শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ২৩:২৮

শেখ রাসেল-শেখ জামাল কেউ জেতেনি

ক্রীড়া প্রতিবেদক

শেখ রাসেল-শেখ জামাল কেউ জেতেনি
বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে শেখ রাসেল ও শেখ জামালের বল দখলের লড়াই। গুরুত্বপূর্ণ এই ম্যাচে গোলশূন্য ড্র করে মাঠ ছাড়ে দুই জায়ান্ট -বাংলাদেশ প্রতিদিন

চট্টগ্রাম আবাহনীর বিপক্ষে জয়ের ম্যাচে দুর্দান্ত পারফরম্যান্স ছিল অ্যালেক্স রাফায়েল দ্য সিলভা অ্যান্টোনিওর। ২০১২-১৩ মৌসুমের চ্যাম্পিয়নরা জয় পেয়েছিল, কিন্তু চোট পেয়েছিলেন অ্যালেক্স রাফায়েল। চোটের সেই ধাক্কায় গতকাল শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবের বিপক্ষে হেভিওয়েট ম্যাচের শুরুর একাদশে ছিলেন না। ব্রাজিলিয়ান স্ট্রাইকারের অভাব হাড়ে হাড়ে টের পায় শেখ রাসেল। বাধ্য হয়েই দলটির কোচ সাইফুল বারী টিটু বদলি খেলোয়াড় হিসেবে মাঠে নামান অ্যালেক্স রাফায়েলকে। মাঠে নামার আগে পায়ের ইনজেকশন দিয়ে নেন ব্রাজিলিয়ান স্ট্রাইকার। খেলেছেন মিনিট বিশেক। তাতেই আলো ছড়িয়েছেন দুর্দান্ত প্লে মেকিংয়ে। ৬৫ মিনিটে ডি বক্সের মাথা থেকে তার ডান পায়ে নেওয়া দুর্দান্ত শট শেখ জামালের গোলরক্ষক অসীম কুমার দাসকে পরাস্ত করলেও ক্রসপিঠে লেগে ফিরে আসে বল। ফলে গোল হয়নি। শুধু ওই সুযোগটিই নষ্ট হয়নি, শেখ জামালের আর্জেন্টাইন স্ট্রাইকার লুইসিয়ানো আমানুয়েল আরাইয়া পেরেজও দুই দুটি নিশ্চিত গোল মিস করেন। দুই দলের স্ট্রাইকারদের  গোল মিসে ম্যাচটি গোলশূন্য ড্র হয়। বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে শেখ রাসেলের এটা দ্বিতীয় ড্র। ৬ ম্যাচে ৪ জয়ে ১৪ পয়েন্ট তিন নম্বরে রয়েছে শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্র। প্রথম দুই ম্যাচে হারের ধাক্কা সামলে শিরোপা রেসে ফিরেছে শেখ জামাল। ৭ ম্যাচে ৩ জয়, দুই হার ও দুই ড্রয়ে বিপিএলের অন্যতম সফল দলটির পয়েন্ট ১১।

বছর প্রথম দুই টুর্নামেন্ট ফেডারেশন কাপ স্বাধীনতা কাপে দুই দল ফাইনাল খেলতে পারেনি। ফেডারেশন কাপের চ্যাম্পিয়ন আবাহনী এবং স্বাধীনতা কাপের শিরোপা জিতে বসুন্ধরা কিংস। টুর্নামেন্ট দুটিতে শেখ রাসেল ও শেখ জামাল না পারলেও লিগের শিরোপা রেসে রয়েছে। গতকাল শেখ রাসেল খেলতে নামে ব্রাজিলিয়ান স্ট্রাইকার অ্যালেক্স রাফায়েলকে ছাড়া। খেলতে নামে আগের ম্যাচে চট্টগ্রাম আবাহনীকে হারানোর আত্মবিশ্বাস নিয়ে। সাইফুল বারী টিটোর কোচিংয়ে দুর্দান্ত খেলছে শেখ রাসেল। গতকাল পয়েন্ট হারানোর জন্য গোল মিসকে দুষলেন টিটো, ‘অ্যালেক্সকে শুরুতে খেলাতে না পারায় আমাদের সমস্যা হচ্ছিল। পরে বাধ্য হয়ে পায়ে ইনজেকশন দিয়ে খেলতে নামানো হয়। সে নামার পর দলের গতি বেড়েছিল। যদিও গোল পাইনি। গোলগুলো হলে আমরা হয়তো জিতে যেতাম। জিততে পারতো শেখ জামালও। তারাও সহজ সযোগ নষ্ট করেছে। বড় ম্যাচে জিততে সুযোগগুলোকে কাজে লাগাতে হবে।’ শেখ রাসেল দারুণভাবে লিগ শুরু করে টানা তিন ম্যাচে আরামবাগকে ১-০, ব্রাদার্সকে ৩-২ এবং মোহামেডানকে ৩-০ গোলে উড়িয়ে দিয়ে। চার নম্বর ম্যাচে এসে সাইফ স্পোর্টিংয়ের বিপক্ষে পয়েন্ট হারায় ১-১ গোলে ড্র করে। পঞ্চম ম্যাচে চট্টগ্রাম আবাহনীকে ১-০ গোলে হারিয়ে ফের জয়ে ফিরে। গতকাল সুযোগ মিস করে ফের পয়েন্ট হারায়। শেখ জামাল লিগের শুরুতেই হোঁচট খায় বসুন্ধরা কিংসের কাছে ১-০ ও মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কাছে ৩-০ গোলে হেরে। তৃতীয় ম্যাচে রহমতগঞ্জের বিপক্ষে ২-২ গোলে ড্র করে প্রথম পয়েন্ট পায়। এরপর টানা তিন ম্যাচে হারায় টিম বিজেএমসিকে ২-০, আরামবাগকে ২-০ এবং ব্রাদার্স ইউনিয়নকে ১-০ গোলে। টানা তিন জয়ে জোসেফ আফুসির শেখ জামাল ফিরে আসে শিরোপা রেসে। গতকাল আর্জেন্টাইন স্ট্রাইকার লুসিয়ানোর গোল মিসে ফের পয়েন্ট হারায় ২০১৫ সালের চ্যাম্পিয়নরা।                 

বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে গতকাল দিনের প্রথম ম্যাচটি ছিল দুই সাবেক চ্যাম্পিয়নের। ফাগুনের ভালো লাগা ম্যাচে প্রথম আক্রমণে যায় আফুসির দল। ৭ মিনিটে প্রথম সুযোগ পায় ধানমন্ডি পাড়ার দলটি। কিন্তু ক্রসবার প্রতিপক্ষ হয়ে দাঁড়ানোয় গোল পায়নি দলটি।  ৩৩ মিনিটে সুযোগ পায় শেখ রাসেল। দলটির উজবেকিস্তানের স্ট্রাইকার আজিজভ আলিশেরের শট ধরে ফেলেন শেখ জামালের গোলরক্ষক অসীম। ৪৩ মিনিটে আরেকবার সুযোগ পায়। দলটির গাম্বিয়ান স্ট্রাইকার সলোমন কিংয়ের ক্রস ধরে শট নেন লুসিয়ানো। কিন্তু বলটি সাইড বারের দূর দিয়ে যায়। প্রথমার্ধ শেষ হয় গোলশূন্য। দ্বিতীয়ার্ধে শেখ রাসেল  খেলতে নামে অ্যালেক্স রাফায়েলকে নিয়ে। রাফায়েল নেমে সুযোগও সৃষ্টি করে। কিন্তু রাফায়েলের শটটি ক্রসবারে লেগে ফিরে আসায় হতাশায় নিমজ্জিত হয় দলটির শিবির। এরপর আর গোল হয়নি। এদিকেও দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে ঢাকা আবাহনী ৪-০ গোলে হারিয়েছে ব্রাদার্স ইউনিয়নকে। প্রথম গোলটি আত্মঘাতী হলেও বেলফোর্ট ২টি ও সানডে ১টি গোল করেন। এ জয়ে ৭ ম্যাচে ১৮ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে রয়েছে আবাহনী।


আপনার মন্তব্য