শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ৯ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ৮ নভেম্বর, ২০১৯ ২৩:২৩

আজো চলছে ক্রীতদাসী প্রথা

তসলিমা নাসরিন

আজো চলছে ক্রীতদাসী প্রথা

শুধু বাংলাদেশি মেয়ে নয়, এশিয়া এবং আফ্রিকার আরও অনেক দেশ থেকে গৃহকর্মীর কাজ করতে মেয়েরা মধ্যপ্রাচ্যে যায়। ইথিওপিয়ার মেয়ে শাওলাকে দিয়ে এক কুয়েতি পরিবার ১৯ ঘণ্টা কাজ করাতো। শাওলা পালাতে পারতো না, কারণ কুয়েতি পরিবার তার পাসপোর্ট রেখে দিয়েছিল। তাঞ্জানিয়ার এক মেয়ে, আতিয়া, ওমানে গিয়েছিল উপার্জন করার আশায়। ওমানে যে বাড়িতে সে কাজ করতো, সে বাড়ির লোকেরা তাকে প্রতিদিন পেটাতো। তাকে ধর্ষণ করতো। ফিলিপিনের এক গৃহকর্মীর শরীর একটি খালি ফ্ল্যাটের ফ্রিজারে পাওয়া গিয়েছিল, যে ফ্ল্যাটটির মালিক এক কুয়েতি লোক। এরকম করুণ এবং বীভৎস কাহিনী প্রচুর গৃহশ্রমিকই বলছে। কাতার, আরব আমিরাত আর সৌদি আরব বলেছিল, অভিবাসী গৃহকর্মীর ওপর অত্যাচারের বিরুদ্ধে আইন করবে। কোথায় সেই আইন?

কাফালা নিয়মে অভিবাসী শ্রমিকদের ভিসা দেওয়া হয়। কাফালার শর্তই এই যে, গৃহকর্তার অনুমতি ছাড়া গৃহকর্মীরা গৃহত্যাগ করতে পারবে না, এক বাড়ির কাজ ছেড়ে আরেক বাড়িতে কাজ নিতে পারবে না, দেশ ছাড়তে পারবে না, পাসপোর্ট থাকবে গৃহকর্তার কাছে, যার পাসপোর্ট তার কাছে নয়। যতক্ষণ কাজ করার আদেশ দেওয়া হবে, ততক্ষণ কাজ করতে হবে। অবাধ্য হলে শাস্তি পেতে হবে। ঘর থেকে পালালে তাদের গ্রেফতার করা হবে, জেলে পোরা হবে। অমানুষিক কাজের ভারে, অনাহারে, অত্যাচারে, অবিচারে, অতিষ্ঠ হয়ে গৃহকর্মীরা পালাতে চায়। কেউ পালাতে পারে, কেউ পারে না। সৌদি আরবের গৃহকর্তারা বিশ্বাস করে, অভিবাসী গৃহশ্রমিকদের তারা কিনে এনেছে, গৃহশ্রমিকরা নেহাতই তাদের ক্রীতদাসী। এই ক্রীতদাসীদের শাস্তি দেওয়ার অধিকার তাদের আছে। শাস্তি বলতে অনেকে ধর্ষণ বোঝে। শুধু সৌদি আরবে নয়, জর্দানে, লেবাননে, ওমানে, কুয়েতে, কাতারে, সংযুক্ত আরব আমিরাতেও গৃহকর্মীদের ওপর শারীরিক, মানসিক এবং যৌন নির্যাতন চলে। গরিব গৃহশ্রমিকেরা যখন ধনীদের দেশে গৃহকাজ করে টাকা উপার্জন করতে যায়, ভাগ্য ফেরাতে যায়, তারা জানে না যে তারা বিক্রি হয়ে গিয়েছে, তাদের জীবন আর তাদের নেই।

আন্তর্জাতিক শ্রমিক আইনের কিছুই আরবেরা মানে না। কিন্তু যে দেশ শ্রমিক পাঠায়, সে দেশ যদি বলে শ্রমিকদের নিরাপত্তা দিতে হবে তবে তারা অন্য দেশ, যে দেশ, নিরাপত্তার দাবি করবে না, সে দেশ থেকে শ্রমিক নেবে। ধরা যাক, ভারত তার শ্রমিকদের জন্য নিরাপত্তার দাবি জানিয়েছে। এখন আরবেরা ভারত থেকে নারী শ্রমিক না নিয়ে বাংলাদেশ থেকে নেবে। একটি দুটি দেশ প্রতিবাদ করলে কোনো লাভ নেই। সব দেশকে রুখে দাঁড়াতে হবে। যেসব দেশ থেকে উপসাগরীয় আরব দেশগুলোয় শ্রমিক নেওয়া হয়, সেই সব দেশের সরকার যদি সমস্বরে বলে তারা আর নারী-শ্রমিক পাঠাবে না নারী-শ্রমিকদের সম্পূর্ণ নিরাপত্তার ব্যবস্থা না করা হলে, নারী-শ্রমিকদের ওপর নির্যাতন সম্পূর্ণ বন্ধ না করা হলে, তাদের প্রাপ্য বেতন নিয়মিত না দেওয়া হলে, তাদের ক্রীতদাসী ভাবা বন্ধ না করা হলে, আন্তর্জাতিক শ্রমিক আইন না মানা হলেÑ তাহলেই হয়তো আরব দেশগুলোর সরকার বাধ্য হবে শ্রমিকদের পক্ষে সভ্য আইন জারি করতে।

মুশকিল হলো, সরকারি বা বেসরকারি যে প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমেই বাংলাদেশ থেকে গৃহকর্মী পাঠানো হয় উপসাগরীয় আরব দেশগুলোয়, তাদের কাছে কিন্তু গৃহকর্মীদের নিরাপত্তার একেবারেই কোনও মূল্য নেই। মেয়েরা একরাশ স্বপ্ন নিয়ে উড়োজাহাজে ওঠে, ফেরত আসে মৃতদেহ হয়ে। এতেও কি কারও কিছু সত্যি আসে যায়! গরিব মরলে কারও কিছু আসে যায় না। এ পর্যন্ত যা তথ্য পেয়েছি, তা হলো, বাংলাদেশের হাজারো শ্রমিক সৌদি আরব থেকে দেশে ফিরে এসেছে। যে গৃহকর্মীরা ফেরত এসেছে, তাদের মধ্যে শতকরা ৮৬ জনই তাদের বেতন পায়নি। শতকরা ৬১ জন শারীরিক নিগ্রহের শিকার, শতকরা ২৪ জনকে ঠিকমতো খাবার দেওয়া হয়নি এবং শতকরা ১৪ ভাগ ধর্ষণের শিকার। ফিরে আসাদের তালিকায় নুরি বেগমও আছে, নুরি বেগম দালালের বিরুদ্ধে মামলা ঠুকেছে। ঠুকেছে কারণ দালাল তাকে গৃহকর্মীর চাকরি দিয়ে সৌদি আরবের যে লোকের কাছে পাঠিয়েছিল, দু’মাস বাড়িতে কাজ করার পর সেই লোক তাকে বেতন দেয়নি, বেতন দেয়নি বলে সে বাড়ি থেকে পালিয়েছিল, পালিয়েছিল বলে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে, দু’মাস তাকে জেল খাটতে হয়েছে। শ্রমে এবং জেলে মোট চার মাস কাটিয়ে নুরি বেগম খালি হাতে ফিরেছে দেশে। দেশে ফিরেই মামলা ঠুকেছে বলে দালালের হাতে মার খেয়ে হাড়গোড় ভেঙেছে তার।

মুশকিলটা আসলে কাফালা নিয়ম নিয়ে। কাফালা নিয়মটি যে নিয়মে আমরা গৃহকর্মীদের গৃহকাজে সাহায্যের জন্য রাখি, মোটেও সে নিয়মের ধারেকাছে নয়। আমাদের গৃহকর্মীদের স্বাধীনতা আছে কাজ না পছন্দ হলে কাজ ছেড়ে চলে যাওয়ার। তাদের অধিকার আছে, যে কদিন শ্রম দিয়েছে, সে কদিনের শ্রমের মূল্য পাওয়ার। যতক্ষণ তার কাজ করার কথা, তার চেয়ে বেশি কাজ করানোর জন্য কারও অধিকার নেই তাকে জোর করার। কারও অধিকার নেই গৃহকর্মীকে নির্যাতন করার। কাফালা নিয়মটি মধ্যপ্রাচ্যের বেশ কটি দেশের নিয়ম। বাহরাইন, জর্দান, কুয়েত, লেবানন, কাতার, ওমান, সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত। এসব দেশে ধনী ব্যক্তিরা নিজ উদ্যোগে টাকা পয়সা খরচ করে অভিবাসী শ্রমিকের ভিসার ব্যবস্থা করে। টাকা পয়সা দিয়ে শ্রমিক কিনে নেওয়ার মতো অনেকটা। গৃহকর্মীদের ভিসা দিয়ে নিয়ে আসবে নিজের দেশে, তারপর থেকে গৃহকর্মীটি তার অধীনে। তার সম্পত্তি সে তখন, তার ক্রীতদাসী। স্বাধীনতা বলতে কিছুই থাকবে না সেই গৃহকর্মীর। এই শ্রমিকদের পক্ষে কোনও আইন নেই। আইন গৃহকর্তার পক্ষে। গৃহকর্তা পালিয়ে যাওয়া ক্রীতদাসীকে শাস্তি দিতে চাইলে গৃহকর্তার পক্ষের আইন তাকে শাস্তি দেবে। সে কারণেই মেয়েরা জেল খাটে। সে কারণেই গৃহকর্মী নামক ক্রীতদাসীরা নির্যাতিত হলেও সে দেশের আইন তাদের পক্ষে দাঁড়ায় না। কাফালার শর্ত ভাঙলেই শ্রমিকদের তাড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে দেশ থেকে। কিছু দেশ অভিবাসী-শ্রমিক-আইন পরিবর্তন করেছে। শ্রমিকদের পাসপোর্ট নিজেদের কাছে রাখার কোনও অধিকার এখন চাকরিদাতাদের নেই। শ্রমিকদের বেতন না দেওয়ার কোনও অধিকার তাদের নেই। শ্রমিকদের সংগে যে চুক্তিপত্রে সই করেছে, সেই চুক্তিপত্র শ্রমিকদের হাতেও একখানা দিতে হবে। কিন্তু সাধারণ শ্রমিকদের জন্য নতুন এই আইনটি প্রযোজ্য হলেও গৃহশ্রমিকদের জন্য তা প্রযোজ্য নয়। গৃহশ্রমিকদের অধিকার নেই ছুটি পাওয়ার, বেতন পাওয়ার, বিশ্রাম করার, গৃহত্যাগ করার।

সরকারি নিয়ম-কানুন বিধিনিষেধ এড়িয়ে অনলাইনে অভিবাসী নারী গৃহকর্মী বেচাকেনার কালোবাজার তৈরি হয়েছে সৌদি আরব এবং অন্যান্য উপসাগরীয় আরব দেশগুলোয়। রিক্রুটমেন্ট এজেন্সির মাধ্যমে গৃহকর্মী নিয়োগ অনেক খরচের ব্যাপার, অনেকে তাই অনলাইনে সোশ্যাল মিডিয়ার আশ্রয় নিচ্ছে। একজন গৃহকর্মী নিয়োগের জন্য ২৫০০ থেকে ৫০০০ ডলার পর্যন্ত টাকা দিতে হয়। অনলাইনে লোক পাওয়া গেলে এই টাকাটা অন্তত বাঁচে।

সৌদি আরব থেকে হাজারো বাংলাদেশের শ্রমিক দেশে ফিরেছে। নির্যাতনের শিকার হয়ে ফিরে আসছে শত শত নারীকর্মী। এশিয়া আর আফ্রিকার বেশ কিছু দেশ গৃহকর্মী পাঠানো বন্ধ করে দিয়েছে। বাংলাদেশেরও উচিত শ্রমিক, বিশেষ করে নারীশ্রমিক পাঠানো বন্ধ করা, যতদিন না তারা শ্রমিকদের অধিকারের জন্য সভ্য আইন তৈরি করে। অবাক হই যে, সৌদি আরবকে মুসলমানেরা নবীজির দেশ হিসেবে পবিত্র বলে মানে, যে সৌদি আরবকে ইসলাম ধর্মের জন্মভূমি হিসেবে নৈতিকতার দেশ বলে মানে, সেই দেশেই অভিবাসী গৃহকর্মীদের ক্রীতদাসী শুধু নয়, যৌনদাসী হিসেবেও বিবেচনা করছে। তাদের হিংস্রতা, নীচতা, অহংকার, অনুদারতা, তাদের লোভ, লালসা এত প্রচ- যে গরিব মেয়েগুলো তাদের হাত থেকে রেহাই পায় না। ৪/৫ লাখ টাকা খরচ করে শ্রমিকের চাকরি নিয়ে সৌদি আরবে পাড়ি দেওয়ার পর শূন্য হাতে ক্ষতবিক্ষত অবস্থায় ফেরত আসতে হয়, কেউ কেউ ফিরতেও পারে না। নির্যাতনের কারণে মৃত্যুকে বরণ করতে বাধ্য হয়।

ওরাও মুসলমান। তবে তেলের কারণে ওরা আজ ধনী মুসলমান। একসময় সৌদি মুসলমানেরা ছিল গরিব। আজ গরিব মুসলমানদের ওরা মানুষ বলে মনে করে না। ক্রীতদাস প্রথার বিলুপ্তি ঘটেছে বলে আমরা জানি। কিন্তু উপসাগরীয় দেশগুলোয় এই প্রথাকে এখনও নানাভাবে বাঁচিয়ে রাখা হচ্ছে। মুসলমানদের দেশে আজ মুসলমানেরা নিরাপদ নয়। মুসলমানেরা সবচেয়ে নিরাপদ পাশ্চাত্যের অমুসলমানের দেশে। সেখানে শ্রমিকেরা তাদের প্রাপ্য সম্মান পায়, শ্রমিকেরা ভোগ করে তাদের সবটুকু অধিকার এবং স্বাধীনতা। সেখানের আইন নারী-গৃহকর্মীর পক্ষে, তাদের নির্যাতন করার অধিকার কোনও গৃহকর্তার নেই।

মুসলমানদের সহায় মুসলমানেরা নয়। মুসলমানদের নিরাপত্তাও মুসলমানেরা দেয় না। মানবতার উৎস কোনও ধর্ম নয়। মানবতার উৎস সভ্যতা। সভ্যতাই জন্ম দেয় নৈতিকতার।

               

লেখক : নির্বাসিত লেখিকা।


আপনার মন্তব্য