রবিবার, ১ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ টা

বসুন্ধরা গ্রুপের খাদ্য সহায়তা পেলেন ৪ হাজার মানুষ

আব্দুর রহমান টুলু, বগুড়া

বসুন্ধরা গ্রুপের খাদ্য সহায়তা পেলেন ৪ হাজার মানুষ

বগুড়ায় চতুর্থ দিনে আরও তিনটি উপজেলার ৯০০ অসহায় পরিবারে খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দিল বসুন্ধরা গ্রুপ। এরমধ্যে গত চার দিনে টানা শ্রম দিয়ে বগুড়ার ১২টি উপজেলার অতি দরিদ্র, করোনায় কর্মহীন, অসহায়, ছিন্নমূলসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নিম্নআয়ের ৪ হাজার পরিবারকে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হলো। প্রতিটি বস্তায় ১৬ কেজি করে খাবার সামগ্রী হিসেবে ৪ হাজার মানুষের কাছে ৬৪ হাজার কেজি খাদ্যসামগ্রী পৌঁছানো হলো। দেশের শীর্ষস্থানীয় ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান বসুন্ধরা গ্রুপের সহযোগিতায় কালের কণ্ঠের পাঠকদের নিয়ে গঠিত সামাজিক সংগঠন শুভসংঘ থেকে বগুড়ায় শেষ দিনে জেলার নন্দীগ্রাম, কাহালু ও শিবগঞ্জ উপজেলায় খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়। প্রতিটি উপজেলায় ৩০০ প্যাকেট করে খাবার বিতরণ করা হয়। এর মধ্যে প্রথম দিন ২৮ জুলাই বগুড়ার সদর উপজেলায় ৭০০ প্যাকেট বিতরণ করা হয়। এরপর থেকে ধারাবাহিকভাবে গত চার দিনে তিনটি করে ১২টি উপজেলায় খাবারগুলো বিতরণ করা হলো। গতকাল শেষ দিনে জেলার নন্দীগ্রাম উপজেলার মনসুর হোসেন ডিগ্রি কলেজ মাঠে স্বাস্থ্যবিধি মেনে বসুন্ধরা গ্রুপের সহায়তায় এই খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেন শুভসংঘের সদস্যরা। খাদ্যসামগ্রী বিতরণ কার্যক্রমে উপস্থিত হয়ে নন্দীগ্রাম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শিফা নুসরাত বলেন, আমাদের উপজেলায় বসুন্ধরা গ্রুপ অসহায়দের খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করায় ধন্যবাদ জানাচ্ছি। আমাদের উপজেলায় ৩০০ অসহায় পরিবারকে খাদ্য সহায়তা প্রদান করায় কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। যে খাদ্যসামগ্রী আপনাদের দেওয়া হলো এটি দিয়ে আপনারা ৭-১০ দিন খেতে পারবেন। এ সময় আপনারা কেউ ঘর থেকে বের হবেন না। সবাই মাস্ক পরবেন। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলবেন। উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক সমাজসেবক আনোয়ার হোসেন রানা, উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শ্রাবণী আক্তার বানু, কালের কণ্ঠ শুভসংঘের পরিচালক জাকারিয়া জামান, কালের কণ্ঠ ব্যুরো প্রধান লিমন বাসার, নিউজ টোয়েন্টিফোরের বগুড়া প্রতিনিধি সাংবাদিক আবদুস সালাম বাবু, কালের কণ্ঠ বগুড়ার ফটো সাংবাদিক ঠান্ডা আজাদ, বগুড়া জেলা শুভসংঘের উপদেষ্টা মোস্তফা মাহমুদ শাওন, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য শরীফ মাহ্দী আশরাফ জীবন, শিশির মোস্তাফিজ, নন্দীগ্রাম পৌর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মুক্তার হোসেন বকুল। এ ছাড়া গতকাল সকালে কাহালু উপজেলার কাহালু সরকারি কলেজ মাঠে স্বাস্থ্যবিধি মেনে বসুন্ধরা গ্রুপের সহায়তায় ৩০০ অসহায় ও দুস্থ পরিবারের মধ্যে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়। ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রমে উপস্থিত হয়ে কাহালু উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আল হাসিবুল হাসান সুরুজ বলেন, দেশ এখন ক্রান্তিকাল পার করছে। সমাজের খেটে খাওয়া মানুষ যখন অসহায় হয়ে পড়েছে সেই মুহূর্তে বসুন্ধরা গ্রুপ সরকারের পাশাপাশি এসব অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে। তাই তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই। কালের কণ্ঠ শুভসংঘ এই খাদ্যসামগ্রী বিতরণে দেশব্যাপী অক্লান্ত পরিশ্রম করছে তাই তাদেরও ধন্যবাদ জানাই। ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রমে আরও উপস্থিত ছিলেন কাহালু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাসুদুর রহমান, কাহালু সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. আবুল হোসেন তালুকদার, কাহালু থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আমবার হোসেন, শুভসংঘের নন্দীগ্রাম শাখার উপদেষ্টা আনোয়ার হোসেন রানা, প্রভাষক মাকসুদুর রহমান। গতকাল সকালে জেলার শিবগঞ্জ পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে স্বাস্থ্যবিধি মেনে বসুন্ধরা গ্রুপের সহায়তায় ৩০০ পরিবারের মধ্যে খাদ্যসামগ্রী প্রদান করা হয়। খাদ্যসামগ্রী পাওয়ার পর মাথায় করে চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র সুলতান ইসলাম নিয়ে যাচ্ছে। জানতে চাইলে সে জানায়, জন্মের এক বছর পরেই পরিবার ছেড়ে চলে গেছেন বাবা নাজমুল হক। প্রতিবন্ধী মা সুলতানা বেগমকে নিয়ে চলছে তাদের মানবেতর জীবনযাপন। সুলতানের এক মামা ছাড়া দেখার কেউ নেই। বসুন্ধরা গ্রুপের খাদ্যসামগ্রী নিতে এসে সে চাল, ডাল আর আটার একটি বস্তা হাতে পেয়ে খুশি মনে মাথায় তুলে নিয়ে যাচ্ছে।

ধন্যবাদ জানিয়ে বলছে, ‘বসুন্ধরা গ্রুপের এই বস্তা নিয়্যা মার হাতে দিব। অনেক দিন খাবার পারমু। মা খুশি হবে।’ বৃদ্ধ জিলাতুন খাতুনের হাতেও তুলে দেওয়া হয় শুভসংঘের খাদ্যসামগ্রী। তিনি বলেন, ‘অনেক দিন আগে স্বামী মরে গেছে। দুই সন্তান কেউ ভাত দেয় না। তোমাকের বসুন্ধরার মালিক আজ খাবার দিছে। তোমাকের জানমাল ভালো করুক। দুধে-ভাতে থাকুক। আল্লা ভালো করুক।’ খাদ্যসামগ্রী বিতরণ কার্যক্রমে উপস্থিত হয়ে শিবগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান ফিরোজ আহমেদ রিজু বলেন, করোনা দেড় বছর ধরে আমাদের ভোগাচ্ছে। সাধারণ মানুষ বেকার হয়ে পড়েছে। খুব কষ্টে দিনাতিপাত করছে। গত বছর সরকারের পাশাপাশি বিভিন্ন শিল্পগোষ্ঠী সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছিল। দেশের এই ক্রান্তিকালে বসুন্ধরা গ্রুপ কালের কণ্ঠ শুভসংঘের মাধ্যমে সাধারণ মানুষকে খাবার সহায়তা দিচ্ছে। আমি তাদের প্রতি কৃতজ্ঞ জানাই। উপস্থিত ছিলেন পৌরসভার মেয়র মো. তৌহিদুর রহমান মানিক, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান রিজ্জাকুল ইসলাম রাজু, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলামসহ শুভসংঘের সদস্যরা।

সর্বশেষ খবর