শিরোনাম
প্রকাশ : ৮ ডিসেম্বর, ২০১৯ ১৮:১৫

সিলেট মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ও শিক্ষা কার্যক্রম শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিলেট:

সিলেট মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ও শিক্ষা কার্যক্রম শুরু

সিলেট মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ও শিক্ষা কার্যক্রম এ বছর থেকে শুরু হয়েছে। নগরীর চৌহাট্টাস্থ অস্থায়ী কার্যালয় থেকে চলছে এই কার্যক্রম। স্থায়ী ক্যাম্পাসের জন্য দক্ষিণ সুরমার মোল্লারগাঁও এলাকায় ৮০.৩১ একর ভূমি অধিগ্রহণের কাজ চলছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের পূর্ণাঙ্গ কার্যক্রম শুরু হলে এটি হবে আন্তর্জাতিক মানের গবেষণাভিত্তিক প্রতিষ্ঠান। পড়ালেখার মানোন্নয়নের পাশাপাশি চিকিৎসা শাস্ত্রের গবেষণাকে বেশি প্রাধান্য দেবে এ বিশ্ববিদ্যালয়।

রবিবার সিলেট মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রমের অগ্রগতি নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানিয়েছেন উপাচার্য ডা. মোর্শেদ আহমদ চৌধুরী।
 
তিনি জানান, চলতি বছরে সিলেট মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভূক্ত করা হয়েছে ওসমানী মেডিকেল কলেজসহ ২টি সরকারি মেডিকেল কলেজ, ৪টি বেসরকারি মেডিকেল কলেজ, ১টি সরকারি নার্সিং কলেজ, ৩টি বেসরকারি নার্সিং কলেজ ও ১টি বেসরকারি ডেন্টাল কলেজসহ মোট ১১টি স্বাস্থ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে। এ বছর থেকে এসব প্রতিষ্ঠানে সিলেট মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন শিক্ষার্থী ভর্তি করা হবে। ইউজিসির অনুমতি নিয়ে সীমিত পরিসরে জনবল নিয়োগ দিয়ে চৌহাট্টাস্থ অস্থায়ী অফিসে চলছে দাপ্তরিক কার্যক্রম। স্থায়ী ক্যাম্পাসের ভূমি অধিগ্রহণের জন্য প্রায় ১৩৮ কোটি টাকা বরাদ্দের অনুমতি পাওয়া গেছে। জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে সেই ভূমি অধিগ্রহণের কার্যক্রম শুরু হয়েছে। 

উপাচার্য ডা. মোর্শেদ জানান, বিশ্ববিদ্যালয় আইন অনুযায়ী ৩৪ সদস্যের সিন্ডিকেট গঠনেরও কাজ এগিয়ে চলছে। ইতোমধ্যে ২১ জনের মনোনয়ন পাওয়া গেছে। বাকি সদস্যদের ব্যাপারেও কাজ চলছে। বাকি সদস্যদের মনোনয়ন পাওয়ার পরই বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট গঠন করা হবে। 
এখনো বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব শিক্ষক নিয়ো দেওয়া সম্ভব না হওয়ায় আপাতত অধিভূক্ত কলেজগুলোর শিক্ষক দিয়ে একাডেমিক কাউন্সিল গঠনের প্রক্রিয়া চলছে। এছাড়া আইন অনুযায়ী ইতোমধ্যে অর্থ, পরিকল্পনা ও উন্নয়ন, সংবিধি প্রণয়ন, একাডেমিক কোঅর্ডিনেটরসহ বেশ কিছু কমিটি গঠন করা হয়েছে। এছাড়া মেডিকেল এডুকেশন  গবেষনা কার্যক্রম পরিচালনার জন্য ‘মেডিকেল এডুকেশন ইউনিট এন্ড রিসার্চ সেল’ গঠন ও চেয়ারম্যান নিযুক্ত করা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ৮টি অনুষদের জন্য ৮ জন ডিনও ইতোমধ্যে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। 

উপাচার্য জানান, ডিপিপি ও মাস্টারপ্ল্যান তৈরির জন্য স্থাপত্য অধিদপ্তরের ২ জন স্থপতি, গণপূর্ত অধিদপ্তরের ২ জন নির্বাহী প্রকৌশলী ও ১ জন কনসালটেন্ট নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। 

বিডি প্রতিদিন/এ মজুমদার


আপনার মন্তব্য