শিরোনাম
প্রকাশ : ২৪ নভেম্বর, ২০২০ ০৮:৩৪
প্রিন্ট করুন printer

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হচ্ছেন অ্যান্থনি ব্লিংকেন

অনলাইন ডেস্ক

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হচ্ছেন অ্যান্থনি ব্লিংকেন
অ্যান্থনি ব্লিংকেন

মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আনুষ্ঠানিক ফল এখনও প্রকাশ হয়নি। হার মানতে নারাজ ক্ষমতাসীন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তবুও সরকার গঠনের প্রস্তুতি শুরু করেছেন নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাওয়া ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন।

এরই মধ্যে আনুষ্ঠানিকভাবে সম্ভাব্য মন্ত্রিসভার ছয় সদস্যের নাম ঘোষণা করেছেন জো বাইডেন। খবর সিএনবিসি’র।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে অ্যান্থনি ব্লিংকেনের নাম জানিয়েছেন জো বাইডেন।

এদিকে নির্ভরযোগ্য সূত্রের বরাত দিয়ে নিউইয়র্ক টাইমস জানিয়েছে,বাইডেন সরকারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হতে পারেন ৫৮ বছর বয়সী কূটনীতিক অ্যান্থনি ব্লিংকেন। ওবামা আমলে তিনি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দ্বিতীয় শীর্ষ ব্যক্তি ছিলেন। উপ-জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টার দায়িত্বও পালন করেছেন তিনি। 

ট্রাম্প প্রশাসনের দুর্বল কৌশল ও জাতীয়তাবাদী দোলাচলের চার বছর পর আমেরিকার কূটনীতি এবং বিশ্ব নেতাদের একত্রিত করার কাজ করতে হবে তাকে।


বিডি প্রতিদিন/কালাম


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ৮ ডিসেম্বর, ২০২০ ১০:১৯
আপডেট : ৮ ডিসেম্বর, ২০২০ ১১:৪৫
প্রিন্ট করুন printer

ফল পাল্টানোর পরিকল্পনায় ট্রাম্প, গভর্নরকে চাপ

অনলাইন ডেস্ক

ফল পাল্টানোর পরিকল্পনায় ট্রাম্প, গভর্নরকে চাপ

গত ৩ নভেম্বর যুক্তরাষ্ট্রে অনুষ্ঠিত হয়েছে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। এই নির্বাচনে বর্তমান প্রেসিডেন্ট রিপাবলিকান পার্টির প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্পকে হারিয়ে জয় পেয়েছেন ডেমোক্র্যাটিক পার্টির প্রার্থী জো বাইডেন। আগামী সপ্তাহেই ইলেকটোরাল কলেজ বৈঠকে বসে বাইডেনকে পরবর্তী মার্কিন প্রেসিডেন্ট হিসেবে আনুষ্ঠানিকভাবে চূড়ান্ত করবেন। 

কিন্তু তারপরও নিজের পরাজয় মেনে নিতে পারছেন না ট্রাম্প। ভোটের ফল পাল্টানোর জন্য বিভিন্ন ছুঁতো খুঁজছেন তিনি। এরই মধ্যে জর্জিয়ার গভর্নরকে চাপ দিয়েছেন।

সর্বশেষ ট্রাম্পের উগ্র সমর্থকরা মিশিগান রাজ্যের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও প্রধান নির্বাচন কর্মকর্তা জোসেলিন বেনসন ও তার পরিবারকে হুমকি দিয়েছে।

এদিকে ট্রাম্পের ব্যক্তিগত আইনজীবী রুডি গিলিয়ানি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। ট্রাম্প টুইট করে নিজের আইনজীবীর করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবর দিয়েছেন।

প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ফল চ্যালেঞ্জ করার কাজে নেতৃত্ব দিচ্ছেন ৭৬ বছর বয়সী রুডি গিলিয়ানি। ট্রাম্পের নিকটস্থদের মধ্যে রুডিই সর্বশেষ ব্যক্তি যিনি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হলেন। টুইটে ট্রাম্প লিখেছেন, ‘সুস্থ হয়ে উঠুন রুডি, আমরা এগিয়ে যাব।’

 

বিডি প্রতিদিন/ ওয়াসিফ


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ৬ ডিসেম্বর, ২০২০ ০১:২৫
আপডেট : ৬ ডিসেম্বর, ২০২০ ০৬:৩১
প্রিন্ট করুন printer

বাইডেনের অভিষেক অনুষ্ঠানে ট্রাম্পকে আমন্ত্রণ

অনলাইন ডেস্ক

বাইডেনের অভিষেক অনুষ্ঠানে ট্রাম্পকে আমন্ত্রণ

যুক্তরাষ্ট্রের নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন তার অভিষেক অনুষ্ঠানে ডোনাল্ড ট্রাম্পকে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। বাইডেন জানান, আমি আশা করছি অভিষেক অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন ট্রাম্প। অভিষেক অনুষ্ঠানে ট্রাম্প উপস্থিত না থাকলে তার স্বৈরতান্ত্রিক মনোভাবের পরিচয় বেরিয়ে আসবে বলে মন্তব্য করেন বাইডেন। 

এদিকে, সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে ট্রাম্প ফের নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ করেছেন। ট্রাম্পের অভিযোগ, মার্কিন নির্বাচনে এত বড় কারচুপি, এর আগে কখনো হয়নি। নির্বাচনী কর্মকর্তাদের সমালোচনা করে ট্রাম্পের বক্তব্য, কারচুপি আটকানোর জন্য কোনো ব্যবস্থাই নেয়নি তারা। যদিও নিজের বক্তব্যের সপক্ষে এখনো পর্যন্ত কোনো প্রমাণ দিতে পারেননি ট্রাম্প। আদালতও ট্রাম্প এবং রিপাবলিকানদের অভিযোগ খারিজ করে দিয়েছে।

দেশটির সুপ্রিম কোর্টেরও সমালোচনা করেন ট্রাম্প। তার প্রশ্ন, কেনো সুপ্রিম কোর্ট নির্বাচনী পদ্ধতিতে হস্তক্ষেপ করবে না?
সুপ্রিম কোর্টে দেওয়ার মতো তার হাতে যথেষ্ট তথ্য প্রমাণ আছে বলে সাক্ষাৎকারে দাবি করেন ট্রাম্প। বলেছেন, আগামী ছয় মাসেও তার মন বদলাবে না (নিজের হার স্বীকার)। 

ট্রাম্পের সাক্ষাৎকারের পর বেশকিছু প্রশ্ন আলোচনায় উঠে এসেছে। যেভাবে তিনি আদালত ও সুপ্রিম কোর্টকে আক্রমণ করেছেন, তা আদৌ দেশের প্রেসিডেন্ট করতে পারেন কিনা, তা নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন বিশেষজ্ঞরা। তবে একই সঙ্গে রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের বক্তব্য, ট্রাম্প মুখে যাই বলুন, ক্ষমতা যে তিনি ছেড়ে দেবেন, তা মোটামুটি স্পষ্ট। 
তবে যুক্তরাষ্ট্রে ক্ষমতা হস্তান্তর বা প্রেসিডেন্টের অভিষেকের অনুষ্ঠান আগেও প্রত্যাখ্যান করেছেন প্রেসিডেন্টরা। এর আগে সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট জন অ্যাডামস, জন কুইন্সি অ্যাডামস এবং অ্যান্ড্র– জনসন উত্তরসূরির অভিষেক অনুষ্ঠানে অংশ নেননি।

বিডি প্রতিদিন/ মজুমদার 


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২ ডিসেম্বর, ২০২০ ১১:১০
প্রিন্ট করুন printer

ভোট জালিয়াতির কোনো প্রমাণ পায়নি মার্কিন বিচার বিভাগ

অনলাইন ডেস্ক

ভোট জালিয়াতির কোনো প্রমাণ পায়নি মার্কিন বিচার বিভাগ

গত ৩ নভেম্বর যুক্তরাষ্ট্রে অনুষ্ঠিত হয়েছে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। এই নির্বাচনে বর্তমান প্রেসিডেন্ট রিপাবলিকান পার্টির প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্পকে হারিয়ে জয় পেয়েছেন ডেমোক্র্যাটিক পার্টির প্রার্থী জো বাইডেন। তবে বাইডেনের এই জয় মেনে নিতে পারেননি যুক্তরাষ্ট্রের বর্তমান প্রেসিডেন্ট। যদিও ডোনাল্ড ট্রাম্পের দাবি অনুযায়ী নির্বাচনে ভোট জালিয়াতির কোনো প্রমাণ পায়নি মার্কিন বিচার বিভাগ। মঙ্গলবার এ মন্তব্য করেছেন অ্যাটর্নি জেনারেল উইলিয়াম বার।

তিনি বলেন, বিচার বিভাগ ও জাতীয় নিরাপত্তা বিভাগের তদন্তে, কারচুপির এমন কোনো তথ্য বা প্রমাণ মেলেনি যার ভিত্তিতে ভোটের ফল পাল্টে যেতে পারে। গত মাসে ভোটে অনিয়ম সংক্রান্ত যেকোনো যৌক্তিক অভিযোগ আমলে নিয়ে, তা খতিয়ে দেখার নির্দেশ দিয়েছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল।

পূর্ণাঙ্গ তদন্ত ছাড়াই বার এ ধরনের মন্তব্য করেছেন বলে প্রতিক্রিয়ায় জানিয়েছে ট্রাম্পের আইনজীবী রুডি গিলানি। বারের বক্তব্য ট্রাম্পের জন্য বড় ধাক্কা হিসেবে মনে করছেন বিশ্লেষকরা। তবে বারের এমন মন্তব্যের জন্য তাকে পদ থেকে সরিয়ে দিতে পারেন ট্রাম্প, এমন আশঙ্কা জানিয়েছে ডেমোক্র্যাট শিবির।


বিডি প্রতিদিন/ ওয়াসিফ


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ৩০ নভেম্বর, ২০২০ ১৮:২১
আপডেট : ৩০ নভেম্বর, ২০২০ ২১:০০
প্রিন্ট করুন printer

ভোটের পর প্রথম সাক্ষাৎকার

আগামী ছয় মাসেও হার স্বীকার করবেন না ট্রাম্প

অনলাইন ডেস্ক

আগামী ছয় মাসেও হার স্বীকার করবেন না ট্রাম্প
ফাইল ছবি

৩ নভেম্বরের নির্বাচনের পর দুই একবার তাকে জনসমক্ষে দেখা গেলেও সাংবাদিকদের সামনে বিশেষ মুখ খোলেননি তিনি, যা বলার টুইটে বলেছেন। তিনি যে হেরে গিয়েছেন, তা জানতে পারার পর একের পর এক টুইটে এক পা এক পা করে তিনি পিছিয়েছেন। নির্বাচনে কারচুপি হয়েছে বললেও ক্ষমতা হস্তান্তরের রাস্তা খুলে দিয়েছেন। রবিবার প্রথম ফক্স চ্যানেলকে একান্ত সাক্ষাৎকার দেন ডনাল্ড ট্রাম্প। সেখানে ফের নির্বাচনে ঐতিহাসিক কারচুপির অভিযোগ এনে আদালত থেকে নির্বাচনী কর্মকর্তা, সকলকেই এক হাত নিয়েছেন তিনি।

ট্রাম্পের অভিযোগ, মার্কিন নির্বাচনে এত বড় কারচুপি, এর আগে কখনো হয়নি। নির্বাচনী কর্মকর্তাদের সমালোচনা করে ট্রাম্পের বক্তব্য, কারচুপি আটকানোর জন্য কোনো ব্যবস্থাই নেয়নি তারা। যদিও নিজের বক্তব্যের সপক্ষে এখনও পর্যন্ত কোনো প্রমাণ দিতে পারেননি ট্রাম্প। আদালতও ট্রাম্প এবং রিপাবলিকানদের বহু অভিযোগ খারিজ করে দিয়েছে।

এ দিন সুপ্রিম কোর্টেরও সমালোচনা করেন ট্রাম্প। তার প্রশ্ন, কেন সুপ্রিম কোর্ট নির্বাচনী পদ্ধতিতে হস্তক্ষেপ করবে না?

সুপ্রিম কোর্টে দেওয়ার মতো তার হাতে যথেষ্ট তথ্য প্রমাণ আছে বলে এ দিনের সাক্ষাৎকারে দাবি করেন ডনাল্ড ট্রাম্প। বলেছেন, আগামী ছয় মাসেও তার মন বদলাবে না (নিজের হার স্বীকার)। 

ট্রাম্পের এ দিনের সাক্ষাৎকারের পর বেশকিছু প্রশ্ন আলোচনায় উঠে এসেছে। যেভাবে তিনি আদালত ও সুপ্রিম কোর্টকে আক্রমণ করেছেন, তা আদৌ দেশের প্রেসিডেন্ট করতে পারেন কি না, তা নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন বিশেষজ্ঞরা। তবে একই সঙ্গে রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের বক্তব্য, ট্রাম্প মুখে যাই বলুন, ক্ষমতা যে তিনি ছেড়ে দেবেন, তা মোটামুটি স্পষ্ট।

সূত্র: ডয়চে ভেলে, রয়টার্স, ফক্স নিউজ 

বিডি প্রতিদিন/জুনাইদ আহমেদ
 
 


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৮ নভেম্বর, ২০২০ ১০:০৯
আপডেট : ২৮ নভেম্বর, ২০২০ ১২:১৬
প্রিন্ট করুন printer

এবার ট্রাম্প বললেন, বাইডেন হোয়াইট হাউজে ঢুকতে পারবেন, যদি...

অনলাইন ডেস্ক

এবার ট্রাম্প বললেন, বাইডেন হোয়াইট হাউজে ঢুকতে পারবেন, যদি...
ফাইল ছবি

নির্বাচনের আগে নানা বিতর্কিত মন্তব্য করে সমালোচনার পাত্র হয়েছেন ট্রাম্প। ভোটের পরও একের পর এক মন্তব্য করে শিরোনামে উঠে আসছেন তিনি। 

এবার ডোনাল্ড ট্রাম্প বললেন, ‘বাইডেন কেবল তখনই হোয়াইট হাউজে প্রেসিডেন্ট হিসেবে প্রবেশ করতে পারেন, যদি তিনি প্রমাণ করতে পারেন যে, তিনি ৮ কোটি ভোট পেয়েছেন জালিয়াতি বা কারচুপি ছাড়াই।’ 

শুক্রবার এক টুইটে এসব কথা বলেন ট্রাম্প। জো বাইডেনের ৮ কোটি ভোট পাওয়াকে ট্রাম্প হাস্যকর বলেও উল্লেখ করেছেন।

এর আগের দিন ট্রাম্প ঘোষণা দেন, ইলেকটরাল কলেজ যদি জো বাইডেনকে নির্বাচিত করে, তাহলে তিনি হার স্বীকার করে নেবেন। ট্রাম্প বলেন, “যতদিন না সেটা হচ্ছে, আইনি লড়াই তিনি ছাড়বেন না।”

পেনসিলভানিয়ার মামলায়ও হারলেন ট্রাম্প

পেনসিলভানিয়ার মামলায়ও হারলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। শুক্রবার (২৭ নভেম্বর) সেখানের ফেডারেল আপিল আদালত মামলাটি খারিজ করে দেন। রায়ে বিচারক স্টিফেনোস বিবাস বলেছেন, এ মামলায় সুনির্দিষ্ট কোনো অভিযোগ এবং প্রমাণ নেই। 

মামলা খারিজ হয়ে যাওয়ার পর ট্রাম্পের আইনজীবীরা জানিয়েছেন, তারা এ নিয়ে আপিল আদালতে যাবেন।  

ট্রাম্পের আইনজীবী দলের অন্যতম জেনা এলিস এক টুইটবার্তায় বলেন, পেনসিলভানিয়া অঙ্গরাজ্যের বিচার বিভাগ রাজনৈতিক কারণে রাজ্যের ব্যাপক ভোট জালিয়াতি আড়াল করার প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। সুপ্রিম কোর্টে গিয়ে এখন বিষয়টি প্রমাণের জন্য তারা সুযোগ পাবেন বলে এমন রায়কে ধন্যবাদ জানান জেনা এলিস। 

পেনসিলভানিয়া অঙ্গরাজ্যের ভোটের ফলাফল বাতিল চেয়ে আদালতে মামলা করেছিলেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের আইনজীবী রুডি জুলিয়ানি। পেনসিলভানিয়া ফেডারেল আদালত ভোটের ফলাফল প্রত্যয়ন করার ওপর আস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা জারি করে ২৭ নভেম্বর মামলার শুনানি ঠিক করেছিলেন। অবশ্য এর আগেই রাজ্যের ভোটের ফলাফল প্রত্যয়ন হয়ে যায়।

গত ৩ নভেম্বর আমেরিকায় অনুষ্ঠিত হয় প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। এতে ডেমোক্র্যাটিক পার্টির প্রার্থী জো বাইডেন পেয়েছেন ৩০৬ ইলেকটোরাল কলেজ ভোট। আর ট্রাম্প পেয়েছেন ২৩২টি।

জিততে হলে প্রয়োজন হয় ২৭০ ইলেকটোরাল কলেজ ভোটের। সেখান থেকে ট্রাম্প এখনও বহুদূর।

বিডি প্রতিদিন/জুনাইদ আহমেদ

 


 


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর