শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ১৭ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৬ নভেম্বর, ২০১৮ ২৩:৫৬

‘রঙিন স্কুলে’ বদলে যাচ্ছে শিক্ষার পরিবেশ

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি

‘রঙিন স্কুলে’ বদলে যাচ্ছে শিক্ষার পরিবেশ

গ্রামের আর দশটা বিদ্যালয়ের মতোই সাদামাটা ছিল শংকরচন্দ্র সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। বিদ্যালয়টির শিক্ষার মানোন্নয়নের জন্য পরীক্ষামূলক পদক্ষেপ নেন সদর উপজেলার ইউএনও ওয়াশীমুল বারী। স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের সহযোগিতায় নানা রঙে রাঙিয়ে তুললেন বিদ্যালয়টি। এখন বিদ্যালয়ের শিক্ষার পরিবেশে এসেছে উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন। কমেছে শিক্ষার্থী ঝরে পড়ার হার। ছাত্রছাত্রী উপস্থিতি ও ফল আগের চেয়ে ভালো। এ বিদ্যালয়ের সফলতায় উপজেলায় আরও তিনটি বিদ্যালয়কে রঙিন বিদ্যালয়ে রূপান্তরিত করা হয়েছে।

শংকরচন্দ্র গ্রামবাসী জানান, রঙিন স্কুলে বদলে যাচ্ছে চুয়াডাঙ্গার প্রাথমিক শিক্ষার পরিবেশ। বিদ্যালয়ের সর্বত্রই নানা রঙের আলপনা আর উপদেশ বাণীতে উদ্বুদ্ধ হচ্ছে শিক্ষার্থীরা। রঙের ছটায় আকৃষ্ট হয়ে শিক্ষার প্রতি তাদের আগ্রহ বাড়ছে। শংকরচন্দ্র প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক মুক্তার আলী বলেন, ‘বিদ্যালয়ের ভবন ও সীমানা দেয়ালে আঁকা আছে পাঠবিষয়ক বিভিন্ন ছবি। শিক্ষার্থীরা এ সব ছবি দেখে আগেই পাঠের ধারণা পাচ্ছে। এতে শ্রেণিকক্ষে পাঠে বেশি মনযোগী হচ্ছে তারা।’ বিদ্যালয়ের আরেক শিক্ষক শাহনাজ পারভীন জানান, আগে যেসব শিক্ষার্থী নিয়মিত স্কুলে আসতে চাইতো না, তারাও এখন নিয়মিত আসছে। ফলে শিক্ষার পরিবেশে উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন এসেছে। প্রধান শিক্ষক আব্দুল মোমিন বলেন, ‘বিদ্যালয়টি রঙিন হওয়ায় শিক্ষার্থীরা আনন্দের সঙ্গে ক্লাসে আসে এবং পাঠ গ্রহণ করে।’ শংকরচন্দ্র ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান বলেন, ‘সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার আহ্বানে পরিষদের এলজিএসপি শাখার অর্থায়নে বিদ্যালয়টিকে রাঙিয়ে তোলা হয়। রঙিন স্কুলটির সফলতায় নানা মহল থেকে আমরা প্রশংসিত হয়েছি।’ ইউএনও ওয়াশীমুল বারী বলেন, ‘বিদ্যালয়চত্বর নানা রঙে রাঙিয়ে তোলার ফলে শিক্ষার্থীদের মানসিক পরিবর্তন হচ্ছে। তারা পাঠে মনযোগী হচ্ছে।’ শংকরচন্দ্র প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সফলতায় উপজেলার নেহালপুর, সরোজগঞ্জ ও বড়শলুয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়কে রঙিন স্কুলে রূপান্তরিত করা হয়েছে বলে জানান এ কর্মকর্তা।


আপনার মন্তব্য