Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : রবিবার, ২ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:৩১
অষ্টম শ্রেণির বাংলা প্রথম
মো. জিল্লুর রহমান
সিনিয়র শিক্ষিক
অষ্টম শ্রেণির বাংলা প্রথম
bd-pratidin

সৃজনশীল প্রশ্ন :

 

গদ্য : তৈলচিত্রের ভূত—মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়

উদ্দীপকটি পড়ে নিচের প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও :

মুহিত দশম শ্রেণির বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র। সে ঢাকায় মা-বাবার সঙ্গে থাকে। গ্রাম থেকে বেড়াতে আসেন ওর বাবার এক বৃদ্ধ চাচা। মুহিত সন্ধ্যার পর দাদার সঙ্গে কথা বলছিল। ওদের কথা দেয়ালে বাধা পেয়ে ফিরে আসছিল। এমন সময় বিদ্যুৎ চলে গেলে মুহিতের দাদা ভাবেন ভূত তাদের ব্যঙ্গ করছে। ওর দাদা ভয় পেয়ে নিজের ও মুহিতের বুকে দোয়া পড়ে ফুঁ দেন। মুহিত তখন দাদাকে বুঝিয়ে বলে, ‘আমাদের কথা দূরের দেয়ালে বাধা পেয়ে ফেরত আসছে। একে বলে শব্দের প্রতিধ্বনি।’

ক. মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়ের মৃত্যু কত সালে?

উত্তর : মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়ের মৃত্যু সাল ১৯৫৬ সালে।

খ. ‘লাইব্রেরি সম্পর্কে নগেনের মামার বিশেষ কোনো মাথাব্যথা ছিল না’—এ কথা কেন বলা হয়েছে? ব্যাখ্যা কর।

উত্তর : লাইব্রেরির দুরবস্থা দেখে উপর্যুক্ত মন্তব্যটি করা হয়েছে।

মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়ের ‘তৈলচিত্রের ভূত’ গল্পের লাইব্রেরিটি ছিল নগেনের দাদা মশায়ের আমলের। নগেনের মামার আমলে বিগত ৩০ বছরের মধ্যে লাইব্রেরির পেছনে কোনো পয়সা খরচ করা হয়নি। লাইব্রেরি কক্ষের আলমারি কয়েকটি অল্প দামের আর অনেক দিনের পুরনো। তার ভেতরেও ছিল বেদরকারি বাজে বইয়ে ভর্তি। আলমারির ওপরেও বহুকালের ছেঁড়া মাসিকপত্র আর নানা রকম ভাঙাচোরা ঘরোয়া জিনিস গাদা করা ছিল। টেবিল আর চেয়ার কয়েকটি ব্যবহারের অযোগ্য হয়ে লাইব্রেরিতে স্থান পেয়েছে। দেয়ালে তিনটি বড় তৈলচিত্র ছাড়া সস্তা ফ্রেমে বাঁধানো কয়েকটি সাধারণ রঙিন ছবি এবং ফটো ছাড়া পুরনো ক্যালেন্ডার ঝোলানো ছিল। লাইব্রেরির এরূপ অযত্নের কারণে বোঝা যায় ওটি নিয়ে নগেনের মামার কোনো মাথাব্যথা ছিল না।

গ. উদ্দীপকের মুহিতের দাদা ও ‘তৈলচিত্রের ভূত’ গল্পের নগেনকে কোন বিবেচনায় একই মানসিকতার অধিকারী বলা যায়? ব্যাখ্যা কর।

উত্তর : উদ্দীপকের মুহিতের দাদা ও ‘তৈলচিত্রের ভূত’ গল্পের নগেনকে তাদের মধ্যে বিরাজমান কুসংস্কারের ভিত্তিতে একই মানসিকতার অধিকারী বলা যায়। ‘তৈলচিত্রের ভূত’ গল্পের নগেন অনুতপ্ত হয়ে তার মামার ছবিতে প্রণাম করতে গিয়ে তড়িতাহত হয়। পর পর কয়েক রাত তড়িতাহত হলে কুসংস্কারাচ্ছন্ন নগেনের বিশ্বাস হয় যে সে তার মামাকে বেঁচে

থাকতে যে সত্যিকারের ভক্তি-শ্রদ্ধা করেনি, মৃত্যুর পর মামার আত্মা তা বুঝতে পেরে তার ছবি ছোঁয়ামাত্র রাগে ঘেন্নায় তাকে ধাক্কা দিয়ে সরিয়ে দিয়েছেন। সন্দেহ নিরসনের জন্য নগেন দেখেছে, দিনে বা রাতে আলো জ্বেলে ছবি স্পর্শ করলে কিছু হয় না; কিন্তু অন্ধকারে ছোঁয়ামাত্র তার মামা তাকে ঠেলে দেন। তখন তার সমস্ত শরীর যেন ঝনঝনিয়ে ঝাঁকুনি দিয়ে ওঠে। কোনো দিন সে অজ্ঞান হয়ে যায়, কোনো দিন জ্ঞান থাকে। ফলে দিন দিন ভয়ে, দুর্ভাবনায় তার তেল চকচকে চামড়া শুকিয়ে যায়, মুখের হাসি মুছে যায়, চাউনি উভ্রান্ত ও কথা বলার ভঙ্গি পর্যন্ত কেমন যেন খাপছাড়া হয়ে যায়।

উদ্দীপকের মুহিতের দাদাও কুসংস্কারাচ্ছন্ন। তাই অন্ধকারে দাদা-নাতির কথাগুলো যখন দেয়ালে প্রতিধ্বনিত হয়ে ফিরে আসছিল, তখন তিনি ভূতের ভয়ে কাবু হয়ে যান আর দোয়া পড়ে দুজনের বুকেই ফুঁ দেন। এদিক থেকে মুহিতের দাদাকে ‘তৈলচিত্রের ভূত’ গল্পের নগেনের মানসিকতার অধিকারী বলা যায়।

ঘ. বৈজ্ঞানিক জ্ঞান উদ্দীপকের মুহিত এবং ‘তৈলচিত্রের ভূত’ গল্পের পরাশর ডাক্তারকে অন্যদের থেকে ভিন্ন করেছে।—মন্তব্যটির যথার্থতা মূল্যায়ন কর।

উত্তর : উদ্দীপকের মুহিত ও ‘তৈলচিত্রের ভূত’ গল্পের পরাশর ডাক্তার তাদের যুক্তি দিয়ে প্রমাণ করেছে যে ‘ভূত বলে কিছু নেই’—এদিক থেকে তারা উভয়ে অন্যদের থেকে অবশ্যই ভিন্ন।

‘তৈলচিত্রের ভূত’ গল্পের পরাশর ডাক্তার নগেনের মুখে মামার তৈলচিত্রের প্রেতাত্মা তাকে ধাক্কা মেরে ফেলে দিয়েছে শুনে কথাটি বিশ্বাস করেননি। কিন্তু  মৃত ব্যক্তির আত্মা ভূতে পরিণত হয় এ রকম বিশ্বাস সমাজে প্রচলিত থাকায় নগেন বৈদ্যুতিক শককে ভূতের কাজ বলে সহজে বিশ্বাস করেছে। ঘটনাটির বিজ্ঞানসম্মত বিশ্লেষণ করতে তাই মাঝ রাতে পরাশর ডাক্তার নগেনের সঙ্গে লাইব্রেরি কক্ষে প্রবেশ করেন। নগেনের মামার তৈলচিত্রের ফ্রেম স্পর্শ করামাত্র পরাশর ডাক্তারের শরীরটা বৈদ্যুতিক আঘাতে ঝনঝন করে ওঠে। অস্ফুট গোঙানির আওয়াজ করে পেছন দিকে দুই পা ছিটকে গিয়ে তিনি মেঝেতে বসে পড়েন। পরাশর ডাক্তার সব কিছু যুক্তি দিয়ে বিচার করেন বলে তাঁর কাছে বৈদ্যুতিক শকের বিষয়টি সহজেই ধরা পড়ে। তিনি নগেনকেও বুঝিয়ে বলেন যে দিনের বেলা মেইন সুইচ অফ করা থাকে, তাই ছবির রুপার ফ্রেমটা ছুঁলে কিছু হয় না। কিন্তু মাঝ রাতে বাড়ির সব আলো নিভে যায়, তখন ছবিটা ছুঁলে বৈদ্যুতিক শক খেতে হয়। এভাবে পরাশর ডাক্তার নগেন চরিত্রের মধ্যে ভূত-বিশ্বাসের স্বরূপ ব্যাখ্যা করেছেন।

উদ্দীপকের মুহিতও তার দাদার অহেতুক ভয় পাওয়াকে ব্যাখ্যা করে বুঝিয়েছে যে তাদের কথাই দেয়ালে প্রতিধ্বনিত হয়ে ফিরে আসছে।

উপর্যুক্ত বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে তাই বলা যায়, উদ্দীপকের মুহিত ও পরাশর ডাক্তার উভয়েই যুক্তি দিয়ে প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছেন যে ভূত বলে কিছু নেই।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow