Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ১৯ আগস্ট, ২০১৭

ঢাকা, শনিবার, ১৯ আগস্ট, ২০১৭
প্রকাশ : রবিবার, ৫ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ৪ মার্চ, ২০১৭ ২৩:৪০
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫০তম সমাবর্তন
ছাত্র রাজনীতিতে ব্যক্তিস্বার্থ প্রাধান্য পাচ্ছে : রাষ্ট্রপতি
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
ছাত্র রাজনীতিতে ব্যক্তিস্বার্থ প্রাধান্য পাচ্ছে : রাষ্ট্রপতি

রাষ্ট্রপতি এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) আচার্য মো. আবদুল হামিদ বলেছেন, অতীতের ছাত্ররাজনীতি এবং বর্তমান ছাত্ররাজনীতির মধ্যে অনেক তফাৎ রয়েছে। ষাটের দশকে ছাত্ররাজনীতির আদর্শ ছিল দেশ ও জনগণের কল্যাণ সাধন করা।

সেখানে ব্যক্তি বা গোষ্ঠীস্বার্থের কোনো স্থান ছিল না। ছাত্ররাই ছাত্ররাজনীতি নিয়ন্ত্রণ করত। লেজুড়বৃত্তি বা পরনির্ভরতার কোনো জায়গা ছিল না। কিন্তু বর্তমানের ছাত্ররাজনীতিতে আদর্শের চেয়ে ব্যক্তি বা গোষ্ঠীস্বার্থের প্রাধান্য বেশি। এ সময় তিনি দেশের ভবিষ্যৎ নেতৃত্ব সৃষ্টির জন্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচনের ওপর গুরুত্ব দিয়ে বলেন, ‘ডাকসু নির্বাচন ইজ এ মাস্ট। ’ ডাকসু নির্বাচন না হওয়ায় রাজনীতিতে নেতৃত্বের শূন্যতা তৈরি হচ্ছে। দেশ ও জাতির উন্নয়নের জন্য রাজনৈতিক নেতৃত্ব দরকার। গতকাল ঢাবির ৫০তম সমাবর্তনে সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে এ সমাবর্তন অনুষ্ঠিত হয়। কানাডার ইউনিভার্সিটি অব ওয়েস্টার্ন অন্টারিওর প্রেসিডেন্ট ও ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক অমিত চাকমা সমাবর্তনে বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক সাইটেশন পাঠ ও ভাষণ প্রদান করেন। উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. নাসরীন আহমাদ ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। এ সময় উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মো. কামাল উদ্দীনসহ মন্ত্রিপরিষদের সদস্য, সংসদ সদস্য, বিভিন্ন কূটনৈতিক মিশনের প্রধান, বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট-সিন্ডিকেট  সদস্য ও একাডেমিক পরিষদের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

সমাবর্তনে কানাডার ইউনিভার্সিটি অব ওয়েস্টার্ন ওন্টারিওর প্রেসিডেন্ট ও ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক অমিত চাকমাকে ‘ডক্টর অব সায়েন্স’ ডিগ্রি প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৬১ জন গবেষককে পিএইচডি, ৪৩ জনকে এমফিল, ৮০ জনকে স্বর্ণপদক এবং ১৭ হাজার ৮৭৫ জন গ্র্যাজুয়েটকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রি প্রদান করা হয়। সংশ্লিষ্ট অনুষদের ডিনরা অনুষদভুক্ত বিভাগ ও ইনস্টিটিউটের ডিগ্রিপ্রাপ্ত গ্র্যাজুয়েটদের নাম উপস্থাপন করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার মো. এনামউজ্জামান সমাবর্তন অনুষ্ঠান সঞ্চালন করেন। রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘গণতন্ত্রের ভিত মজবুত করতে হলে দেশে সৎ ও যোগ্য নেতৃত্ব গড়ে তুলতে হবে। আর সেই নেতৃত্ব তৈরি হবে ছাত্ররাজনীতির মাধ্যমেই। আমি নিজেও ছাত্ররাজনীতির মাধ্যমেই রাজনীতিতে হাতেখড়ি লাভ করি। ’ তিনি বলেন, ‘আমাদের সময়ের রাজনীতি আর আজকের ছাত্ররাজনীতির মধ্যে অনেক তফাৎ। কিছু ক্ষেত্রে অছাত্ররাই রাজনীতির নেতৃত্ব দেওয়াসহ নিয়ন্ত্রণ নেয়। এর ফলে ছাত্ররাজনীতির প্রতি সাধারণ শিক্ষার্থীদের আস্থা হ্রাস পাচ্ছে। এর থেকে উত্তরণের জন্য ছাত্রসমাজকে অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে। ’ তিনি বলেন, ‘আমাদের সময়ে ভালো রেজাল্টকারীদের কৌশলে দলের সঙ্গে সম্পৃক্ত করতাম। নির্বাচনে আমাদের ভোট দিতে সাধারণ শিক্ষার্থীদের ভর্তি করতাম। তারা আমাদের ভালোবাসত। এখন কী হচ্ছে বুঝি না! ছাত্রনেতাদের বয়স যদি ৪৫-৫০ বছর হয়, তাহলে তারা কীভাবে ২১ বছরের বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে অ্যাডজাস্ট করবে?’ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে রাজনীতির সূতিকাগার অভিহিত করে তিনি বলেন, প্রতিষ্ঠার পর থেকেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অনেক বরেণ্য রাজনীতিবিদের জন্ম দিয়েছে। তারা মহান মুক্তিযুদ্ধসহ বিভিন্ন গণতান্ত্রিক আন্দোলন ও জাতীয় উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন। এখনো পথপ্রদর্শক হিসেবে দেশ ও জাতিকে সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। ছাত্ররাজনীতির প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরে তিনি বলেন, দেশ ও জাতির উন্নয়নে রাজনৈতিক নেতৃত্বের বিকল্প নেই। গণতন্ত্র ও উন্নয়ন একে অপরের পরিপূরক। একটি ছাড়া অপরটি অচল। তাই গণতন্ত্রের ভিত মজবুত করতে হলে দেশে সৎ ও যোগ্য নেতৃত্ব গড়ে তুলতে হবে। আর সেই নেতৃত্ব তৈরি হবে ছাত্ররাজনীতির মাধ্যমেই। আদর্শভিত্তিক ও কল্যাণমুখী ছাত্ররাজনীতির নিরবচ্ছিন্ন চলার পথ নিশ্চিত করতে হবে। ছাত্রসমাজকেই এ ব্যাপারে অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হতে না পারলেও আজকে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য হওয়ায় বিস্ময় প্রকাশ করে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ বলেন, ‘মনে অনেক খায়েশ ছিল। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হব। কিন্তু ভর্তি তো দূরের কথা, আমি এই বিশ্ববিদ্যালয়ের ফরমটাও তুলতে পারিনি। আশ্চর্যের বিষয় হলো, যে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিই হতে পারিনি, আজ আমি সেই বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য। ’ কানাডার ইউনিভার্সিটি অব ওয়েস্টার্ন ওন্টারিওর প্রেসিডেন্ট ও ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক অমিত চাকমা বলেন, জীবনে সফল হওয়ার জন্য তিনটি বৈশিষ্ট্য জরুরি। তা হলো— যোগ্যতা, কর্মনিষ্ঠা ও চারিত্রিক গুণ। নিজের দক্ষতা ও মেধা কাজে লাগিয়ে এসব গুণ অর্জন করতে হবে। ভালো ও মন্দের বিচার করার সক্ষমতা অর্জন করতে হবে। নীতির ওপর ভিত্তি করে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। নীতিভিত্তিক সমাজ প্রতিষ্ঠায় সব গ্র্যাজুয়েট নেতৃত্ব দিলে বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ উজ্জ্বল হবে।

সমাবর্তনে বক্তা করায় বাংলাদেশে জন্ম নেওয়া অমিত চাকমা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আমার জন্মভূমির শ্রেষ্ঠ বিশ্ববিদ্যালয়। এখানে পড়ার সৌভাগ্য আমার হয়নি। আমার কর্মজীবনে সফলতার কারণ, আমি মেধাবী না হলেও মনোযোগ দিয়ে পড়ালেখা করেছি। ’

উপাচার্য অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে শিক্ষার গুণগত মান বৃদ্ধির লক্ষ্যে দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে। এ লক্ষ্য অর্জনে বিশ্ববিদ্যালয়সমূহে জ্ঞানভিত্তিক কাঠামো নির্মাণ করতে হবে। সব শিক্ষার মূল লক্ষ্য হচ্ছে মানবকল্যাণ। শুধু সার্টিফিকেট অর্জন বা পরীক্ষায় ভালো ফলাফল করে দেশের কল্যাণ সাধন সম্ভব নয়। এ জন্য তাদের ভালো মানুষ হতে হবে। বর্তমান বিশ্বায়নের প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে হলে ছাত্র-ছাত্রীদের আন্তর্জাতিক মানের গ্র্যাজুয়েট হতে হবে। তিনি বলেন, উচ্চশিক্ষিত হয়েও অনেকে দুর্নীতির সঙ্গে জড়িয়ে পড়েন। এ কারণে শিক্ষার্থীদের নৈতিক মূল্যবোধে উদ্বুদ্ধ হতে হবে। গবেষণার মাধ্যমে সব সামাজিক সমস্যা সমাধানের উপায় বের করতে হবে। তিনি বলেন, মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস ও সত্য প্রতিষ্ঠার জন্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কাজ করে যাচ্ছে। এ কাজে তরুণ প্রজন্মকে নেতৃত্ব দিতে হবে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং বাংলাদেশের ইতিহাস এক ও অভিন্ন উল্লেখ করে উপাচার্য বলেন, এই বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের ছাত্র থাকাকালে বঙ্গবন্ধু বিভিন্ন আন্দোলনে নেতৃত্ব দেন। পরবর্তী সময়ে তার নেতৃত্বেই বাংলাদেশ স্বাধীন হয়। নতুন প্রজন্মকে এ ইতিহাস জানতে হবে।

সমাবর্তন ঘিরে ক্যাম্পাসে উৎসবমুখর পরিবেশ : ৫০তম সমাবর্তন উপলক্ষে ক্যাম্পাসকে সাজানো হয় মনোরম সাজে। বিভিন্ন বিভাগ, ইনস্টিটিউট ও ভবন ছাত্র-ছাত্রীদের উপস্থিতিতে মুখরিত হয়ে ওঠে। কালো গাউন পরে শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাস জুড়ে আনন্দ-উল্লাস প্রকাশ করেন। দিনভর ছবি তোলা, বন্ধুদের নিয়ে আড্ডা, হইচই ও কোলাহলে মেতে থাকে সবাই। ফলে উৎসবমুখর পরিবেশ বিরাজমান ছিল পুরো ক্যাম্পাসে। সমাবর্তন অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে অনেকেই সহপাঠীদের সঙ্গে গল্প, আড্ডা আর গানে গানে ফিরে গেলেন ক্যাম্পাসজীবনের সেই সোনালি দিনগুলোতে।

উন্নয়ন অধ্যয়ন বিভাগের শিক্ষার্থী সায়েদ শোহাইব বলেন, দীর্ঘ পাঁচ বছর পর সেই মাহেন্দ্র ক্ষণটি এসেছে। বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে সবচেয়ে বড় পাওয়া হলো এই সমাবর্তন। এ মুহূর্তটা জীবনে অবিস্মরণীয় হয়ে থাকবে।

up-arrow