শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ২৮ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৭ অক্টোবর, ২০১৯ ২২:০৫

ব্যবসাবান্ধব জীবন বিধান ইসলাম

মুহম্মাদ জিয়াউদ্দিন

ইসলাম ব্যবসাবান্ধব জীবন বিধান। কোরআন ও হাদিস বার বার ব্যবসা-বাণিজ্যের গুরুত্ব প্রদান করেছে এবং তার ফাজায়েল বর্ণনা করেছে। পবিত্র কোরআনে আল্লাহপাক ইরশাদ করেছেন,

১. অতঃপর নামাজ সমাপ্ত হলে তোমরা জমিনে ছড়িয়ে পড় এবং আল্লাহর অনুগ্রহ তালাশ কর এবং আল্লাহকে অধিক স্মরণ কর, যাতে তোমরা সফলকাম হতে পার।

২. হে ইমানদারগণ! তোমরা একে অপরের সম্পদ অন্যায়ভাবে গ্রহণ কর না, কেবল তোমাদের একে অপরের সম্মতিক্রমে যে ব্যবসা করা হয় তা বৈধ।

৩. হে ইমানদারগণ! তোমরা স্বীয় উপার্জন থেকে এবং আমি তোমাদের জন্য যা ভূমি থেকে উৎপন্ন করেছি তা থেকে উৎকৃষ্ট বস্তু ব্যয় কর এবং তা থেকে নিকৃষ্ট বস্তু ব্যয় করতে মনস্থ কর না।

রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের হাদিসেও ব্যবসাকে উৎসাহিত করা হয়েছে।

১. রসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেছেন, সত্যবাদী আমানতদার ব্যবসায়ী নবীগণ, ছিদ্দিকগণ ও শহীদগণের সঙ্গী হবে।

২. নবী (সা.) বলেছেন, কোনো ব্যক্তি এমন উত্তম খানা কোনো সময় খাননি যে খানা নিজ হাতে কামাই করে খেয়েছে এবং হজরত দাউদ (আ.) নিজ হাতে কামাই করা খানা সব সময় খেতেন।

৩. হুজুর (সা.) আরও ইরশাদ করেন যে, সত্যবাদী আমানতদারি ও পরহেজগার ব্যবসায়ী ব্যতীত হাশরের ময়দানে সব ব্যবসায়ী ফাছেক হিসেবে উঠবে। উল্লিখিত আয়াত ও হাদিসের মাধ্যমে ব্যবসা সম্পর্কে ইসলামের দৃষ্টিভঙ্গি সম্পর্কে জ্ঞাত হওয়া যায়। ব্যবসা করা রসুল (সা.)-এর সুন্নত এবং এ ব্যাপারে আল্লাহপাকের সুনির্দিষ্ট নীতিনির্ধারিত হয়েছে। সুন্নত তরিকা মোতাবেক ব্যবসা করতে পারলে তা হবে একটি ইবাদত। কিন্তু বর্তমান বিশ্বে ব্যবসা-বাণিজ্যের সব রাস্তা নিয়ন্ত্রণ করেছে ইসলামবিরোধী অপশক্তি। তাদের হাতে ব্যবসা-বাণিজ্য নিয়ন্ত্রিত হওয়ায় ব্যবসার পবিত্রতা ক্ষুণ্ন হচ্ছে। সুদ ও লাগামহীন মুনাফানির্ভর ব্যবসা-বাণিজ্য সুপরিকল্পিত কৌশল আজ দুনিয়াকে গ্রাস করে ফেলেছে। বরং হুজুর (সা.) এমন রাস্তা ও নিয়ম-পদ্ধতি দিয়েছেন, যা মেনে চললে ব্যবসা-বাণিজ্যে অধিক লাভবান হওয়া যাবে এবং তাতে আল্লাহপাকের পক্ষ থেকে বরকত হাসিল হবে। নবুওয়াত প্রাপ্তির আগেই রসুল (সা.) নিজে ব্যবসা-বাণিজ্য করে সততা ও আমানতদারির সর্বোচ্চ মর্যাদা লাভ করেছেন। নবুওয়াত প্রাপ্তির পর ইসলাম প্রতিষ্ঠা করে ব্যবসা-বাণিজ্য সম্পর্কে রাষ্ট্রীয় আন্তর্জাতিকভাবে লাভ করেছিলেন সুউচ্চ খ্যাতি। ব্যবসা-বাণিজ্যের ব্যাপারে হুজুর (সা.) আল্লাহ প্রদত্ত যে দিকনির্দেশনা দিয়েছেন তা কিয়ামত পর্যন্ত তামাম পৃথিবীর জন্য হবে সুনির্দিষ্ট পাথেয়।  আমাদের সবারই উচিত ব্যবসা-বাণিজ্যের ক্ষেত্রে পবিত্র কোরআন ও রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের  নির্দেশনা অনুসরণ করা।

                লেখক : ইসলামী গবেষক।


আপনার মন্তব্য