শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২০ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ২৩:১৫

তবুও সভাপতি পদ নিয়ে আলোচনা

তরফদার নেই বলে অনেকে ধারণা করছে সালাউদ্দিন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চতুর্থ মেয়াদে নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন। বাস্তবে কিন্তু তা হচ্ছে না

ক্রীড়া প্রতিবেদক

তবুও সভাপতি পদ নিয়ে আলোচনা

বাফুফের নির্বাচন এখনো ঘোষণা হয়নি। তবে এপ্রিলের শেষের দিকে নির্বাচনের সম্ভাবনা বেশি। পদ অনেক থাকলেও মূল আগ্রহ সভাপতি প্রার্থীকে নিয়ে। দুই বছর আগে থেকে সভাপতি পদে নির্বাচন করার ঘোষণা দেন তরফদার রুহুল আমিন। সংগঠন ও সাবেক তারকা ফুটবলারদের নিয়ে ঢালাওভাবে প্রচারেও নেমে পড়েছিলেন। শক্তিশালী প্যানেল দেওয়ার ঘোষণা দেন। এমন পরিস্থিতিতে তরফদারকে শক্তিশালী প্রার্থীই ভাবা হচ্ছিল। কিন্তু হঠাৎ করেই সংবাদ সম্মেলনে সভাপতি পদে নির্বাচন না করার ঘোষণা দেন। তার এই সিদ্ধান্ত নিয়ে ক্রীড়াঙ্গনে নানা গুঞ্জনও রয়েছে। তবে তরফদার বলেছেন নির্বাচন ঘিরে যে উত্তাপ পরিবেশ তৈরি হচ্ছে তা ফুটবলের জন্য মঙ্গলকর নয়। তাই ফুটবলের বৃহত্তর স্বার্থে আপাতত সভাপতি পদে নির্বাচন করার ইচ্ছা নেই।

তরফদার সরে দাঁড়ালেও কাজী সালাউদ্দিন পুনরায় সভাপতি পদে নির্বাচন করার ঘোষণা দিয়েছেন। তরফদার নেই বলে অনেকে ধারণা করছে সালাউদ্দিন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চতুর্থ মেয়াদে নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন। বাস্তবে কিন্তু তা হচ্ছে না। তরফদার সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, তিনি সভাপতি পদ থেকে সরে দাঁড়ালেও তার প্যানেল শক্তিশালী প্রার্থী দেবে। বাফুফের বর্তমান কমিটির সহ-সভাপতি মহিউদ্দিন আহমেদ মহি আগেই তরফদারকে সমর্থন দিয়েছিলেন। তিনিও আভাস দিয়েছেন সালাউদ্দিনের বিপক্ষে প্রার্থী দেওয়ার। প্রশ্ন হচ্ছে কে সালাউদ্দিনের বিপক্ষে লড়বেন। এখানে অনেকেরই নাম শোনা যাচ্ছে।

একজন সাবেক ফুটবলার বলেন, আমরা চাই ফুটবলে পরিবর্তন। তাই সালাউদ্দিন ভাইকে ছাড় দেওয়ার প্রশ্নই ওঠে না। অপেক্ষায় থাকুন চমক দেওয়ার একজন সভাপতি প্রার্থী আমরা দেব। আবার এই গুঞ্জনও রয়েছে সরকারের প্রভাবশালী মহল চাচ্ছে সালাউদ্দিনকে সভাপতি করেই ঐকমত্যের কমিটি গঠন। বিভেদ ভুলে সবাই মিলে মিশে ফুটবল উন্নয়নে কাজ করবে এই নির্দেশনাও নাকি এসেছে প্রভাবশালী মহল থেকে। শেষ পর্যন্ত কি যে হয় বলা মুশকিল।


আপনার মন্তব্য