Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ২৫ নভেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, শনিবার, ২৫ নভেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : শনিবার, ৪ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ৩ মার্চ, ২০১৭ ২১:০৫
বাঙালি সার্জনের ভার্চুয়াল চমক
শাফি আহমেদ [ব্রিটিশ পারসন অব দ্য ইয়ার]
বাঙালি সার্জনের ভার্চুয়াল চমক

বাঙালি সার্জন ডা. শাফি আহমেদ গুগল গ্লাস ব্যবহার করে অস্ত্রোপচার সম্প্রচার ও চিকিৎসা শিক্ষার্থীদের প্রশিক্ষণ প্রদানে বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। ২০১৭ সালে ব্রিটেনের পারসন অব দ্য ইয়ার সম্মানে ভূষিত হন।

জানাচ্ছেন— তানিয়া

 

গুগল গ্লাস ব্যবহার করে অস্ত্রোপচার সম্প্রচারকারী চিকিৎসক শাফি আহমেদকে ব্রিটেনে ‘সবচেয়ে প্রভাবশালী’ বাংলাদেশি হিসেবে  সম্মাননা দিয়েছে ‘ব্রিটিশ বাংলাদেশি পাওয়ার অ্যান্ড ইনসপায়ারেশন (বিবিপিআই)। যুক্তরাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা এমন সফল ব্যক্তিদের গল্প তুলে ধরে বিবিপিআই প্রকাশ করেছে ১০০ ব্রিটিশ বাংলাদেশির তালিকা। চিকিৎসা ব্যবস্থায় অভিনব চিন্তার প্রয়োগ, কঠোর পরিশ্রম ও তুখোড় মেধা দিয়ে সাফল্যের শিখরে পৌঁছে তিনি হয়েছেন ‘পারসন অব দ্য ইয়ার-২০১৭’ এর তালিকার প্রথম স্থান অধিকারী। ১৭ ফেব্রুয়ারি লন্ডনে অবস্থিত ইউরোপের সবচেয়ে উঁচু ভবন ‘দ্য শার্ড’-এর ২৪ তলায় বসে সফল বাংলাদেশিদের মিলনমেলা। সেখানে শীর্ষ উদ্যোক্তা, সমাজ সংগঠক এবং বিশ্ব বরেণ্য ব্যক্তিদের উপস্থিতিতে শাফি আহমেদকে এ সম্মানে ভূষিত করা হয়।

যুক্তরাজ্যে বসবাসরত বাংলাদেশিদের মধ্যে বিভিন্ন ক্ষেত্রে সফলদের গত ছয় বছর ধরে টানা সম্মাননা দিয়ে আসছে বিবিপিআই। এর মধ্যে এককভাবে ব্যক্তি যেমন পুরস্কৃত হচ্ছেন তেমনি বা সম্মিলিত অর্জনের জন্য যে কোনো প্রতিষ্ঠানকেও সম্মানিত করা হচ্ছে। ২০১৬ সালের ১৪ এপ্রিল অর্থাৎ পয়লা বৈশাখে বাংলাদেশি চিকিৎসক শাফি আহমেদ গুগল গ্লাস দিয়ে উইচ্যাটের মাধ্যমে অপারেশন থিয়েটার থেকে অস্ত্রোপচার সরাসরি সম্প্রচার করেন। ভার্চুয়াল রিয়েলিটি তৈরি করে অপারেশন থিয়েটারের ৩৬০ ডিগ্রি দেখানোর ব্যবস্থা করা হয়।

বিশ্বের ১৩০টি দেশের চিকিৎসক ও চিকিৎসা শাস্ত্রের শিক্ষার্থীরা সরাসরি ইন্টারনেটে অস্ত্রোপচারটির সম্প্রচার দেখেন। চিকিৎসক শাফির ভিন্নধর্মী এই উদ্যোগ চিকিৎসা বিজ্ঞানে ভার্চুয়াল রিয়ালিটির ক্ষেত্রে ‘পথিকৃৎ’ বলে মনে করছে বিবিপিআই। সংগঠনটির ধারণা এর মধ্য দিয়ে ভবিষ্যতে চিকিৎসা বিজ্ঞান আরও স্বচ্ছ হবে। চিকিৎসা শাস্ত্রে প্রশিক্ষণও সহজ হবে বলে মত সংস্থাটির। ‘পার্সন অব দ্য ইয়ার’ সম্মানে ভূষিত হওয়ার পর শাফি আহমেদ বলেন, ‘আমি সত্যি সত্যিই অভিভূত বিবিপিআই পার্সন অব দ্য ইয়ার হওয়ায়। শিক্ষকতা এবং অন্যের জন্য উদাহরণ তৈরি করতে কর্মজীবন উৎসর্গ করার চেষ্টা করছি। প্রযুক্তি ব্যবহারের মধ্য আমি কেবল অন্যদের উদ্বুদ্ধ করতে চাই না, বরং বিশ্বব্যাপী স্বাস্থ্য খাতেও উন্নতি করতে চাই’। বিবিপিআই-এর প্রতিষ্ঠাতা আবদাল উল্লাহ বলেন, বিবিপিআই ১০০-এর তালিকাটি ব্রিটেনে বাংলাদেশিদের মধ্য থেকে সেরা প্রতিভা খোঁজার চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। ফ্যাশন থেকে অর্থায়ন, প্রযুক্তি থেকে খাদ্য, নাটক থেকে সমাজসেবা সব জায়গায় এ প্রক্রিয়া চালু আছে বলেই এ সম্মাননা ব্যতিক্রম। শাফি আহমেদ সব সময় প্রযুক্তিকে সহজ করে ক্লিনিক্যাল প্র্যাকটিসের খোঁজ করতেন। ট্রেনিংকে সবার জন্য সহজ করা, প্রযুক্তির সহজ ব্যবহার ও সবার সঙ্গে যোগাযোগ উন্নতি ঘটানো ছিল তার লক্ষ্য। ২০১৪ সালে গুগল গ্লাস ব্যবহার করে ১৩২টি দেশের ১৪ হাজার শিক্ষার্থীকে ট্রেনিং দিয়ে শাফি রীতিমতো খবরের হেডলাইনে পরিণত হয়েছিলেন। ২০১৬ সালের ১৪ এপ্রিল বিশ্বের ১৪০টি দেশের ৫৫ হাজার লোক দেখেছিল তার প্রথম ভার্সুয়াল রিয়েলিটি অপারেশন। টুইটারের মাধ্যমে ভিডিওটি পৌঁছেছিল প্রায় ৪.৬ মিলিয়ন লোকের কাছে। ২০১৬ সালের ডিসেম্বরে তিনি প্রথম অপারেশন করে স্ন্যাপচ্যাটের মাধ্যমে মেডিকেল শিক্ষার্থীদের প্রশিক্ষণ দেন।

এই পাতার আরো খবর
সর্বাধিক পঠিত
up-arrow