Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : সোমবার, ৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২৩:৩২
শিক্ষকের কথা
শিক্ষার মান বাড়াতে শিক্ষকের মানোন্নয়ন প্রয়োজন
শিক্ষার মান বাড়াতে শিক্ষকের মানোন্নয়ন প্রয়োজন

বাংলার সুপ্রাচীন জনপদ পুন্ড্রনগরকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠেছে বগুড়া জেলা। ঐতিহ্যবাহী এ জেলা শহরের প্রাণকেন্দ্র ১৯৬৩ সালের ৩১ জুলাই প্রতিষ্ঠিত হয় সরকারি মুজিবুর রহমান মহিলা কলেজ। বগুড়ার তৎকালীন খ্যাতনামা শিল্পপতি ও শিক্ষানুরাগী মরহুম মুজিবুর রহমান ভাণ্ডারী ছিলেন এ কলেজের প্রতিষ্ঠাতাদের মধ্যে অন্যতম। তার নামানুসারেই কলেজটির নামকরণ হয়। প্রতিষ্ঠানটির অধ্যক্ষের দায়িত্বে আছেন হোসেন সহিদ মাহবুবর রহমান। শিক্ষার মানোন্নয়নে করণীয় কী, শিক্ষকরা এক্ষেত্রে কী ভূমিকা রাখতে পারেনসহ বিভিন্ন  বিষয়ে কথা বলেছেন তিনি। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক, বগুড়া— আবদুর রহমান টুলু।

 

প্রশ্ন : জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রথমবারের মতো দেশের সব কলেজের র্যাংকিংস প্রকাশ করেছে। বিষয়টিকে আপনি কীভাবে দেখেন?

অধ্যক্ষ : এটি অত্যন্ত যুগোপযোগী সিদ্ধান্ত। এটি প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে প্রতিযোগিতামূলক মনোভাবের সৃষ্টি করবে। সবচেয়ে বেশি উপকৃত হবে শিক্ষার্থীরা। ভালো ফল তৈরিতে কলেজগুলো প্রতিযোগিতায় নামবে এবং এতে অবশ্যই শিক্ষার মান ও গুণ বৃদ্ধি পাবে। এ উদ্যোগকে অভিনন্দন।

প্রশ্ন : কলেজ র‌্যাকিংয়ে বিভাগীয় পর্যায়ে আপনার প্রতিষ্ঠান সেরা দশটির একটি। আপনার প্রতিষ্ঠানের এ সফলতার পেছনের কারণ কী?

উত্তর : শিক্ষকরা শ্রেণিকক্ষে যথাযথভাবে শিক্ষাদান পরিচালনা করেছেন। এক্ষেত্রে শিক্ষাদানে অংশগ্রহণমূলক পদ্ধতি বেশ কার্যকর ভূমিকা রেখেছে। কলেজ প্রশাসন এক্ষেত্রে লজিস্টিক সাপোর্ট নিশ্চিত করেছেন। শিক্ষার্থীর অগ্রগতি পর্যালোচনার জন্য শিক্ষকদের সমন্বয়ে টিম গঠন করেছেন। অভিভাবক সমাবেশ আয়োজনের মাধ্যমে অভিভাবকদের শিক্ষার্থীর সর্বশেষ অবস্থা সম্পর্কে তথ্য সরবরাহ করেছেন। এছাড়া শিক্ষার্থীরা যেন ভালো শিক্ষা পায় সেজন্য নিয়মিত ভিজিলেন্স চলে। শিক্ষার্থীদের সঙ্গে অনেক সময় শিক্ষক ক্লাসে পারস্পরিক শিক্ষার আদান-প্রদান করে। তখন অন্য শিক্ষকরা প্রায়ই উপস্থিত দুর্বল দিকগুলো শনাক্ত করে পরে নিজেদের মধ্যে আলোচনা করে তাদের অধিকতর ভালো করার প্রচেষ্টা চলে।

প্রশ্ন : দেশের শিক্ষার গুণগত মান নিয়ে প্রশ্ন আছে। মান বাড়াতে হলে সংশ্লিষ্ট সবার করণীয় কী বলে আপনি মনে করেন?

উত্তর : শিক্ষাসংশ্লিষ্ট প্রত্যেককে স্ব স্ব ক্ষেত্রে যথাযথ ও সচেতনভাবে দায়িত্ব পালন করতে হবে। শ্রেণিকক্ষে শিক্ষার্থী অনুপাত কমিয়ে এনে আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন শিক্ষা নিশ্চিত করার পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।

আন্তর্জাতিক মানের শিক্ষা দিতে হবে। উপযুক্ত শিক্ষক দ্বারা শিক্ষা দিতে হবে। মানসম্পন্ন সিলেবাস তৈরি করতে হবে। নকল প্রবণতা প্রতিরোধ করতে হবে। যে শিক্ষার মধ্যে চরিত্র-গঠন-মানবিক মূল্যবোধ, প্রতিযোগিতামূলক মেজাজ এবং বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলার শিক্ষা দিতে হবে। শিক্ষকদের পর্যাপ্ত ট্রেনিংয়ের ব্যবস্থা করতে হবে। উপযুক্ত শিক্ষকদের উপযুক্ত বেতন দিতে হবে।

প্রশ্ন : শিক্ষকদের মান নিয়েও প্রশ্ন আছে। এ থেকে উত্তরণে করণীয় কী?

উত্তর : শিক্ষকরা সমাজের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি ও জাতির বিবেক। এ বিবেক তৈরি করবে উন্নত জাতি। সেই জাতি তৈরি করবে আগামী প্রজন্মের স্বপ্নের দেশ। শিক্ষার মান উন্নত করতে হলে শিক্ষকের মানোন্নয়ন প্রয়োজন। সুন্দর সমাজ বিনির্মাণে উন্নত মানের আদর্শ শিক্ষকের প্রয়োজন। তাই মানসম্মত শিক্ষক নিয়োগ ও শিক্ষকসমাজ গঠনে করণীয় হলো যোগ্য শিক্ষককে নিয়োগপত্র প্রদান করা, Professionally Commited ব্যক্তিকে নিয়োগদান, শিক্ষকদের পর্যাপ্ত ট্রেনিংয়ের ব্যবস্থা করা, কারণ শিক্ষকরা জন্মে না, তৈরি হন এবং তাদের নৈতিক মর্যাদা বৃদ্ধি করা এবং ধর্মীয় জ্ঞান থাকা।

প্রশ্ন : সহশিক্ষা কার্যক্রম শিক্ষার মান উন্নয়ন ও শিক্ষার্থীদের  মানবিক মূল্যবোধের বিকাশের ক্ষেত্রে কীভাবে ভূমিকা রাখে?

অধ্যক্ষ : শিক্ষার অন্যতম উদ্দেশ্য শিক্ষার্থীর আচরণের কাঙ্ক্ষিত পরিবর্তন আনয়ন। সহশিক্ষা কার্যক্রম এ আচরণিক পরিবর্তনের ক্ষেত্রে কার্যকর ভূমিকা রাখে। আবৃত্তি, নাটক, সংগীত অনুষ্ঠান শিক্ষা শিক্ষার্থীর আন্তসম্পর্ক উন্নয়নের মাধ্যমে শিক্ষার আন্তরিক ও আনন্দময় পরিবেশ তৈরি করে। ফলে শিক্ষার্থীর মানসগঠনে পরিবর্তন আসে। সহশিক্ষা শিক্ষার্থীদের মাঝে পারস্পরিক সম্প্রীতির সৃষ্টি করে। একে অপরের মধ্যে সহযোগিতার মনোভাব তৈরি হয়। জানবার বুঝবার মানসিকতা সৃষ্টি হয়। পড়ালেখার অবদান প্রদানের মাধ্যমে মানবিক বন্ধন সৃষ্টি হয়, বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে, স্বাধীনভাবে বেড়ে ওঠার ফলে সাহস বাড়ে, নিবিড় বন্ধন অবিশ্বাস ঝেড়ে মানবিক বিকাশে সহায়ক হয়। সহশিক্ষা কার্যক্রম শিক্ষার্থীদের জ্ঞানে, গুণে, যোগ্যতাসম্পন্ন করে গড়ে তোলে।

প্রশ্ন : শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে আপনার উপদেশ কী?

উত্তর : কেবল পাঠ্যবইকেন্দ্রিক শিক্ষা নয়, ব্যক্তিত্বের বিকাশ ও জ্ঞানার্জন শিক্ষার অন্যতম লক্ষ্য এ মনোভাব পোষণ কর। অর্পিত বিদ্যার চেয়ে অর্জিত বিদ্যার প্রতি অধিকতর মনোযোগী হও।

শিক্ষার উদ্দেশ্য শিক্ষার্থীর আচরণে ইতিবাচক পরিবর্তন ঘটানো। 

প্রশ্ন : শিক্ষার মান বাড়ানোর ক্ষেত্রে শিক্ষকেরা কি ভূমিকা রাখতে পারে বলে আপনি মনে করেন?

উত্তর : শিক্ষার্থীদের নিয়মিত শ্রেণিকক্ষে উপস্থিতি ও পাঠ্যাভ্যাস গড়তে আগ্রহী করে তুলতে পারে শিক্ষকরা। অর্জিত আধুনিক জ্ঞান ও ধ্যান-ধারণা শিক্ষার্থীদের মাঝে ছড়িয়ে দিতে পারে। কোচিংকেন্দ্রিক শিক্ষা থেকে ছাত্র-ছাত্রীদের শ্রেণিকক্ষকেন্দ্রিক শিক্ষার প্রতি মোটিভেট করতে পারে তারা।  শিক্ষার মান বাড়ানোর জন্য শিক্ষক এবং সরকারের উভয়ের ভূমিকাই মুখ্য। যত্রতত্র শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান তৈরি না করে মানসম্পন্ন প্রতিষ্ঠান তৈরির মধ্য দিয়ে শিক্ষার গুণগত মান বাড়বে। অর্থাৎ শিক্ষার মানের উন্নয়নের জন্য চাই better শিক্ষক, উপযুক্ত শিক্ষক মেধাসম্পন্ন শিক্ষক, Dedicated শিক্ষক, পরিশ্রমী, অধ্যবসায়ী শিক্ষক সর্বোপরি দরকার প্রতিষ্ঠানে সুন্দর মনোরম পরিবেশ। সবকিছু ঊর্ধ্বে দরকার ছাত্র-শিক্ষক নিবিড় সম্পর্ক।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow