২৭২! যা নতুন বিশ্বরেকর্ড। আগের রেকর্ড ছিল শ্রীলঙ্কার। ১৯৯৬ সালে কেনিয়ার বিপক্ষে ২৫৬ রান তুলেছিল বাউন্ডারি, ওভার বাউন্ডারি থেকে।  রেকর্ড গড়ার ম্যাচটি ২১৪ রানে জিতে সিরিজ নিজেদের করে নিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা। ভারতের ইনিংস শেষ হয় ৩৫.৫ ওভারে ২৩৪ রানে।


আপনার মন্তব্য