Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১০ জুলাই, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ৯ জুলাই, ২০১৮ ২৩:৩১

চট্টগ্রামে চিকিৎসক ধর্মঘট

এ ব্ল্যাকমেইলিং গ্রহণযোগ্য নয়

চট্টগ্রামে চিকিৎসক ধর্মঘট

চট্টগ্রামের সব বেসরকারি হাসপাতালের চিকিৎসাসেবা অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ রাখা হয়েছে। চিকিৎসকের ভুল চিকিৎসায় এক শিশুর মৃত্যুর পর বহুল আলোচিত ম্যাক্স হাসপাতালসহ বেশকিছু বেসরকারি ক্লিনিকে ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান চালানোর পর বেসরকারি হাসপাতাল মালিকরা এ পাল্টা পদক্ষেপ নেন। এ সিদ্ধান্তের সঙ্গে একাত্ম ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের চট্টগ্রাম শাখা। অভিযানকালে অদক্ষ অনভিজ্ঞ ডাক্তার নার্স দ্বারা হাসপাতাল পরিচালনার জন্য ম্যাক্স হাসপাতালকে ১০ লাখ টাকা জরিমানা করে ভ্রাম্যমাণ আদালত। অন্য একটি বেসরকারি হাসপাতাল সিএমসিআরের অপারেশন থিয়েটারে মেয়াদোত্তীর্ণ ইনস্ট্রুমেন্ট, লাইসেন্স ছাড়া ফার্মেসি পরিচালনাসহ নানা অনিয়মের জন্য ৪ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। র‌্যাব, স্বাস্থ্য অধিদফতর ও ওষুধ প্রশাসন অধিদফতরের সমন্বয়ে পরিচালিত ভ্রাম্যমাণ আদালত হাসপাতালগুলোকে ভবিষ্যতের জন্য সতর্ক করে দেয়। স্মর্তব্য, সাংবাদিক রুবেল খানের আড়াই বছর বয়সী মেয়ে রাইফা গলায় ব্যথা নিয়ে ২৮ জুন বিকালে চট্টগ্রামের ম্যাক্স হাসপাতালে ভর্তি হলে ২৯ জুন রাতে তার মৃত্যু হয়। এর পর থেকে ভুল চিকিৎসায় তার মৃত্যু হয়েছে অভিযোগ করে বিক্ষোভ করেন সাংবাদিকরা। এ ঘটনায় দুটি কমিটি করা হয়। এর মধ্যে সিভিল সার্জনের নেতৃত্বাধীন কমিটি গত বৃহস্পতিবার রাতে তাদের দেওয়া প্রতিবেদনে কর্তব্যরত চিকিৎসক, নার্স ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের দায়িত্বে অবহেলা এবং গাফিলতির প্রমাণ পাওয়ার কথা জানিয়ে তিন চিকিৎসকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ করে। এ প্রতিবেদনের পর ম্যাক্সসহ বিভিন্ন বেসরকারি হাসপাতালে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান চলে। এরই প্রতিবাদে বেসরকারি হাসপাতাল মালিক ও চিকিৎসকরা চিকিৎসাসেবা বন্ধের সিদ্ধান্ত নেন। চিকিৎসকদের কেউ কেউ বেসরকারি হাসপাতাল মালিকদের সিদ্ধান্তকে ব্ল্যাকমেইলিং বলে অভিহিত করেছেন। চিকিৎসা একটি মানবিক পেশা। কিন্তু দেশে ব্যাঙের ছাতার মতো শত শত বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিক গড়ে উঠেছে। সেবা নয়, যেভাবেই হোক রোগী বা তাদের অভিভাবকদের পকেট কাটা তাদের উদ্দেশ্য। অনেক চিকিৎসক রোগীদের ঠিকমতো না দেখেই প্রেসক্রিপশন দেন। চিকিৎসা ক্ষেত্রে বিদ্যমান নৈরাজ্যের অবসানে সরকার কড়া পদক্ষেপ নেবে— এমনটিই দেখতে চায় দেশবাসী।


আপনার মন্তব্য