Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : শনিবার, ৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২৩:০৪
বায়তুল মোকাররমের খুতবা
ফাজায়েল ও মাসায়েলে কোরবানি
মুফতি মুহিউদ্দিন কাসেম, পেশ ইমাম, বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদ।

কোরবানি অতি গুরুত্বপূর্ণ এবং ফজিলতপূর্ণ একটি ইবাদত। হাদিস শরিফে এ ইবাদতের প্রতি উদ্বুদ্ধ করা হয়েছে। হাদিস শরিফে বর্ণিত হয়েছে, ‘রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম হজরত ফাতেমা (রা.)-কে তার কোরবানির কাছে উপস্থিত থাকতে বলেছেন এবং ইরশাদ করেছেন, এই কোরবানির প্রথম রক্তবিন্দু প্রবাহিত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আল্লাহতায়ালা তোমার গুনাহসমূহ ক্ষমা করে দেবেন। তিনি জিজ্ঞেস করলেন, ইয়া রসুলুল্লাহ, এটা কি শুধু আহলে বাইতের জন্য নাকি সব মুসলিমের জন্য? তিনি উত্তরে ইরশাদ করেন, এই ফজিলত সব মুসলিমের জন্য।’ (মুসনাদে বাযযার, আত্তারগীব ওয়াত্তারহীব ২/১৫৪)

অপরদিকে যারা সামর্থ্য থাকা সত্ত্বেও এই ইবাদতটি পালন করে না তাদের ব্যাপারে কঠিন ভাষায় ইরশাদ হয়েছে, ‘যে ব্যক্তির কোরবানির সামর্থ্য রয়েছে, কিন্তু সে কোরবানি করে না সে যেন আমাদের ঈদগাহে না আসে।’ (মুস্তাদরাকে হাকেম, আত্তারহীব ২/১৫৫)

তবে এ ক্ষেত্রে স্মরণ রাখতে হবে, ইবাদতের মূলকথা হলো আল্লাহতায়ালার আনুগত্য এবং তার সন্তুষ্টি অর্জনের প্রেরণা। তাই যে কোনো ইবাদতের পূর্ণতার জন্য দুটি বিষয় জরুরি ইখলাস তথা একমাত্র আল্লাহর সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে আদায় করা এবং শরিয়তের নির্দেশনা মোতাবেক মাসআলা-মাসায়েল অনুযায়ী তা সম্পাদন করা। তাই নিম্নে কোরবানির জরুরি কিছু মাসায়েল উল্লেখ করা হলো। মহান রাব্বুল আলামিন আমাদের একমাত্র তার সন্তুষ্টি অর্জনের আশায় মাসায়েল অনুযায়ী এ গুরুত্বপূর্ণ ইবাদতটি আদায় করার তাওফিক দান করুন।

কোরবানির প্রয়োজনীয় মাসআলাসমূহ

১০ জিলহজ ফজর থেকে ১২ জিলহজ সূর্যাস্ত পর্যন্ত যে প্রাপ্তবয়স্ক সুস্থ মস্তিষ্কসম্পন্ন নর-নারীর কাছে প্রয়োজনের অতিরিক্ত সাড়ে ৫২ তোলা রুপার মূল্যপরিমাণ সম্পদ থাকবে তার কোরবানি করা ওয়াজিব। টাকা-পয়সা, সোনা-রুপার অলঙ্কার, ব্যবসায়িক পণ্য, প্রয়োজনের অতিরিক্ত জমি বা অপ্রয়োজনীয় আসবাবপত্র এসব কিছুর মূল্য কোরবানির নেসাবের ক্ষেত্রে হিসাবযোগ্য। (ইবনে মাজা ২২৬ : বাদায়ে ৪/১৯৬; শামী ৬/৩১২; আলমগীরী ৫/২৯২)

কোরবানির নেসার পুরো বছর থাকা জরুরি নয়; বরং কোরবানির দিনগুলোয় থাকলেই তা ওয়াজিব হবে। (বাদায়েউস সানায়ে ৪/১৯৬; রদ্দুল মুহতাব ৬/৩১২)

মোট তিন দিন কোরবানি করা যায়। জিলহজের ১০, ১১ ও ১২ তারিখ সূর্যাস্ত পর্যন্ত। তবে সম্ভব হলে জিলহজের ১০ তারিখেই কোরবানি করা উত্তম। (মুআত্তা মালেক ১৮৮; বাদায়েউস সানায়ে ৪/১৯৮;  ২৩; আলমগীরী ৫/২৯৫)

কেউ যদি কোরবানির দিনগুলোয় ওয়াজিব কোরবানি দিতে না পারে তাহলে পরে তার ওপর কোরবানির উপযুক্ত একটি বাগের মূল্য সদকা করা ওয়াজিব। (বাদায়েউস সানায়ে ৪/২০৩; কাযিখান ৩/৩৪৫)

কোরবানির পশুর বসয়সীমা— উট কমপক্ষে ৫ বছরের হতে হবে। গরু ও মহিষ কমপক্ষে ২ বছরের হতে হবে। আর ছাগল, ভেড়া ও দুম্বা কমপক্ষে ১ বছরের হতে হবে। তবে ভেড়া ও দুম্বা ১ বছরের কিছু কমও হয় কিন্তু এমন হৃষ্টপুষ্ট হয় যে, তা দেখতে ১ বছরের মতো মনে হয় তাহলে তা দ্বারাও কোরবানি জায়েজ। অবশ্য এক্ষেত্রে কমপক্ষে ৬ মাস বয়সের হতে হবে। উল্লেখ্য, ছাগলের বয়স ১ বছরের কম হলে কোনো অবস্থাতেই তা দ্বারা কোরবানি জায়েজ হবে না। (কাযিখান ৩/৩৪৮; বাদায়েউস সানায়ে ৪/২০৫-২-৬)।

একটি ছাগল, ভেড়া বা দুম্বা দ্বারা শুধু একজনই কোরবানি দিতে পারবে। একাধিক ব্যক্তি মিলে কোরবানি করলে কারোরটা সহিহ হবে না। আর উট, গরু, মহিষ এ সর্বোচ্চ সাতজন শরিক হতে পারবে। সাতের অধিক শরিক হলে কারো কোরবানি সহিহ হবে না। (সহিহ মুসলিম ১৩১৮; মুআত্তা মালেক ১/৩১৯; কাজীখান ৩/৩৪৯; বাদায়েউস সানায়ে ৪/২০৭-২০৮)। সাতজনে মিলে কোরবানি করলে সবার অংশ সমান হতে হবে। কারও অংশ এক সপ্তমাংশের কম হতে পারবে না। যেমন— কারও আধাভাগ, কারো দেড়ভাগ। এক্ষেত্রে কোনো শরিকের কোরবানিই সহিহ হবে না। (বাদায়েউস সানায়ে ৪/২০৭)। উট, গরু, মহিষ সাতভাগে এবং সাতের কমে যে কোনো সংখ্যা যেমন— দুই, তিন, চার, পাঁচ ও ছয় ভাগে কোরবানি করা জায়েজ। (সহিহ মুসলিম ১৩১৮; বাদায়েউস সানায়ে ৪/২০৭)

যদি কেউ আল্লাহতায়ালার হুকুম পালনের উদ্দেশ্যে কোরবানি না করে শুধু গোশত খাওয়ার নিয়তে কোরবানি করে বা লোক দেখানোর নিয়তে কোরবানি করে তাহলে কারও কোরবানি হবে না। তাই অত্যন্ত সতর্কতার সঙ্গে শরিক নির্বাচন করতে হবে। (বাদায়েউস সানায়ে ৪/২০৮-২০৯; কাযিখান ৩/৩৪৯)। কোরবানির পশু হৃষ্টপুষ্ট হওয়া উত্তম। (মুসনাদে আহমদ ৬/১৩৬; আলমগীরী ৫/৩০০)। যে পশু তিন পায়ে চলে, এক পা মাটিতে রাখতে পারে না। এমন পশুর কোরবানি জায়েজ নেই। (জামে তিরমিজি ১/২৭৫; সুনানে আবু দাউদ ৩৮৭)। এমন শুকনো, দুর্বল পশু যা জবাইয়ের স্থান পর্যন্ত হেঁটে যেতে পারে না তা দ্বারা কোরবানি করা জায়েজ নেই। (জামে তিরমিজি ১/২৭৫; আলমগীরী ৫/২৯৭; বাদায়েউস সানায়ে ৪/২১৪)।

যে পশুর একটি দাঁতও নেই বা এত বেশি দাঁত পড়ে গেছে যে, ঘাস বা খাদ্য চিবাতে পারে না এমন পশু দ্বারাও কোরবানি করা জায়েজ নেই। (বাদায়েউস সানায়ে ৪/২১৫; আলমগীরী ৫/২৯৮)।

কোরবানিদাতার নিজে পশু জবাই করা উত্তম। নিজে না পারলে অন্যকে দিয়েও জবাই করাতে পারবে। এক্ষেত্রে কোরবানিদাতা পুরুষ হলে জবাইস্থলে তার উপস্থিত থাকা ভালো। (মুসনাদে আহমদ ২২৬৫৭; বাদায়েউস সানায়ে ৪/২২২-২২৩)।

অনেক সময় জবাইকারীর জবাই সম্পন্ন হয় না, তখন কসাই বা অন্য কেউ জবাই সম্পন্ন করে থাকে। এক্ষেত্রে অবশ্যই উভয়কেই বিসমিল্লাহি আল্লাহ আকবার পড়তে হবে।  যদি দ্বিতীয় ব্যক্তি না পড়ে তবে ওই কোরবানি সহীহ হবে না এবং জবাইকৃত পশুও হালাল হবে না। (রদ্দুল মুহতাব ৬/৩৩৪)।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow