শিরোনাম
শনিবার, ১৩ জানুয়ারি, ২০২৪ ০০:০০ টা

চট্টগ্রামের টার্গেট শীর্ষ ৪

ক্রীড়া প্রতিবেদক

চট্টগ্রামের টার্গেট শীর্ষ ৪

বিপিএলের সর্বশেষ আসরের লিগ পর্ব টপকাতে পারেনি চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। অথচ আগের তিন আসরে প্লে অফ খেলেছে বন্দরনগরের দলটি। ২০১৩ সালে চট্টগ্রাম কিংস নামে একবার মাত্র ফাইনাল খেলেছিল। ঢাকা গ্লাডিয়েটর্সের কাছে হেরে রানার্সআপ হয়েছিল সেবার। চট্টগ্রাম বিভাগীয় অঞ্চল থেকে বর্তমান আসরে খেলছে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। এর আগে খেলেছিল চট্টগ্রাম কিংস ও চট্টগ্রাম ভাইকিংস। এবার দলটিতে বড় বড় কোনো তারকা নেই। দলের কোচও তারকা নন। তার পরও দলটি স্বপ্ন দেখছে প্লে অফ খেলার। দলটি আজ অনুশীলন শুরু করবে পিকেএসপি বা পুবেরগাঁও ক্রিকেট একাডেমিতে। শুরুতে দলটি পাকিস্তানের ক্রিকেটারদের পাবে না। তার পরও দলের কোচ তুষার ইমরান টার্গেট করেছেন প্লে অফ, ‘অন্য সব দলের মতো আমাদেরও স্বপ্ন কোয়ালিফাইয়ার্স রাউন্ড খেলা। এজন্য কঠিন লড়াই করতে হবে। কারণ তিনটি দল খুবই শক্তিশালী। সুতরাং আমাদের সেরাটাই খেলতে হবে।’

চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স বিপিএলের দশম আসর শুরু করবে ১৯ জানুয়ারি সন্ধ্যা ৭টায়। প্রতিপক্ষ সিলেট স্ট্রাইকার্স। টুর্নামেন্টের ফাইনাল ১ মার্চ। সাত দলের টুর্নামেন্টে এবার শিরোপা জয়ের জন্য শক্তিশালী দল গড়েছে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স, রংপুর রাইডার্স ও ফরচুন বরিশাল। বাকি চার দল চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স, খুলনা টাইগার্স, সিলেট স্ট্রাইকার্স ও দুর্দান্ত ঢাকা। টি-২০ টুর্নামেন্ট বলে কোনো দলকেই হালকা মেজাজে নেওয়া ঠিক নয় বলেন চট্টগ্রামের কোচ, ‘ক্রিকেট হচ্ছে দিনের খেলা। তার ওপর টি-২০ ফরম্যাটের খেলা। আসরে শক্তিশালী দল থাকলেও কাউকে খাটো চোখে দেখা ঠিক হবে না।’

চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সে বড় কোনো তারকা নেই। নেই লোকাল হিরো তামিম ইকবাল। জাতীয় দলে খেলছেন এবং খেলার অভিজ্ঞতাসম্পন্ন ক্রিকেটার রয়েছেন বেশ কয়েকজন। তবে দলটি তরুণদের নিয়ে গড়া। দলের সম্ভাব্য অধিনায়ক অফ স্পিন অলরাউন্ডার শুভাগত হোম। দলটির ব্যাটিং লাইনের ভরসা বিদেশি ক্রিকেটার। দল বিদেশি ক্রিকেটারের কোটায় নিয়েছে পাকিস্তানের আবদুল্লাহ শফিক, মোহাম্মদ হারিস, মোহাম্মদ হাসনাইনকে। এ ছাড়া বিদেশি কোটায় রয়েছে আফগানিস্তানের নাজিবুল্লাহ জাদরান, সংযুক্ত আরব আমিরাতের মোহাম্মদ ওয়াসিম, আয়ারল্যান্ডের কার্টিস ক্যাম্ফার, অস্ট্রেলিয়ার স্টিফেন এসকিনজাই, শ্রীলঙ্কার কুশল মেন্ডিস ও ওমানের বিলাল খান। এ ছাড়া স্থানীয় ক্রিকেটারদের মধ্যে রয়েছেন তানজিদ হাসান তামিম, শুভাগত হোম, জিয়াউর রহমান, শাহাদাত হোসেন দীপু, সৈকত আলি, আল আমিন হোসেন, শহিদুর ইসলাম, নিহাদুজ্জামান ও সালাউদ্দিন শাকিল। দল নিয়ে কোচ তুষার আত্মবিশ্বাসী, ‘দলটি তরুণদের নিয়ে গড়া। স্থানীয় ক্রিকেটারদের মধ্যে বড় কোনো তারকা ক্রিকেটার নেই। তবে যারা আছেন সবাই দায়িত্ব পালনে প্রস্তুত। এ ছাড়া বিদেশি ক্রিকেটাররাও ভালো মানের। যদিও শুরুতে পাকিস্তানের ক্রিকেটারদের না পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তার পরও অন্য যারা রয়েছেন তারা পরীক্ষিত।’

দেশি ও বিদেশি ক্রিকেটারদের নিয়ে গড়া দলের শক্তিশালী দিক হচ্ছে ব্যাটিং। তেমনটাই জানিয়েছেন কোচ তুষার, ‘আমাদের শক্তিশালী দিক ব্যাটিং বিভাগ। দলটিতে রয়েছেন বিশ্বকাপ খেলা তানজিদ তামিম, নাজিবুল্লাহ জাদরান, আবদুল্লাহ শফিক, শুভাগত হোম, শাহাদাত দীপুর মতো ব্যাটার। তবে বোলিং বিভাগও একেবারে দুর্বল নয়।’

ব্যাটার : তানজিদ হাসান তামিম, মুহাম্মদ ওয়াসিম, নাজিবুল্লাহ জাদরান ও আবদুল্লাহ শফিক।

অলরাউন্ডার : শুভাগত হোম, জিয়াউর রহমান, শাহাদাত হোসেন দীপু, সৈকত আলি ও কার্টিস ক্যাম্ফার।

উইকেটরক্ষক : স্টিফেন এসকিনজাই, কুশল মেন্ডিস ও মোহাম্মদ হারিস।

বোলার : আল আমিন হোসেন, শহিদুল ইসলাম, নিহাদুজ্জামান, সালাউদ্দিন শাকিল, মোহাম্মদ হাসনাইন ও বিলাল খান।

সর্বশেষ খবর