শিরোনাম
শুক্রবার, ২৭ অক্টোবর, ২০২৩ ০০:০০ টা
ছয়টি সংসদীয় আসন

রংপুর জাপায় কলহ সংঘাতের শঙ্কা

নিজস্ব প্রতিবেদক, রংপুর

রংপুর জাপায় কলহ সংঘাতের শঙ্কা

রংপুরের ৬টি সংসদীয় আসনের মধ্যে জাতীয় পার্টির দখলে থাকা গঙ্গাচড়া ও রংপুর সদর আসনে দলীয় কলহ প্রকাশ্যে আসতে শুরু করেছে। জাপা চেয়ারম্যান জি এম কাদেরের ভাতিজা সাবেক এমপি এইচ এম শাহরিয়ার আসিফ গঙ্গাচড়া-১ আসনে দলের মনোনীত প্রার্থী দাবি করে পোস্টার লাগিয়েছেন। এতে জাপা থেকে বহিষ্কৃত রওশনপন্থি মসিউর রহমান রাঙ্গা সমর্থিত নেতা-কর্মী এবং আসিফের সমর্থকরা একে অপরের মুখোমুখি অবস্থানে। যে কোনো সময় অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটতে পারে। অপরদিকে রংপুর সদর আসনের সংসদ সদস্য জাপার প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত এইচ এম এরশাদের ছেলে সাদ এরশাদ। এই আসনে দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে জাপা চেয়ারম্যান জি এম কাদের নির্বাচন করবেন। এমনটা দলীয় নেতা-কর্মীদের মুখে শোনা যাচ্ছে। সম্প্রতি জি এম কাদেরের ঘনিষ্ঠ এক নেতা ইউনিয়ন পর্যায়ের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময় করেছেন। এ সময় ওই ঘনিষ্ঠজন সদর আসন থেকে জি এম কাদের নির্বাচন করবেন উল্লেখ করে সবার সহযোগিতা চান। এটা সাদ এরশাদ অর্থাৎ রওশনপন্থিরা ভালো চোখে দেখছেন না। এনিয়ে রওশন ও কাদেরপন্থিদের মধ্যে চাপা উত্তেজনা রয়েছে। নির্বাচনের আগে এই উত্তেজনা সহিংসতায় রূপ নিতে পারে বলে মনে করছেন স্থানীয়রা।

এদিকে দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে রংপুর-১ গঙ্গাচড়া আসনে যুবসংহতির কেন্দ্রীয় সভাপতি এইচ এম শাহরিয়ার আসিফ নিজেকে জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী হিসেবে সবার কাছে দোয়া চেয়ে পোস্টার লাগিয়েছেন। এতে আসিফের নিজের ছবির সঙ্গে পোস্টারে পার্টির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান প্রয়াত হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ, বর্তমান চেয়ারম্যান জি এম কাদের ও জাতীয় পার্টির লোগো রয়েছে। দলের সিদ্ধান্ত হওয়ার আগেই আসিফ নিজেকে মনোনীত প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা দিয়ে প্রচার-প্রচারণা চালানোর বিষয়টিকে সংগঠন পরিপন্থি হিসেবে দেখছেন রাঙ্গা সমর্থিত স্থানীয় জাতীয় পার্টির নেতারা। এনিয়ে তাদের মধ্যে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে।

উপজেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক রাঙ্গা সমর্থিত আবুল কালাম আজাদ বলেন, নির্বাচনের এখনো তফসিল ঘোষণা করেনি। জাতীয় পার্টির পক্ষ থেকে এ আসনে মনোনয়ন দেওয়া নিয়ে এখন পর্যন্ত কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। মনোনয়ন দেওয়ার আগে পোস্টার লাগানো অপ-প্রচারের অংশ।

এদিকে সদর উপজেলার জাতীয় পার্টির হরিদেবপুর ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মফিজুল ইসলাম বলেন, দলের চেয়ারম্যান জি এম কাদেরের পক্ষ থেকে গত সপ্তাহে আমাদের সঙ্গে মতবিনিময় করা হয়েছে। ওই সভায় জি এম কাদের সদর আসনের প্রার্থী হবেন বলে জানানো হয়েছে। এই নিয়ে অনেকের মধ্যে বিভক্তি রয়েছে। এই বিভক্তি শেষ পর্যন্ত কোথায় নিয়ে যাবে তা সময়ই বলে দেবে।

খলেয়া ইউনিয়ন জাতীয় পার্টির সভাপতি আশিকুর রহমান জি এম কাদের পক্ষ থেকে মতবিনিময় করা হয়েছে বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, আমরা জি এম কাদের কিংবা সাদ এরশাদ বুঝি না। যিনি লাঙ্গল প্রতীক পাবেন তার জন্য কাজ করে যাব। নবগঠিত জেলা আহ্বায়ক কমিটির সদস্যসচিব হাজি আবদুর রাজ্জাক বলেন, দলের চেয়ারম্যানই সব। তিনি যে সিদ্ধান্ত দেবেন তা আমরা মেনে নেব।

 

 

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর