শনিবার, ৭ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ টা

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ক্লাসরুম এখন ধানের গোডাউন!

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ক্লাসরুম এখন ধানের গোডাউন!

করোনা মহামারীর কারণে প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে দীর্ঘ সময় ধরে। এ সুযোগ নিয়ে কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলার সাতদরগাহ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কয়েকটি ক্লাসরুম এখন স্থানীয় ধান ব্যবসায়ীদের দখলে রয়েছে। শুধু তাই নয়, রীতিমতো ক্লাসরুম এখন গোডাউনে পরিণত হয়েছে। এ  ছাড়া ওইসব ক্লাসরুমে ব্যবসায়ীরা প্রতিদিন দাঁড়িপাল্লা কিংবা ধান পরিমাপক মিটার দিয়ে ধান পরিমাপও করছেন। দেখলে মনে হয় স্কুলঘর হচ্ছে ধানের ব্যবসায়িক কেন্দ্র। তবে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক দ্রুত এগুলো সরিয়ে দেওয়ার কথা জানান। সরেজমিন জানা গেছে, উপজেলার থেতরাই ইউনিয়নের সাতদরগাহ  সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তিনটি ক্লাসরুমে শিক্ষার্থীদের বসার বেঞ্চগুলো এক পাশে একটি পর একটি রেখে সেখানে ধান গুদামজাত করা হয়েছে। জানা গেছে, করোনাকালীন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকার সুযোগে ওই সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি নজরুল ইসলামের ভাগিনা ধান ব্যবসায়ী কামরুজ্জামান নিজের ব্যবসার ধান সেখানে রেখেছেন। ব্যবহার করছেন তার ব্যবসায়িক ধান সংরক্ষণের জন্য বিদ্যালয়ের ক্লাসরুম। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মিজানুর রহমান এ ঘটনা জানেন না বলে দাবি করলেও তা সরানোর ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন বলে জানান। তিনি বলেন, বিষয়টি আমার জানা ছিল না। শারীরিক অসুস্থতার জন্য আমি বেশ কিছুদিন ধরে বিদ্যালয়ে যেতে পারিনি। তবে তিনি ধানগুলো অস্থায়ীভাবে শুকানোর জন্য বৃষ্টি এলে স্কুলঘরে রাখার ব্যাপারে শুনেছেন বলে জানান। এলাকাবাসীর অভিযোগ, বেশ কিছুদিন ধরে বিদ্যালয়ের ক্লাসরুমে ধান গুদামজাত করে  বিক্রি করে আসছেন ধান ব্যবসায়ী কামরুজ্জামান। এমনকি তিনি সেখানে ধান ওজন করে কেনাবেচাও করেন বলে অভিযোগ করা হয়। এ ব্যাপারে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. শহীদুল ইসলাম জানান, করোনাকালীন বিদ্যালয় বন্ধ থাকলেও সরকারি নির্দেশানুযায়ী বিদ্যালয় খোলার জন্য সার্বক্ষণিক প্রস্তুতি রাখতে সব প্রধান শিক্ষকদের বলা হয়েছে। এর পরও বিদ্যালয়ের ক্লাসরুমে ধান মজুদ রাখতে দেওয়া অবহেলার শামিল।