শিরোনাম
প্রকাশ : ২৪ নভেম্বর, ২০২০ ০৯:১১
প্রিন্ট করুন printer

বিশ্বনাথে আমনের বাম্পার ফলন

সাইফুল ইসলাম বেগ, বিশ্বনাথ (সিলেট)

বিশ্বনাথে আমনের বাম্পার ফলন

সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলায় এবার আমন ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। এতে কৃষাণ-কৃষাণীর মুখে ফুটে উঠেছে হাসি। তিন দফা বন্যায় চাষাবাদে দুর্ভোগ পোহালেও, ফলন ভালো হওয়ায় বেজায় খুশি তারা। ইতিমধ্যেই অনেকেই শুরু করেছেন ধান কাটা। কেউবা সারছেন ধান তোলার পূর্ব প্রস্তুতি। চলছে ধান কাটা, মাড়াই ও শুকানোর সকল আয়োজন।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্র জানায়, উপজেলার ৮ ইউনিয়নে এ বছর আমন মৌসুমে লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়ে ছিল ১৩ হাজার ২শ ৫ হেক্টর জমি। এর মধ্যে আমন রোপণের সময় তিন দফা বন্যার মুখে পড়েন কৃষকরা। বার বার পানিতে তলিয়ে যায় বীজতলা।

পরে পানি নামলে ফের চারা উৎপাদন করেন তারা। রোপণ করেন বিআর ১১, ব্রি ধান-৫১-৫২-৩২-৩৪-৩৯, বিনা-৭-১১-১৬-১৭ ও নতুন জাতের ব্রি ধান ৮৭ ও ৭২। এর মধ্যে ব্রি ৮৭ জাতের ধানের ফলন সবচেয়ে ভালো হয়েছে। অন্য বছর ইঁদুর-পোকা-মাকড়ের আক্রমণ ও রোগবালাই দেখা দিলেও এ বছর এগুলোর উপদ্রব ছিল কম। তাছাড়া ভালো ফলন হওয়ায় পেছনে, বন্যায় জমিতে পলি পড়াও অন্যতম একটি কারণ।

বাউসী গ্রামের কৃষক মতিন মিয়া জানান, বন্যা ও বৃষ্টির কারণে আমন চাষাবাদ নিয়ে খুবই দু:শ্চিন্তায় ছিলাম। যে প্রত্যাশায় এতো পরিশ্রম, এবার তা পূর্ণ হয়েছে। আশারাখি খরচ পুষিয়ে লাভ হবে।

এ বিষয়ে কথা হলে বিশ্বনাথ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রমজান আলী ‘বাংলাদেশ প্রতিদিন’কে বলেন, বন্যায় প্রাথমিক ভাবে চারা উৎপাদনের সময় কিছুটা সমস্যার সৃষ্টি হয়েছিল। নষ্ট হয় বীজতলাও। পরে আর কোন সমস্যা হয়নি। বৃষ্টি থাকায় ধানের গাছও বড় হয় দ্রুত। এবছর ভালো ফলন হওয়ায় সাময়িক ক্ষতিটা পুষিয়ে নিতে পারবেন কৃষকরা।

বিডি-প্রতিদিন/সালাহ উদ্দীন 


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর