শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ১০ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২৩:২৪

শাক তুলতে গিয়ে গণধর্ষণের শিকার কিশোরী

কুমিল্লা প্রতিনিধি

কুমিল্লার মেঘনা উপজেলার মানিকারচর গ্রামে বাড়ির পাশে শাক তুলতে গিয়ে কিশোরী গণধর্ষণের শিকার হয়েছে। পুলিশ সম্রাট নামের একজনকে গ্রেফতার করে। গতকাল আদালতের মাধ্যমে তাকে কারাগারে প্রেরণ করে। এ বিষয়ে ধর্ষিতার মা  মেঘনা থানায় গত রবিবার তিনজনকে আসামি করে মামলা  করেন। মামলা সূত্র জানায়, গত শনিবার বিকালে ওই কিশোরী তার ৮ বছরের ভাগ্নিকে নিয়ে বাড়ির পাশে পুকুর পাড়ে শাক তুলতে যায়। পথে মানিকারচর গ্রামের হৃদয় আহমেদ, হৃদয় ও সম্রাট কিশোরীকে পথরোধ করে। সম্রাট কিশোরীর ভাগ্নির মুখ চেপে দূরে নিয়ে যায়, অন্য দুজন কিশোরীর মুখে গামছা বেঁধে ধর্ষণ করে। ধর্ষিতার চৎকারে মা ও বড় বোন এগিয়ে  গেলে ধর্ষকরা পালিয়ে যায়। কিশোরীর মা জানান, আমরা গরিব মানুষ, স্বামী অসুস্থ। আমি ২০০ টাকা রোজে প্রতিদিন মাটি কাটার লেবার হিসেবে কাজ করি। এর আগেও অনেকবার ওরা রাস্তাঘাটে আমার মেয়েকে উত্ত্যক্ত করেছে। মান সম্মানের ভয়ে কাউকে কিছু বলিনি।

মেয়ের এই সর্বনাশের উপযুক্ত বিচার চাই। মেঘনা থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল মজিদ বলেন, আমরা আসামি সম্রাটকে গ্রেফতার করেছি। সে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছে। তাকে কুমিল্লার আদালতে প্রেরণ করেছি। অন্য আসামিদের ধরার  চেষ্টা চলছে। ধর্ষণের শিকার ওই কিশোরীর  মেডিকেল চেকআপের জন্য আলামতসহ কুমিল্লা পাঠিয়েছি।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর