Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ১৮ নভেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, শনিবার, ১৮ নভেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : শনিবার, ১১ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ১০ মার্চ, ২০১৭ ২৩:২৪
বঙ্গবন্ধু আবেগে গা ভাসাননি, কৌশলে এগিয়েছেন
অ্যাডভোকেট আহমেদ আলী
বঙ্গবন্ধু আবেগে গা ভাসাননি, কৌশলে এগিয়েছেন

হাজার মাইল দূরত্বে অবস্থিত দুটি অঞ্চল নিয়ে গঠিত হয়েছিল উদ্ভট রাষ্ট্র পাকিস্তান।

এখানে জনসংখ্যা পূর্ববাংলা প্রদেশে ছিল শতকরা ৫৬ শতাংশ এবং পশ্চিম অংশে পাঁচটি প্রদেশে মিলিতভাবে ছিল শতকরা ৪৪ শতাংশ।

কিন্তু পাকিস্তানের প্রথম বাজেটে উন্নয়ন খাতে ২৮ হাজার টাকার বরাদ্দ ছিল। প্রতিটি প্রদেশের জন্য ৫ হাজার টাকা এবং রাজধানী করাচির জন্য ৩ হাজার টাকা। এতে ৪৪ শতাংশ লোকসংখ্যার অঞ্চল পশ্চিম অংশ পেল ২৩ হাজার টাকা আর ৫৬ শতাংশ লোকসংখ্যার অঞ্চল পেল মাত্র ৫ হাজার টাকা। আর এটাই হলো বঞ্চনার প্রথম নমুনা। অন্যদিকে জাতীয় পরিষদে জনপ্রতিনিধিত্ব ছিল পাঁচটি প্রদেশের হারে, জনসংখ্যা হারে নয়। ফলে গণতন্ত্র ছিল অস্বীকৃত। হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর প্রাদেশিক প্রথা বাতিল করে দুই ইউনিট প্রথা চালু করেন। এতে পাকিস্তান পরিণত হয় একটি দুই ইউনিট রাষ্ট্রে। এখানে জাতীয় পরিষদে আসন সংখ্যা নির্ধারিত হয় সমতার ভিত্তিতে। এতে ৩০০ আসনবিশিষ্ট জাতীয় পরিষদে পূর্বাঞ্চল ১৫০ জন এবং পশ্চিমাঞ্চল ১৫০ জন জনপ্রতিনিধি প্রাপ্ত হয়। এখানেও গণতন্ত্রের স্বীকৃতি নেই। সেনাপতি ইয়াহিয়া খান ক্ষমতা লাভ করে প্রথম এক ব্যক্তি এক ভোট প্রথা চালু করে পাকিস্তানে প্রথম গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা প্রবর্তন করেন। আর এই ব্যবস্থায় অনুষ্ঠিত হয় ১৯৭০ সালের নির্বাচন। এ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ১৬৭ আসনে জয়লাভ করে পাকিস্তান জাতীয় পরিষদে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করে। ফলে আওয়ামী লীগ তথা বাঙালিদের জন্য পাকিস্তানে ক্ষমতাসীন হওয়ার সুযোগ সৃষ্টি হয়। তার জন্য প্রয়োজন ছিল জাতীয় পরিষদের অধিবেশন। আর এই অধিবেশনটি ১৯৭১ সালের ৩ মার্চ ঢাকায় ডাকা হয়েছিল। স্বাভাবিক কারণেই এই অধিবেশনটি বাঙালিদের একটা বিরাট প্রাপ্তির প্রত্যাশা ছিল। পয়লা মার্চ অধিবেশনটি মুলতবি করার ঘোষণাটি ছিল বাঙালিদের প্রত্যাশার জন্য বজ াঘাততুল্য। তাই ঘোষণাটির সঙ্গে সঙ্গে বাংলাদেশ পরিণত হয় আগ্নেয়গিরিতে। এতে শুধু ঢাকা নয়, দেশময় সৃষ্টি হয় প্রতিবাদ আর বিক্ষোভের মিছিলের জোয়ার। তবে সবার দৃষ্টি ছিল বঙ্গবন্ধুর দিকে। এখানে বঙ্গবন্ধুর তাত্ক্ষণিক কৌশলী পদক্ষেপগুলো বিশেষভাবে লক্ষণীয়। বঙ্গবন্ধু এখানে শুধু আওয়ামী লীগ প্রধান নন, তিনি এখন জাতীয় পরিষদের সংখ্যাগরিষ্ঠ দলনেতা তথা পাকিস্তানের ভাবী প্রধানমন্ত্রী। তাই তাকে আবেগের জোয়ারে গা ভাসিয়ে দিলে চলবে না। কৌশলী পদক্ষেপ হিসেবে তিনি তাত্ক্ষণিকভাবে স্বাধীন বাংলা ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ করার নির্দেশ দেন। উদ্দেশ্য তার পক্ষে এখানে যা করা সম্ভব নয় সেগুলো করবে এই পরিষদ। অন্যদিকে ঘোষণা দেন অসহযোগ আন্দোলনের। এই ঘোষণার ফলে বাংলাদেশের শাসন ক্ষমতা পরোক্ষভাবে তার হাতের মুঠোতে এসে যায়। এতে বিদায় নেয় পাকিস্তানি শাসন। অন্যদিকে ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ পাকিস্তানি পতাকা নামিয়ে স্বাধীন বাংলার পতাকা উত্তোলন করে। পাকিস্তান পরিণত হয় ভিন্ন দেশে। অতঃপর ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণের কথায় আসা যাক। ৬ মার্চ দিবাগত রাতে বঙ্গবন্ধু ভবনের ছাদে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের বৈঠক বসেছিল। আমি সেখানে কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য হিসেবে উপস্থিত ছিলাম। এখানে সদস্যরা ৭ মার্চের ভাষণের রূপরেখা তৈরিতে যে যার মত প্রকাশ করেন। বঙ্গবন্ধু শুধুই শুনে যান। পরদিন ৭ মার্চ সকালবেলায় আমি ধানমন্ডির ৩০ নম্বর রোডে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার ২ নম্বর আসামি আহমেদ ফজলুর রহমানের বাসায় যাই। সেখানে গিয়ে তার সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করি। এমন সময় হঠাৎ লুঙ্গি পরা বঙ্গবন্ধুকে রুমে ঢুকতে দেখে আঁতকে উঠি। বঙ্গবন্ধু রুমে ঢুকেই রহমান সাহেবকে নিয়ে বিশাল ড্রইং রুমের এক কোণে গিয়ে বসেন এবং তার হাতের কাগজের বান্ডিলটি খুলে প্রতিটি কাগজ পর্যালোচনা করেন। এখানে বুঝতে পারলাম যে, ৭ মার্চের ভাষণের ব্যাপারে বঙ্গবন্ধু বিভিন্ন ব্যক্তি থেকে লিখিত মতামত এনেছেন। অতঃপর নিজের মতো করে তৈরি করেছিলেন ভাষণটি, যাতে ছিল স্বাধীনতা সংগ্রামের নির্দেশনা। আর এই নির্দেশনায়ই অর্জিত হয় বাংলাদেশের স্বাধীনতা। ৭ মার্চ রেসকোর্সে সেদিন আমিসহ দলের ওয়ার্কিং কমিটির ৪৯ সদস্য মঞ্চে উপস্থিত ছিলাম। বঙ্গবন্ধু গণপরিষদ সদস্য কুমিল্লার লাকসামের বাসিন্দা জালাল আহমেদকে কোরআন তেলাওয়াত করতে বলেন। ক্যান্টনমেন্ট ও সীমান্তের শহর হিসেবে কুমিল্লার আলাদা গুরুত্ব রয়েছে। একাত্তরে দেশের অধিকাংশ যোদ্ধা কুমিল্লা হয়ে ভারতে যান। এ কারণে হায়েনাদের কঠোর দৃষ্টি ছিল কুমিল্লায়। ২৫ মার্চ রাতে এখানে নির্বিচারে হত্যাযজ্ঞ চালানো হয়। পুলিশ লাইনে হামলা চালিয়ে হত্যা করা হয় ৩০ জনের মতো পুলিশ সদস্যকে। ধরে নিয়ে যাওয়া হয় কুমিল্লার ডিসি ও এসপিকে। তাদের আর ফিরে পাওয়া যায়নি।

এখানে একটা বিষয় লেখার লোভ সামলাতে পারছি না। তা হলো ১৯৭০ সালের নির্বাচনের ফলাফল যদি বাস্তবায়িত হতো তা হলে আওয়ামী লীগের বঙ্গবন্ধু হতেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী। কিন্তু পাকিস্তানি শাসক চক্র তা হতে দেয়নি। আমরা বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে স্বাধীনতাযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছি। সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে ছিনিয়ে এনেছি বাংলাদেশের স্বাধীনতা। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু সপরিবারে হত্যার ঘটনা আমাদের অনেক পিছিয়ে দিয়েছে। এত বঞ্চনার পরও বাঙালি জাতি ঘুরে দাঁড়িয়ে ছিল। সঠিক নেতৃত্ব পেলে সম্ভাবনাময় না থেকে এত দিনে বাংলাদেশ পরিণত হতো সমৃদ্ধশালী দেশে । লেখক : বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর। অনুলিখন : মহিউদ্দিন মোল্লা, কুমিল্লা।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow