শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৪ নভেম্বর, ২০১৮ ২৩:২৬

আয়কর মেলা

করবান্ধব পরিবেশ সৃষ্টি হোক

আয়কর মেলা

দেশ পরিচালনা ও উন্নয়নের জন্য সরকার যে অর্থ ব্যয় করে তা আসে দেশবাসীর দেওয়া কর থেকে। বাংলাদেশে এ মুহূর্তে সরাসরি করদাতার সংখ্যা ৩০ লাখ। বিভিন্নভাবে কর দেয় ১ কোটি মানুষ। তবে আয়কর দেওয়ার যোগ্য নাগরিকের সংখ্যা প্রায় ৫ কোটি; যারা আয়করের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হলে দেশের উন্নয়নের গতি অন্তত তিন গুণ বেড়ে যাবে। দারিদ্র্য বিমোচনে অর্জন হবে বড় ধরনের সাফল্য। যারা কর দেন তারা যাতে সন্তুষ্ট চিত্তে কর দিতে পারেন এবং যারা কর দেন না তারা যাতে করদানে উৎসাহী হন তা নিশ্চিত করতে বর্তমান সরকারের আমলে করবান্ধব পরিবেশ নিশ্চিত করার অংশ হিসেবে আয়োজন করা হচ্ছে আয়কর মেলা। গত মঙ্গলবার করদাতার উপচে পড়া ঢলে প্রথম দিনেই জমে উঠেছে আয়কর মেলা। মেলা শুরুর আগেই কয়েক হাজার করদাতা ও দর্শনার্থীর সরব উপস্থিতিতে রাজধানীর অফিসার্স ক্লাবপ্রাঙ্গণ উৎসবমুখর হয়ে ওঠে। করমেলায় অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, একসময় কর দেওয়ায় অনীহা ছিল। সবাই মনে করত, কর দিলে সারা জীবনের জন্য প্যাঁচে পড়ে গেলাম। এ মনোভাবে পরিবর্তন এসেছে। এখন করদাতার সংখ্যা ৩০ লাখের বেশি। তবে বিভিন্নভাবে ১ কোটি মানুষ কর দেয়। উন্নয়ন এগিয়ে নিতে এই ১ কোটির সঙ্গে আরও ৪ কোটি মানুষ কর দিলে সরকার জনগণকে যে সেবা দেয় তার ব্যাপ্তি আরও বাড়ানো যাবে। আয়কর মেলার প্রথম দিনেই মোট ২১৮ কোটি ৪২ লাখ ৭৭ হাজার ৪৮ টাকা আদায় করেছে এনবিআর। রাজধানী ঢাকাসহ দেশের আট বিভাগ, চার জেলা ও সাত উপজেলা এ মোট ১৯টি স্পটে আয়কর মেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। আয়কর মেলায় বিপুলসংখ্যক মানুষের উৎসবী পরিবেশে অংশগ্রহণ প্রমাণ করেছে আয়কর দেওয়ার যোগ্যতা যারা রাখেন তাদের এক বড় অংশই কর দিতে আগ্রহী। কিন্তু সদিচ্ছা থাকলেও হয়রানির ভয়ে অনেকেই কর দিতে চান না। এ আতঙ্কের অবসানে আয়কর অফিসগুলোয় করদাতাবান্ধব পরিবেশ নিশ্চিত করতে হবে। আয়কর কর্মকর্তাদের আচরণেও পরিবর্তন আনা দরকার। আয়কর অফিসে মধ্যস্বত্বভোগীদের যে দৌরাত্ম্য রয়েছে তা থামানোও জরুরি।


আপনার মন্তব্য