শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ৩০ জুলাই, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৯ জুলাই, ২০১৯ ২৩:২৩

পথচলার গাইডলাইন আল কোরআন

মুহম্মদ আশরাফ আলী

পথচলার গাইডলাইন আল কোরআন

আল কোরআন সুনিশ্চিতভাবে সৃষ্টিজগতের সবকিছুর স্রষ্টা সর্বশক্তিমান আল্লাহর বাণী। কোরআন যখন নাজিল হয় তখন এটি আল্লাহর বাণী কিনা তা নিয়ে অবিশ্বাসীরা সংশয় সৃষ্টির চেষ্টা চালায়। এ সংশয়কে চ্যালেঞ্জ করা হয় আল্লাহর পক্ষ থেকে। অবিশ্বাসীদের পাল্টা চ্যালেঞ্জ দিয়ে বলা হয়, কোরআন যদি আল্লাহর কালাম না হয়ে থাকে তবে তারা সবাই মিলে চেষ্টা করে এমন একটি সূরা নিয়ে আসুক। সূরা ইউনুসের ৩৭ নম্বর আয়াতে স্পষ্টভাবে বলা হয়, ‘এ কোরআন আল্লাহ ছাড়া আর কারোর দ্বারা রচিত নয়, এতে রয়েছে পূর্ববর্তী আসমানি কিতাবসমূহের সমর্থন এবং বিধিবিধানসমূহের ব্যাখ্যা- এতে কোনো সন্দেহ নেই। এটি এসেছে রব্বুল আলামিনের কাছ থেকে।’ পরের আয়াতে বলা হয়েছে, ‘তারা নাকি বলে, সে-ই (মুহাম্মদ) এটি রচনা করেছে। তুমি বলে দাও, তবে এ রকম একটি সূরা আনো দেখি আর আল্লাহ ছাড়া যাকে ইচ্ছা ডাকো যদি তোমরা সত্যবাদী হও।’ কোরআন নাজিল হয়েছিল শেষ নবী হজরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের ওপর। তিনি প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার অধিকারী ছিলেন না। ছিলেন নিরক্ষর। কোরআনে এমন অনেক বিষয়ের অবতারণা করা হয়েছে, তা সেই সময় দূরের কথা, পরবর্তী হাজার বছরেও মানুষের অজানা ছিল। কিন্তু জ্ঞান-বিজ্ঞানের বিকাশের কারণে প্রমাণিত হয়েছে, মানুষের প্রচলিত ধারণার সঙ্গে সে সময় অসংগতিপূর্ণ মনে হলেও কোরআনের ভাষ্যই সঠিক। কোরআনে রয়েছে সঠিক পথে চলার নির্দেশনা। একজন মানুষ তার যাপিত জীবনে কীভাবে চলবে, কী করবে সবকিছুরই নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে এই ঐশীগ্রন্থে। কোরআনে এমন একটি সমাজ প্রতিষ্ঠার তাগিদ দেওয়া হয়েছে যে সমাজে মানুষের ধন অর্জনের অধিকারকে যেমন স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে, তেমনি অর্জিত সম্পদে সমাজের পিছিয়ে পড়া বা গরিব মানুষের হককে স্বীকার করা হয়েছে। এজন্য জাকাতকে ধনীদের জন্য ফরজ বা অবশ্যপালনীয় ঘোষণা করা হয়েছে। সমাজের সম্পন্ন লোকজনকে তাদের সম্পদের অংশবিশেষ সামাজিক কাজে ব্যবহারকে উৎসাহিত করা হয়েছে। কোরআন মানুষকে মানবিক মূল্যবোধে উদ্বুদ্ধ হতে যেমন শিক্ষা দেয় তেমনি মদ-জুয়া-ব্যভিচারের মতো ক্ষতিকর প্রবণতা থেকে দূরে থাকার তাগিদ দেয়। ধর্মীয় ক্ষেত্রে সহনশীলতা ও বাড়াবাড়ি না করার নির্দেশনাও দেওয়া হয়েছে এই গ্রন্থে। পৃথিবীকে সুন্দর ও মানুষের বাসযোগ্য করে তোলার তাগিদ রয়েছে কোরআনে। যেখানে শুধু মানুষ নয়, গাছপালা, পশু-পাখিসহ সব সৃষ্টির প্রতি যত্নবান হওয়ার নির্দেশনা রয়েছে।

লেখক : ইসলামবিষয়ক গবেষক।


আপনার মন্তব্য