৪ নভেম্বর, ২০২১ ১৯:৪০

বরিশালে ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগে বিদ্রোহী প্রার্থীর ছড়াছড়ি

নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল

বরিশালে ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগে বিদ্রোহী প্রার্থীর ছড়াছড়ি

ফাইল ছবি

দ্বিতীয় ও তৃতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচনে বরিশাল জেলায় আওয়ামী লীগে বিদ্রোহী প্রার্থীর ছড়াছড়ি। দুই ধাপে ১৭টি ইউনিয়নের মধ্যে তিনটিতে স্বতন্ত্র লেবাসে অংশ নিচ্ছেন বিএনপি’র ৩ নেতা। আওয়ামী লীগ,  জাতীয় পার্টি, ওয়ার্কার্স পার্টি এবং ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থীরাও রয়েছেন প্রতিদ্বন্দ্বিতায়। বরিশালে ইউপি নির্বাচনে এখন পর্যন্ত কোনো সহিংসতার ঘটনা ঘটেনি।

দ্বিতীয় ধাপে আগামী ১১ নভেম্বর বরিশাল জেলার ৩টি উপজেলার ১২টি ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এর মধ্যে বরিশাল সদরে ৬টি ইউনিয়ন, আগৈলঝাড়ায় ৫টি এবং বানারীপাড়ায় ১টি ইউনিয়নে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

সদরের ৬টি ইউনিয়নের মধ্যে শায়েস্তাবাদে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর পাশাপাশি আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী প্রার্থী আছেন একজন। রয়েছেন ইসলামী আন্দোলনের একজন প্রার্থী। রায়পাশা-কড়াপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ প্রার্থী ছাড়াও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী রয়েছেন একজন। এছাড়া স্থানীয় বিএনপি’র সদস্য মনিরুজ্জামান স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

চরকাউয়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর পাশাপাশি আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী রয়েছেন দুজন। চাঁদপুরা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর পাশাপাশি আওয়ামী লীগের একজন বিদ্রোহী প্রার্থী রয়েছেন। চরমোনাই ইউনিয়নেও আওয়ামী লীগ প্রার্থীর পাশাপাশি প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন একজন আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী প্রার্থী। চন্দ্রমোহন ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ছাড়াও প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন বিএনপি’র স্থানীয় এক নেতা।

দ্বিতীয়ধাপে বানারীপাড়া উপজেলার সৈয়দকাঠী ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর পাশাপাশি আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী রয়েছেন দু’জন। আগৈলঝাড়া উপজেলায় ৫টি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের একক প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন। যদিও প্রতিটি ইউনিয়নে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থীরা প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

তৃতীয় ধাপে বরিশাল জেলার ৩ উপজেলায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে ৫টি ইউনিয়নে। উজিরপুর উপজেলার ৩টি ইউনিয়নের মধ্যে হারতা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর পাশাপাশি আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী রয়েছেন একজন। ইউনিয়ন বিএনপি’র সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক পদের এক নেতাও এই ইউনিয়নে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন স্বতন্ত্র লেবাসে। গুঠিয়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর পাশাপাশি আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী রয়েছেন দু’জন। বামরাইল ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ প্রার্থী ছাড়াও মাঠে রয়েছেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের একজন প্রার্থী। মুলাদী উপজেলার বাটামারা ইউনিয়নে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন আওয়ামী লীগ এবং ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের একজন করে প্রার্থী।

বাবুগঞ্জ উপজেলার রহমতপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর পাশাপাশি আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী রয়েছেন একজন। জাতীয় পার্টির মনোনয়ন ব্যর্থ হয়েও এই ইউনিয়নে প্রার্থী হয়েছেন জাতীয় পার্টির একজন প্রার্থী। এছাড়া ওয়ার্কার্স পার্টি এবং ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থীরাও প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন।

বিডি প্রতিদিন/এমআই

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর