Bangladesh Pratidin

ঢাকা, মঙ্গলবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : শুক্রবার, ৭ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ৬ অক্টোবর, ২০১৬ ২৩:৩৭
সচেতনতা
সারা জীবনের ভোগান্তি উচ্চ রক্তচাপ
ডা. মাহবুবুর রহমান কার্ডিওলজিস্ট ও মেডিসিন বিশেষজ্ঞ সিনিয়র কনসালটেন্ট ও সিসিইউ ইনচার্জ চেম্বার : ল্যাবএইড কার্ডিয়াক হাসপাতাল, ঢাকা।
সারা জীবনের ভোগান্তি উচ্চ রক্তচাপ

উচ্চ রক্তচাপ (Hypertension) বা হাই প্রেসার অত্যন্ত পরিচিত একটি শব্দ। প্রতি চারজন পূর্ণবয়স্ক মানুষের মধ্যে একজন এই রোগে আক্রান্ত। অর্থাৎ উচ্চ রক্তচাপের ব্যাপকতা অনেক বেশি। সাধারণত কর্মক্ষম ব্যক্তিরাই এই রোগে আক্রান্ত। কাজেই এর কারণ, ক্ষমতা, জটিলতাও প্রতিরোধ এবং চিকিৎসা বিষয়ে আমাদের সবার স্বচ্ছ ধারণা থাকা দরকার।

 

কারণ...

সত্য করে বললে শতকরা ৯৫ ভাগ ক্ষেত্রে উচ্চ রক্তচাপের কোন সুনির্দিষ্ট কারণ এখন পর্যন্ত খুঁজে পাওয়া যায়নি। তবে নির্দিষ্ট করে কারণ না জানা গেলেও বিভিন্ন বহুমুখী উপাদান এর পেছনে ভূমিকা পালন করে। তার মধ্যে নিউরো-হরমোনাল ফ্যাক্টর যেখানে নার্ভাস সিস্টেমের সিমপ্যাথিটিক অংশের অতিরিক্ত সক্রিয়তা লক্ষ্য করা যায়। বাকি পাঁচ শতাংশ ক্ষেত্রে উচ্চ রক্তচাপের কারণ হিসেবে দায়ী করা হয় কিছু জানা রোগকে এবং জীবন যাপনের পদ্ধতির বিচ্যুতিকে। যেমন— কিডনির বিভিন্ন রোগ, কিডনির রক্তনালির রোগ, ব্যথানাশক বিভিন্ন ওষুধ, স্টেররেড (Steroids) জাতীয় ওষুধ, জন্ম নিয়ন্ত্রণের বড়ি ও ইনজেকশন, থাইরয়েড গ্রন্থির রোগ, পাতে অতিরিক্ত লবণ গ্রহণ, অ্যালকোহল পান, অতিরিক্ত ওজন, গর্ভধারণ, নিয়মিত ব্যায়াম না করা ইত্যাদি। এর বাইরেও অন্যান্য কিছু কারণ আছে যার প্রকোপ খুবই কম।

 

উচ্চ রক্তচাপ কখন বলা যাবে?

সাধারণ রক্তচাপকে উচ্চ রক্তচাপ বলা যাবে না। যদি কোনো পূর্ণবয়স্ক মানুষের রক্তচাপ বিশ্রামরত অবস্থায় ১২০/৮০ মিমি মারকারি হলে আমরা স্বাভাবিক বলব। তবে তা ১৩০/৮৫ পর্যন্ত হলেও অসুবিধা নেই। কিন্তু পরপর অন্তত দুটি বিরতিতে যদি তা ১৪০/৯০ অতিক্রম করে সেটাকে আমরা উচ্চ রক্তচাপ হিসেবে অভিহিত বলে থাকি। মনে রাখতে হবে হঠাৎ পরিশ্রম করলে, একসঙ্গে ৩/৪ তলায় সিঁড়ি ভেঙে উঠলে কিংবা অতিরিক্ত দুশ্চিন্তা বা আতঙ্ক ও সাময়িকভাবে প্রেসার বাড়িয়ে দিতে পারে। অনেকে অতিরিক্ত দুশ্চিন্তা বা Tension-কে হাই প্রেসার হিসেবে Hypertension মনে করেন। এটা কিন্তু ভুল ধারণা। দুশ্চিন্তা বা Tension একটি সাময়িক ব্যাপার হতে পারে যা রক্তচাপ সাময়িক বাড়াতে পারে।

 

উচ্চ রক্তচাপের চিকিৎসা কখন নেবেন?

উচ্চ রক্তচাপের ৯৫ শতাংশ ক্ষেত্রে যেমন কোনো সুনির্দিষ্ট কারণ খুঁজে পাওয়া যায় না তেমনি ৮০-৯০ শতাংশ ক্ষেত্রে কোনো উপসর্গ (Symptoms) দেখা দেয় না। যেহেতু কোনো সমস্যা বা উপসর্গ রোগী অনুভব করেন না তাই এর চিকিৎসার গুরুত্বও তিনি উপলব্ধি করেন না। এটি একটি সমস্যা। প্রায়ই দেখা যায়, রোগী রক্তচাপ ১৮০/১১০ বা অনুরূপ প্রেসার নিয়ে চেম্বারে এলেন। তাকে চিকিৎসা দেওয়া হলো। রোগী কিছুদিন ওষুধ খেয়ে বন্ধ করে দিলেন। কারণ তার তো কোনো উপসর্গ আগেও ছিল না, এখনো নেই। তাহলে ওষুধ কেন খাবেন? কতদিন খাবেন? উচ্চ রক্তচাপ চিকিৎসার মূল বিষয়টি এখানে লুকিয়ে আছে। দীর্ঘদিন উচ্চ রক্তচাপে ভুগলে শরীরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ আক্রান্ত হয়। এদের টার্গেট অরগান ড্যামেজ (Target Organ Damage) বলা হয়। এদের মধ্যে প্রধান অঙ্গগুলো হলো হার্ট, কিডনি, ব্রেন, চোখের রেটিনা ইত্যাদি। অর্থাৎ যখন উপসর্গ দেখা দিবে বুঝতে হবে ইতিমধ্যে কোনো না কোনো ভাইটাল অরগান আক্রান্ত হয়েছে। তার মানে সময় অনেক গড়িয়ে গেছে। আপনি জটিলতার আবর্তে পড়ে গেছেন। এভাবে চলতে থাকলে একসময় হার্ট অ্যাটাক, হাট ফেইলুর, কিডনি ফেইলুর, ব্রেন স্ট্রোক, রেটিনা ড্যামেজ তথা অন্ধত্ববরণ ইত্যাদি জীবন বিপন্নকারী রোগসমূহ আপনার দরজায় কড়া নাড়ছে। তখন আপনি যতই সচেতন এবং চিকিৎসা নিন না কেন তা আর পূর্ণ সুস্থাবস্থায় আপনাকে ফিরিয়ে নিয়ে যাবে না। এই একটি জটিলতা অর্থাৎ টার্গেট অরগান ড্যামেজ প্রতিরোধ করাই, উপসর্গ না থাকলেও, উচ্চ রক্তচাপের চিকিৎসার মূল উদ্দেশ্য। এখানে অবহেলা আত্মহত্যার শামিল।

 

কীভাবে চিকিৎসা নেবেন?

চিকিৎসা মানে শুধু ওষুধ নয়। জীবন যাপন পদ্ধতির পরিবর্তন ও পরিমার্জন অত্যাবশ্যক। নিয়মিত কমপক্ষে ৪০ মিনিট ব্যায়াম অর্থাৎ জোরে জোরে হাঁটা। প্রতিদিন একই সময়ে (সকালে বা বিকালে) হাঁটলে ভালো। পাতে আলগা লবণ, অতিরিক্ত লবণ পরিহার করতে হবে। ধূমপান অবশ্য পরিত্যাজ্য। অ্যালকোহল বর্জন করতে হবে। অতিরিক্ত ওজন কমিয়ে আনতে হবে। সুষম খাদ্য গ্রহণ, অতিরিক্ত পানাহার বর্জন করতে হবে। সময়মত ঘুমে যাওয়া, ৩৫ বছর অতিক্রম করলে জন্ম নিয়ন্ত্রণ বড়ি বা ইনজেকশন পরিহার করা, চিকিৎসকের পরামর্শ ব্যতীত কোনো ব্যথানাশক ওষুধ সেবন না করা। নিজে নিজে স্টেরয়েড জাতীয় ওষুধ যেমন—

Oradexon না নেওয়া ইত্যাদি বিষয়গুলো মেনে চলতে হবে।

 

আমরা সাধারণত উচ্চ রক্তচাপের প্রাথমিক স্তরে কোনো ওষুধ দিই না। জীবনযাত্রার পরিবর্তন, পরিমার্জন, ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণসহ আনুষঙ্গিক রোগসমূহের সঠিক চিকিৎসার ওপর গুরুত্ব দেই। যখন মনে করি, এই পর্যায়ে ওষুধ প্রয়োগ প্রয়োজন তখন থেকে নিয়মিত ওষুধ সেবন করতে হবে। অনেক রোগী প্রশ্ন করেন যে, ওষুধ কি সারা জীবন খেতে হবে? উত্তর হলো— হ্যাঁ। সারা জীবন ওষুধ খাবার বিনিময়ে যদি আমার হার্ট, কিডনি, ব্রেন, চোখ ভালো থাকে তাহলে তো তাই করা উচিত। হয়তো আর্থিক চাপ বাড়বে, কিছু কিছু ক্ষেত্রে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে। নিজে নিজে দোকান থেকে ওষুধ খাওয়া ঠিক নয়। একেক রোগীর একেক ধরনের সমস্যা ও আনুষঙ্গিক রোগ থাকতে পারে। সে জন্য একেক জনের চিকিৎসা একেক রকম হতে পারে। তাই উচ্চ রক্তচাপকে এড়িয়ে না গিয়ে, অহেতুক ভয় না পেয়ে যথাসময়ে সঠিক চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ ও সুন্দর থাকুন।

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত
এই পাতার আরো খবর
up-arrow