Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : সোমবার, ১৬ জুলাই, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ১৫ জুলাই, ২০১৮ ২৩:১৪
ক্যাম্পাসে হলে হলে বহিরাগত
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আবাসন সংকটে ভোগান্তিতে শিক্ষার্থীরা
জয়শ্রী ভাদুড়ী
ক্যাম্পাসে হলে হলে বহিরাগত

প্রতিষ্ঠালগ্নে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ছিল ৮৭৭ জন, অনুষদ ৩টি আর বিভাগ ১২টি। বর্তমানে ১০টি অনুষদ, ৮৭টি বিভাগ ও ৯টি ইনস্টিটিউট মিলিয়ে ৩৫ হাজারের বেশি শিক্ষার্থী পড়ছে ঢাবিতে। প্রতিষ্ঠার পর থেকে প্রতিবছর শিক্ষার্থী বাড়লেও সে হারে বাড়েনি আবাসন সুবিধা। এর সঙ্গে যোগ হয়েছে হলগুলোতে বহিরাগতদের উৎপাত। বিভিন্ন হলে ছাত্রনেতাদের ছত্রচ্ছায়ায় অবস্থান করছে বহিরাগতরা। ফলে ভোগান্তিতে পড়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা। এর নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে শিক্ষার্থীদের পড়াশোনা থেকে শুরু করে সামগ্রিক জীবনযাত্রায়।

শিক্ষার্থী বৃদ্ধির অনুপাতে আবাসন ব্যবস্থা না হওয়ায় হলগুলো হয়ে উঠেছে জনবহুল ও ঘিঞ্জি। কোনো কোনো ক্ষেত্রে উদ্বাস্তু শিবিরের পরিবেশকেও হার মানায় হলগুলোর পরিবেশ। আবাসন সংকটের মাত্রা এতই তীব্র হয়েছে যে, হলগুলোতে বর্তমানে ধারণক্ষমতার প্রায় তিনগুণ শিক্ষার্থী অবস্থান করছে। সৃষ্টি হয়েছে গণরুম। শিক্ষার্থীরা পাচ্ছেন না শিক্ষার উপযুক্ত পরিবেশ। হল প্রশাসনের তদারকির অভাবে সরকারি ছাত্র সংগঠনের নেতারা বছরের পর বছর অবৈধভাবে হলে অবস্থান করছেন। শিক্ষার্থীরা বলছেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে তাদের প্রধান সমস্যা-আবাসন সংকট। আবাসন সংকটের কারণেই বহিরাগতদের দাপট বাড়ছে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বলছে, আবাসন সংকট একটি বাস্তবতা, এ সমস্যা আরও প্রকট হচ্ছে। কিন্তু জমি ও অর্থের অভাবে এটি দ্রুত নিরসনের সুযোগও নেই। বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৮টি আবাসিক হল ও দুটি ছাত্রাবাস রয়েছে। সম্প্রতি ছেলেদের জন্য ১ হাজার সিটবিশিষ্ট ‘বিজয় একাত্তর’ চালু হয়েছে। সব হল মিলিয়ে প্রায় ১৮-২০ হাজার শিক্ষার্থীর আবাসন ব্যবস্থা হলেও বাকি অর্ধেক শিক্ষার্থীর জন্য কোনো আবাসনের ব্যবস্থা নেই। এদিকে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ আবাসন সংকট কিছুটা নিরসন করে তার চেয়ে বেশি হারে ভর্তির আসন বাড়িয়ে যাচ্ছে। এর ফলে দিন দিন হলের আবাসন সংকট প্রকট হচ্ছে। যারা আবাসিক হলে অবস্থান করছে তাদের থাকার পরিবেশ অত্যন্ত শোচনীয়। বিভিন্ন হল ঘুরে জানা যায়, আবাসিক হলের যেসব রুমে ৪ থেকে ৮ জন করে থাকা যায় সে রুমে ১৫ থেকে ২০ জনকে কোণঠাসা হয়ে থাকতে হয়। এ ছাড়া শিক্ষার্থীরা হলগুলোর মসজিদের বারান্দা, রিডিং রুম, হল সংসদ রুম, টিভি রুম ও পত্রিকা রুমে রাত কাটাচ্ছেন। হলে আসন না পেয়ে তারা অমানবিক জীবন কাটাচ্ছেন। জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের সূর্যসেন হলে অন্তত ৮টি, এএফ রহমান হলে ৫টি, জহুরুল হক হলে ১০টি, মুক্তিযোদ্ধা জিয়াউর রহমান হলে ৮টি, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলে ৯টি, কবি জসীমউদ্দীন হলে ১১টি, হাজী মুহাম্মদ মুহসীন হলে ১৩টি, রোকেয়া হলে ২টি, কুয়েত মৈত্রী হলে ৪টি এবং ফজিলাতুন নেছা মুজিব হলে ৩টি গণরুম রয়েছে। এসব রুমের একেকটিতে গাদাগাদি করে থাকছেন ৩০-৪০ জন শিক্ষার্থী।

জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদুল্লাহ হলে ১ হাজার ২২৫ জন, ফজলুল হক মুসলিম হলে ৭৬৬ জন, জগন্নাথ হলে ১ হাজার ৭২২ জন, সলিমুল্লাহ মুসলিম হলে ৮০৫ জন, জহুরুল হক হলে ১ হাজার ৩২৫ জন, সূর্যসেন হলে ১ হাজার ৭৪ জন, হাজী মুহাম্মদ মুহসীন হলে ৫৪২ জন, কবি জসীমউদ্্দীন হলে ৭৬৯ জন, স্যার এফ রহমান হলে (শাহনেওয়াজ ছাত্রাবাসসহ) ৬০২ জন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলে ৭০৩ জন, মুক্তিযোদ্ধা জিয়াউর রহমান হলে ৯৩৪ জন, অমর একুশে হলে ৬১০ জন, রোকেয়া হলে ১ হাজার ৬০০ জন, শামসুন্নাহার হলে ১ হাজার ৩৫০ জন, কুয়েত মৈত্রী হলে ২ হাজার ৬১ জন, স্যার পিজে হার্টগ ইন্টারন্যাশনাল হলে ১১৯ জন, বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব হলে ১ হাজার ১৫০ জন এবং নবাব ফয়জুন্নেসা চৌধুরানী ছাত্রী নিবাসে ১৬০ জন শিক্ষার্থী আবাসিক সুবিধা পাচ্ছেন। এ ছাড়াও দ্বৈতাবাসিক হিসেবে ও অনাবাসিক হিসেবে কিছু ছাত্র হলগুলোতে অবস্থান করছেন।

জানা যায়, সাবেক অনেক শিক্ষার্থীর দীর্ঘদিন ধরে হলে অবস্থান এবং ছাত্রনেতাদের আশ্রয়ে বহিরাগতদের কারণে হলের আবাসিক সমস্যা প্রকট। বহিরাগতদের কাছে হলের কক্ষ ভাড়া দেওয়ার অভিযোগও রয়েছে। অন্যদিকে বহিরাগতদের বের করার জন্য হল কর্তৃপক্ষ বিভিন্ন সময়ে অভিযান চালালেও পরে তদারকির অভাবে আগের অবস্থা ফিরে আসে। ক্ষমতাসীন ছাত্র সংগঠনের নেতারা অনেকেই একা একটি রুম দখল করে আছেন দিনের পর দিন। তাছাড়া তাদের ছত্রচ্ছায়ায় প্রায় প্রতিটি হলেই থাকছে বহিরাগতরা। শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, হল কর্তৃপক্ষ সিট বরাদ্দ দেয় কাগজে-কলমে। কোন কক্ষের কোন সিটে কে থাকবে তা নিয়ন্ত্রণ করেন ক্ষমতাসীন দলের ছাত্র সংগঠনের নেতারা। এতে শর্তসাপেক্ষে তারাই প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থীদের হলে তোলেন। হলে উঠতে হলে যোগাযোগ করতে হয় ছাত্র সংগঠনের নেতাদের সঙ্গে।

জানা যায়, ঢাবির জগন্নাথ হলে সবচেয়ে বেশি বহিরাগতের বসবাস। এই হলের তিনটি ভবনে প্রায় দুই শতাধিক বহিরাগত অবস্থান করছে। এ ছাড়া হাজী মুহাম্মদ মুহসীন হল, জহুরুল হক হল, ফজলুল হক হল, সূর্যসেন হলেও কয়েকশ বহিরাগত বসবাস করছে। তুলনামূলক ছোট হলগুলোর মধ্যে এস এম হল, এ এফ রহমান হল, জিয়া হল, বঙ্গবন্ধু হলেও রয়েছে বহিরাগতদের বসবাস। এর মধ্যে বিভিন্ন হলে ছাত্রলীগের অনেক নেতা বসবাস করছেন এক যুগেরও বেশি সময় ধরে। মুহসীন হলের ৩৬২-তে রুহুল নামে ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় কমিটির এক সদস্য থাকেন। ৩৩৪ নম্বর কক্ষে একটি প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের অভি অন্তু, ৪৩৭ নম্বর কক্ষে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের বেলাল, ১০১৫ তে সান্ধ্যকালীন কোর্সের দুলাল, ১০২০ এ ঢাকা কলেজের কামাল, ১০২৮ জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শরীফ, ১০১৪ ঢাকা কলেজের ইমরান, ১০০৩ এ আমিরুল ইসলাম ছাড়াও কবি জসীমউদ্দীন হলে ২১৮, ৪২২ নম্বর কক্ষে দীর্ঘদিন ধরে অছাত্ররা থাকেন। ৩২৯ কক্ষে এক বহিরাগত ছাত্রলীগ নেতাকে ম্যানেজ করে থাকেন। সলিমুল্লাহ মুসলিম হলে ২৭, ১৩৯, ১৪১, ১৪২, ১৫২-সহ একাধিক কক্ষে অছাত্র ছাত্রলীগ নেতারা থাকেন।

এ ব্যাপারে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক এ কে এম গোলাম রব্বানী বলেন, হলগুলোতে বহিরাগতদের বিষয়ে হল কর্তৃপক্ষ কাজ করছে। তাদের সিট ছেড়ে দেওয়ার জন্য খুব দ্রুতই নোটিস করা হবে।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow