শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২৩:৫৬

বার্সা-বধের নায়ক এমবাপ্পে

বার্সেলোনা ১ - ৪ পিএসজি

রাশেদুর রহমান

বার্সা-বধের নায়ক এমবাপ্পে

লিওনেল মেসিকে ২০১৮ সালে রাশিয়া বিশ্বকাপে কাঁদিয়েছিলেন ফরাসি তরুণ কিলিয়ান এমবাপ্পে। সেই বিশ্বকাপে শেষ ষোলোর লড়াইয়ে আর্জেন্টিনাকে ৪-৩ গোলে হারিয়েছিল ফ্রান্স। এমবাপ্পে দুটি গোল করে দলের জয়ে বড় ভূমিকা রেখেছিলেন। মঙ্গলবার আবারও মেসিকে কাঁদালেন এমবাপ্পে। এবার ফরাসি ক্লাব পিএসজির জার্সিতে।

উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগে শেষ ষোলোর প্রথম লেগে ন্যু ক্যাম্পে বার্সেলোনা মুখোমুখি হয়েছিল পিএসজির। নিজেদের মাঠে ম্যাচের শুরুতে মেসির পেনাল্টি গোলে এগিয়ে গিয়েছিল কাতালানরাই। তবে এমবাপ্পের হ্যাটট্রিকে ম্যাচে ৪-১ গোলে হেরেছে বার্সেলোনা। দ্বিতীয় লিগে পিএসজির মাঠে কাতালানদের অন্তত ৪-০ গোলে জিততে হবে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করতে হলে। ২০১৬-১৭ মৌসুমে শেষ ষোলোর লড়াইয়ে পিএসজির মুখোমুখি হয়েছিল কাতালানরা। সেবার প্যারিসে প্রথম লেগে ৪-০ গোলে হেরেও দ্বিতীয় লেগে ৬-১ ব্যবধানে জিতে শেষ আট নিশ্চিত করেছিলেন মেসি-নেইমাররা। এবার কী মেসি একা পারবেন!

ম্যাচের শুরুটা ভালোই করেছিল বার্সেলোনা। ২৭তম মিনিটে মেসি পেনাল্টি থেকে গোল করে দলকে এগিয়ে দেন। কিন্তু এরপরই শুরু হয় এমবাপ্পে ঝড়। ৩২, ৬৫ ও ৮৫ মিনিটে গোল করেন এই ফরাসি তারকা। এছাড়াও পিএসজির পক্ষে একটি গোল করেন মোইস কিয়েন। এ জয়ে কোয়ার্টার ফাইনালের পথে অনেকটাই এগিয়ে গেলে পিএসজি। এমবাপ্পে চলতি মৌসুমে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ৫টি গোল করেছেন। ৬টি করে গোল করে যৌথভাবে শীর্ষে আছেন চার জন।

বার্সেলোনার সামনে এক কঠিন বাস্তবতাই ধরা দিয়েছে। জেরার্ড পিকে, জর্দি আলবাদের দিয়ে আর ডিফেন্স সামলাতে পারছে না কাতালানরা। বার্সা কোচ রোনাল্ড কোম্যানও তাই মনে করেন। তিনি ম্যাচের পর বলেছেন, ‘এটাই কঠিন বাস্তবতা। ম্যাচটি দেখিয়েছে, শীর্ষ পর্যায়ের দল হওয়ার জন্য আমাদের অনেক কিছুতেই ঘাটতি রয়েছে। চ্যাম্পিয়ন্স লিগে যে মান থাকা দরকার তা আমাদের নেই।’ প্রতিপক্ষের প্রশংসাই করেছেন তিনি। অবশ্য প্রথমার্ধে দুই দল সমানে

সমানে খেলেছে বলেই মনে করেন বার্সা কোচ। তিনি বলেন, ‘প্রথমার্ধে আমরা এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ পেয়েছিলাম। কিন্তু দ্বিতীয়ার্ধে আমরা রক্ষণভাগ সামলাতে পারিনি।’

বার্সেলোনা দীর্ঘদিন পর শেষ ষোলো থেকেই বাদ পড়ার শঙ্কায় পড়েছে। ২০০৬-০৭ মৌসুমে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ ষোলো থেকে বিদায় নিয়েছিল কাতালানরা। সেবার বার্সেলোনাকে বিদায় করেছিল লিভারপুল। প্রথম লেগে লিভারপুল বার্সেলোনার মাঠে ২-১ গোলে জয় পায়। দ্বিতীয় লেগে কাতালানরা জিতে ১-০ গোলে। কিন্তু অ্যাওয়ে গোলের সুবিধা নিয়ে শেষ আটে পৌঁছায় লিভারপুল। ২০০৬-০৭ মৌসুমের পর থেকে প্রতিবারই অন্তত কোয়ার্টার ফাইনাল খেলেছে বার্সেলোনা। দীর্ঘদিনের রেকর্ডটা এবার হারাতে যাচ্ছেন মেসিরা!

 

পিএসজির কাছে পরাজিত বার্সেলোনাকে নিয়ে স্প্যানিশ পত্রিকা মার্কা একটি প্রতিবেদন ছেপেছে। সেখানে বার্সেলোনার মাঠের চিত্র বর্ণনা করা হয়েছে। মাঠেই নাকি জেরার্ড পিকে ও আঁতোয়ান গ্রিজমান বাক যুদ্ধ শুরু করেছিলেন।

বার্সেলোনা দ্বিতীয় লেগে পিএসজির মুখোমুখি হবে ১০ মার্চ। পার্ক দি প্রিন্সেসে অনুষ্ঠেয় সে ম্যাচে থাকতে পারেন ব্রাজিলিয়ান তারকা নেইমার। ন্যু ক্যাম্পে খেলতে পারেননি তিনি। এ কারণে বেশ মন খারাপ ছিল নেইমারের। টুইটারে জানিয়েছিলেন, যে ম্যাচগুলো খেলতে বছরজুড়ে অপেক্ষায় থাকেন তাই খেলতে পারছেন না। নেইমারকে ছাড়াই দুরন্ত জয় পেয়েছে পিএসজি। তিনি ফিরলে কাতালানদের সামনে আরও ভয়ঙ্কর হয়ে দেখা দিতে পারে ফরাসি ক্লাবটি। গত মৌসুমে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ফাইনাল খেলেছিল পিএসজি। এবারও সেই পথেই ছুটছে তারা!


আপনার মন্তব্য