শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:৪৮

টাইগারদের লঙ্কা বধ

সাফল্যের ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকুক

মরু শহর দুবাইয়ে অনুষ্ঠিত এশিয়া কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টে অবিস্মরণীয় সূচনা করেছে টাইগাররা। শুরুতে হোঁচট খেয়ে দলে সেরা ব্যাটিং ভরসা তামিম ইকবাল আহত হয়ে সরাসরি হাসপাতালে যেতে বাধ্য হন। ১৬ মাস পর মাঠে নেমে বোলিংয়ে জাদুকরী সাফল্য দেখান শ্রীলঙ্কার বোলার লাসিথ মালিঙ্গা। মাত্র ২৩ বলে কেড়ে নেন বাংলাদেশের মূল্যবান ৪টি উইকেট। তারপরও ১৩৭ রানের বিশাল ব্যবধানে সাবেক বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন শ্রীলঙ্কাকে হারিয়েছে মাশরাফি বাহিনী। বাংলাদেশ প্রথমে ব্যাটিংয়ে নেমে ৪৯.৩ ওভারে ২৬১ রান করতে সক্ষম হয়। অবিশ্বাস্য হলেও সত্যি এই বিশাল জয়ে অনুপ্রেরণার উৎস হিসেবে ভূমিকা রেখেছেন তামিম ইকবাল। মাত্র দুই রান করলেও তিনি ছিলেন সত্যিকারের নায়ক। চার বলে দুই রান করার পর মালিঙ্গার বলে গুরুতর আহত হন তামিম। ভাঙা হাতের চিকিৎসায় তাকে হাসপাতালে যেতে হয়। পরবর্তীতে দলের ৯ নম্বর উইকেটে যখন ২২৯ রান তখন তিনি মাঠে নামেন। সেখান থেকে মুশফিকের সঙ্গে জুটি বেঁধে ২৬১ রানের লড়াকু ইনিংস করতে দলকে সাহায্য করেন। এ জুটিতে একটি রান না করলেও তামিম সঙ্গ দিয়েছেন বলেই মুশফিকের পক্ষে আরও ৩২ রান করা সম্ভব হয়। দুবাইয়ে লঙ্কা বাহিনীর বিরুদ্ধে মুশফিকুর রহিম খেলেছেন ১৪৪ রানের অসাধারণ এক ইনিংস। ১৫০ বলে ১১ বাউন্ডারি ও ৪টি ছক্কায় সাজানো অনবদ্য এক সেঞ্চুরি। ওয়ানডের প্রথম হাফ সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন মোহাম্মদ মিথুন। তিনি খেলেছেন ৬৩ রানের দারুণ এক ইনিংস। মুশফিকের সঙ্গে তার ১৩১ রানের জুটিতে তৃতীয় উইকেটে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ রানের নতুন রেকর্ড গড়া সম্ভব হয়েছে। দুবাইয়ের মাঠে শনিবার তামিমের ত্যাগ, মুশফিকের শতক ও মিথুনের অর্ধশতকে ২৬১ রানের যে লড়াকু ইনিংস গড়ে বাংলাদেশ তার মোকাবিলায় একের পর এক উইকেট ফেলে সাজঘরে ফিরতে থাকেন সাবেক বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন দলের ক্রিকেটাররা। অধিনায়ক মাশরাফির অনুপ্রেরণাদায়ক নেতৃত্বের পাশাপাশি শনিবার পুরো বাংলাদেশের লড়াকু মনোভাব শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে সবচেয়ে বড় ব্যবধানে জয়ী হওয়ার রেকর্ড সৃষ্টিতে অবদান রেখেছে। এশিয়া কাপের সূচনায় মাশরাফি বাহিনীর বিশাল জয়কে অভিনন্দন। আমাদের প্রত্যাশা পরবর্তী প্রতিটি খেলায় টাইগারদের দৃঢ় প্রত্যয়ের ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকবে। দেশের জন্য তারা বয়ে আনবেন সুনাম।


আপনার মন্তব্য