Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : ২৭ মে, ২০১৯ ০৮:৫১
আপডেট : ২৭ মে, ২০১৯ ১৩:৪২

মৌলভীবাজারের নারী আইনজীবীকে হত্যা, আটক ২

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি

মৌলভীবাজারের নারী আইনজীবীকে হত্যা, আটক ২

মৌলভীবাজারের বড়লেখায় আবিদা সুলতানা (৩৫) নামে এক নারী আইনজীবীকে হত্যা করা হয়েছে। রবিবার রাত আনুমানিক আড়াইটার দিকে উপজেলার দক্ষিণভাগ উত্তর ইউপির মাধবগুল গ্রামে নিহতের বাবার বাড়ি থেকে পুলিশ তার লাশ উদ্ধার করেছে। 

রবিবার বেলা ১২ টা থেকে সন্ধ্যা ছয়টার যেকোনো সময় তাকে হত্যা করা হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। নিহত আবিদা উপজেলার দক্ষিণভাগ উত্তর ইউপির মাধবগুল গ্রামের মৃত আব্দুল কাইয়ুমের মেয়ে। 

খবর পেয়ে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। এদিকে, ঘটনার পর থেকে আবিদার বাবার বাড়িতে থাকা ভাড়াটিয়া তানভীর আহমদ (৩০) পলাতক রয়েছেন। তানভিরের মা ও স্ত্রীকে আটক করেছে পুলিশ।

থানা পুলিশ, স্থানীয় ও নিহতের পরিবার সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার দক্ষিণভাগ উত্তর ইউপির মাধবগুল গ্রামের মৃত আব্দুল কাইয়ুমের তিন মেয়ের মধ্যে আবিদা সুলতানা বড়। আবিদা মৌলভীবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের আইনজীবী। আবিদার স্বামী শরীফুল ইসলাম একটি ওষুধ কোম্পানীতে কর্মরত রয়েছেন। তিনি স্বামীর সঙ্গে মৌলভীবাজারে শহরে বসবাস করতেন।
 
এদিকে তাদের পৈতৃক বাড়িতে ভাড়াটিয়া হিসেবে উপজেলার চরকোনা গ্রামের মনির আলীর ছেলে তানভীর আহমদ থাকতেন। গতকাল রবিবার সকাল আনুমানিক সাড়ে ৮টায় আবিদা বিয়ানীবাজারে বোনের বাড়িতে থেকে জরুরী প্রয়োজনে বাবার বাড়িতে যান। বিকেল আনুমানিক চারটার দিকে আবিদার বোন তার মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাচ্ছিলেন না। 

পরে আবিদার বোনেরা তাকে খুঁজতে বাবার বাড়ি দক্ষিণভাগ উত্তর ইউপির মাধবগুল গ্রামে আসেন। বাড়িতে এসে একটি কক্ষ তালা দেখতে পেয়ে তাদের সন্দেহ হয়। পরে তারা পুলিশ নিয়ে গিয়ে তালা ভেঙে বোনের লাশ মেঝেতে পড়ে থাকতে দেখেন। 

বড়লেখা থানার ওসি ইয়াসিনুল হক হত্যার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ওই ভাড়া বাসার দুজন নারীকে আটক করা হয়েছে। বাসার পুরুষ ব্যক্তি পলাতক রয়েছেন। আটককৃত নারীদের একজন ওই পলাতক ব্যক্তির মা এবং আরেকজন তার স্ত্রী। 

তিনি আরও জানান, নিহত নারীর মাথায়, গলার বাঁ পাশে এবং থুঁতনিতে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। ধারণা করা হচ্ছে তার গলায় ওড়না পেঁচিয়ে এবং মাথায় আঘাত করে হত্যা করা হয়েছে। তবে হত্যার কারণ উদঘাটনে পুলিশ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।


বিডি-প্রতিদিন/তাফসীর


আপনার মন্তব্য