শিরোনাম
প্রকাশ : ৫ জুন, ২০২১ ১৭:৪৭
প্রিন্ট করুন printer

ভারত থেকে দেশে প্রবেশের সময় সাতক্ষীরা সীমান্তে আটক ৭

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি:

ভারত থেকে দেশে প্রবেশের সময় সাতক্ষীরা সীমান্তে আটক ৭
প্রতীকী ছবি
Google News

অবৈধ ভাবে ভারত থেকে বাংলাদেশে প্রবেশের সময় সাতক্ষীরা সীমান্ত থেকে এক মানব পাচারকারীসহ সাত বাংলাদেশি নাগরিককে আটক করেছে বিজিবি। তাদেরকে সাতক্ষীরা ও কলারোয়ার বিভিন্ন সীমান্ত থেকে আটক করা হয়। করোনা সংক্রমণ এড়াতে তাদেরকে বিভিন্ন প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়। এ নিয়ে গত এক সপ্তাহে ভারত থেকে অবৈধভাবে দেশে ফিরে আসা দুই মানবপাচারকারীসহ ৩৩ নাগরিককে আটক করেছে বিজিবি। জেলার বিভিন্ন সীমান্ত দিয়ে অবৈধভাবে ভারত থেকে মানুষ বাংলাদেশে প্রবেশ করায় করোনার ভেরিয়েন্ট আতংক বাড়ছে সাধারণ মানুষের মধ্যে। 

শুক্রবার রাত থেকে শনিবার সকাল পর্যন্ত সাতক্ষীরার সদর উপজেলার ভোমরা, তলুইগাছা, কুশখালী ও কলারোয়া উপজেলার হিজলদী সীমান্ত থেকে মানব পাচারকারীসহ সাত বাংলাদেশি নাগরিককে আটক করেছে সাতক্ষীরা ৩৩ ব্যাটালিয়নের বিজিবির সদস্যরা। আটককৃতরা হলেন, কলারোয়া উপজেলার ভাদিয়ালী গ্রামের মোশারফ হোসেনের ছেলে মানবপাচারকারী হাসানুর রহমান (২৩), নারায়নগঞ্জ জেলার সাতগ্রামের মৃত মুসলিম খানের স্ত্রী সোনিয়া আক্তার (২২), শরীয়তপুর জেলার চরগাজীপুর গ্রামের সাত্তার মাতবরের স্ত্রী জেসমিন(২৬), সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার সিরাজপুর গ্রামের ওয়াজেদ গাজীর ছেলে আলীম গাজী (২০), যশোর জেলার কেশবপুর থানার সিকারপুর গ্রামের আজিজ সরদারের ছেলে আসাদ সরদার (৪৫), কলারোয়া উপজেলার সুলতানপুর গ্রামের শাহজান মন্ডলের ছেলে আলম হোসেন (৪৫) ও সাতক্ষীরা সদর উপজেলার পদ্মশাখরা গ্রামের মৃত শহিদ সরদারের ছেলে রবিউল ইসলাম (২২)।

সাতক্ষীরা ৩৩ বিজিবি’র ব্যাটেলিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল আল মাহমুদ জানান, ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট সংক্রমন অস্বাভাবিক হারে বৃদ্ধি পাওয়ায় উক্ত ভাইরাস বাংলাদেশে যাতে ছড়িয়ে না পড়ে সে জন্য সীমান্তবর্তী জেলা সাতক্ষীরার ভোমরা, গাজীপুর, কুশখালী, কালিয়ানী, মাদরা, কাকডাঙ্গা ও তলুইগাছা এলাকাগুলো স্পর্শকাতর হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। একই সাথে সীমান্তে কঠোর নজরদারিতে জারী করা হয়েছে। 

তিনি আরো জানান, শুক্রবার রাতে ভোমরা, তলুইগাছা, কুশখালী ও হিজলদী সীমান্ত থেকে অবৈধভাবে ভারত হতে দেশে প্রবেশের সময় এক মানবপাচারকারীসহ সাত বাংলাদেশী নাগরিককে আটক করা হয়েছে। আটককৃতদের জেলা প্রশাসনের তত্ত্বাবধায়নে সদর উপজেলার পদ্মশাখরা, কুশখালী ও কলারোয়া উপজেলার সোনাবাড়ীয়া প্রাথমিক বিদ্যালয় কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে প্রেরণ করা হয়েছে। সেখানে ১৪ দিন কোয়ারেন্টাইন শেষে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করে থানায় সোপর্দ করা হবে।

বিডি প্রতিদিনি/হিমেল

এই বিভাগের আরও খবর