বুধবার, ১ ডিসেম্বর, ২০২১ ০০:০০ টা

জামিন নিতে আসা পাহাড়ি নেতাকে পুলিশে দিল হাই কোর্ট

নিজস্ব প্রতিবেদক

অর্থ পাচার মামলায় পাহাড়ি সংগঠন ইউপিডিএফ ও জেএসএসের সদস্য শংকদাস বড়ুয়ার (৪৬) আগাম জামিন না দিয়ে শাহবাগ থানা পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছে হাই কোর্ট। গতকাল বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি এ কে এম জহিরুল হকের হাই কোর্ট বেঞ্চ তার জামিন আবেদন সরাসরি খারিজ করে তাকে পুলিশে তুলে দেয়। আদালতে আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মোহাম্মদ হোসেন ও তাপস কুমার বিশ্বাস। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক। পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ সিআইডির এসআই মো. মেহেদী হাসান বাদী হয়ে রাঙামাটি সদর থানায় গত ১৯ অক্টোবর তার বিরুদ্ধে অর্থপাচার মামলাটি করেন। এ মামলায় শংকদাস হাই কোর্টে আগাম জামিনের আবেদন করেন।

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল আমিন উদ্দিন মানিক জানান, শংকদাস বড়ুয়ার আগাম জামিন শুনানির সময় আদালত তার বিষয়ে রাঙামাটি পুলিশ সুপারের কাছে খবর নিতে আমাকে মৌখিক নির্দেশ দেন। কথা বলে অবহিত হওয়ার পর আদালত পুলিশ সুপারকে ভার্চুয়ালি সংযুক্ত হওয়ার নির্দেশ দেয়। তখন রাঙামাটির পুলিশ সুপার মীর মোদদাচ্ছের হোসেন ভার্চুয়াল মাধ্যমে হাই কোর্টে সংযুক্ত হন। আদালত পুলিশ সুপারের মাধ্যমে বিস্তারিত শোনেন। এরপর আদালত আসামির আগাম জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে সরাসরি হাজতে নিতে শাহবাগ থানাকে নির্দেশ দেয়।

মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়, শংকদাস বড়ুয়া মা-বাবা টিম্বার অ্যান্ড সাপ্লাইয়ার ব্যবসার আড়ালে মূলত ইউপিডিএফ ও জেএসএস নামের দুটি সংগঠনের সদস্য হয়ে চাঁদাবাজির মাধ্যমে বিপুল পরিমাণ অবৈধ সম্পদের মালিক হয়েছেন। তার স্বার্থসংশ্লিষ্ট ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের নামে উত্তরা ব্যাংক লিমিটেড, ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড, জনতা ব্যাংক লিমিটেড ও গ্রামীণ ব্যাংক লিমিটেডের বিভিন্ন শাখায় মোট নয়টি ব্যাংক হিসাবের তথ্য পাওয়া যায়। এসব হিসাব থেকে ১৪ কোটি ৩৭ লাখ ৭১ হাজার ৭২৪ টাকা উত্তোলন করা হয়। তার মানি লন্ডারিংয়ের পরিমাণ আনুমানিক ১ কোটি ৩০ লাখ টাকা।

সর্বশেষ খবর