১২ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ১৪:৩৪

রাস্তা ভেঙে নদী গর্ভে, চলাচলে বিঘ্ন

মো. নাসির উদ্দিন, টাঙ্গাইল

রাস্তা ভেঙে নদী গর্ভে, চলাচলে বিঘ্ন

টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী উপজেলার পাইস্কা ইউনিয়নে বৈরান নদীর পাশের পাঁকা রাস্তায় তীব্র ভাঙন দেখা দিয়েছে। প্রতিনিয়তই এ রাস্তা ভেঙে নদী গর্ভে চলে যাচ্ছে। মানুষ প্রয়োজনের তাগিদে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে। দুর্ঘটনার ভয়ে মানুষ রাতে চলাচল বন্ধ রেখেছেন। রাস্তাটি ভেঙে পড়ায় চলাচল করতে পারছে না কোন জরুরি সেবা গ্রহণকারী যানবাহন। রাস্তাটি  ধনবাড়ী উপজেলার পাইস্কা ইউনিয়নের ভাতকুড়া গ্রামের ভাতকুড়া রাস্তা। পাইস্কা বাজার থেকে রাস্তাটি সংযুক্ত হয়ে ওই গ্রাম দিয়ে চলে গেছে পার্শ্ববর্তী মুশুদ্দি ও বীরতারা ইউনিয়নে। তারা রাস্তাটি দিয়ে চলাচল করে থাকেন।

কৃষকরা তাদের উৎপাদিত কৃষিপণ্য নিয়ে এ রাস্তায় চলাচল করে। এ অবস্থায় যাতায়াতে খুবই অসুবিধা ভোগ করছে কৃষকরা। এ ভাঙনের ফলে যে কোনো সময় যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যেতে পারে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, পাকা রাস্তা ভেঙে নদী গর্ভে চলে যাচ্ছে। যাতায়াতকারীরা ভোগান্তির শিকার হয়ে চলাচল করছেন। নদীতে বর্ষার পানি আসায় আরও তীব্র আকার ধারণ করে ভাঙন দেখা দিয়েছে। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যাতায়াত করছেন তারা। আবার অনেক পথচারী পায়ে হেঁটে যেতেও ভয় পাচ্ছে।

এ ব্যাপারে স্থানীয় বাসিন্দা মুসলিম উদ্দিন, মো. আজমত আলী, আ: রশিদ ও বেলাল হোসেন জানান, এ রাস্তাটি দিয়ে চলাচল করা খুব ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। প্রতিদিনই রাস্তাটি ভেঙে-ভেঙে নদীতে চলে যাচ্ছে। ছোট রিকশা-ভ্যান নিয়েই চলাচল করা কঠিন। অসুস্থ রোগী নিয়ে কোন জরুরি সেবার যানবাহন চলাচল করা দূরহ। ঝুঁকি নিয়ে দিনের বেলায় চলাচল করা গেলেও রাতে চলাচল বন্ধ। এভাবে ভাঙতে থাকলে যে কোন সময় তিন ইউনিয়নের প্রায় ২০ থেকে ২৫ হাজার লোকের যাতায়াত বন্ধ হয়ে যাবে।

পাইস্কা উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মো. রবিউল আলম রুবেল বলেন, এলাকাবাসীর চলাচলের স্বার্থে রাস্তাটি চলাচলের উপযোগী করা প্রয়োজন। না হলে যে কোন সময় যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যেতে পারে।

পাইস্কা ইউনিয়ন পরিষদের মহিলা সদস্য ফজিলা বেগম জানান, ‘পানি উন্নয়ন বোর্ড ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে বৈরান নদী খনন করে। এলাকাতে নদীর মাটি কেটে বাঁধ নিমার্ণের ফলে রাস্তাটির এ দুরবস্থা।’

এ ব্যাপারে পাইস্কা ইউনিয়ন পরিষদের সচিব মো. আব্দুল বারি জানান, ‘নদীতে পানি থাকায় এখন রাস্তাটি মেরামত করা সম্ভব না। পানি কমে গেলে মেরামতের ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

ধনবড়ী উপজেলা প্রকৌশলী জয়নাল আবেদীন জানান, ‘রাস্তাটি পরিদর্শন করা হয়েছে। নদীতে পানি থাকায় রাস্তা সংস্কারের কাজ করা যাচ্ছে না। নদীর পানি কমে গেলে সংস্কারের কাজ শুরু হবে।’ 


বিডি প্রতিদিন/ফারজানা

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর