শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১৫ ডিসেম্বর, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৪ ডিসেম্বর, ২০২০ ২৩:৪৫

ইসলামে স্বাধীনতা ও বিজয়ের গুরুত্ব

এম এ মান্নান

ইসলামে স্বাধীনতা ও বিজয়ের গুরুত্ব

স্বাধীনতা মানব জাতির জন্য মহান আল্লাহর উপহার। ইসলামে স্বাধীনতার গুরুত্ব অপরিসীম। স্বাধীনতা সম্পর্কে ইসলামী দর্শনের মূল কথা হলো মানুষ মানুষের গোলামি করবে না। মানুষ একমাত্র তার সৃষ্টিকর্তার গোলামি করবে। পৃথিবীতে ১ লাখ ২৪ হাজার অথবা ২ লাখ ২৪ হাজার নবী-রসুলের আগমন হয়েছে। তাঁরা সবাই নিজের, দেশ, জাতি তথা মানুষের স্বাধীনতার জন্য কাজ করেছেন। মানুষের স্বাধীনতা নিশ্চিত করার জন্য নবী-রসুলরা অত্যাচারী শাসকের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়েছেন।

সব ধরনের দাসত্ব ও পরাধীনতা থেকে মুক্ত করাই ছিল আল্লাহর প্রেরিত নবী-রসুলদের কাজ। জন্মভূমি মক্কায় মুশরিকদের জুলুমে অতিষ্ঠ হয়ে রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম মদিনায় হিজরত করেন। মদিনায় সংগঠিত হয়ে মক্কাকে অবিশ্বাসীদের কবল থেকে মুক্ত করেন। সবাইকে উপভোগ করতে দেন মক্কা বিজয় তথা স্বাধীনতার প্রকৃত আনন্দ। বিজয় সম্পর্কে আল কোরআনে দুটি সুরা রয়েছে। একটি সুরা ফাতাহ বা বিজয়, আরেকটি সুরা আন নাসর বা মুক্তি ও সাহায্য। বিজয়ের যে আনন্দ তা আল্লাহর শুকরিয়া, আল্লাহর পবিত্রতা ও বড়ত্ব বর্ণনার মাধ্যমেই প্রকাশ করার শিক্ষা ইসলাম আমাদের দেয়। যারা রাষ্ট্রের স্বাধীনতা অর্জন বা সুরক্ষার জন্য অবদান রাখেন তাদের মর্যাদাও ঘোষণা করেছেন রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম। একাধিক হাদিসে তিনি মুসলমানদের তাদের মাতৃভূমির সীমান্ত পাহারা দেওয়ার মর্যাদা বর্ণনা করেছেন। এক হাদিসে তিনি শত্রুর আক্রমণ থেকে মাতৃভূমি রক্ষায় এক রাত পাহারা দেওয়াকে এক মাস নফল নামাজ ও রোজার চেয়ে উত্তম বলে গণ্য করেছেন। ইসলামে নামাজ ও রোজার মর্যাদা অপরিসীম। মাতৃভূমির সুরক্ষাকে সে মর্যাদার অনুষঙ্গ করা হয়েছে। ইসলামী দৃষ্টিভঙ্গি অনুযায়ী শত্রুদের দ্বারা আক্রান্ত হলে যেমন সে আক্রমণ প্রতিহত করা প্রত্যেক মুসলমানের কর্তব্য তেমন মাতৃভূমি আক্রান্ত হলেও তা রক্ষা করা প্রত্যেক মুসলমানের ওপর ফরজ। মক্কাবাসী যখন রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে মক্কা ছাড়তে বাধ্য করে তখনো জন্মভূমির মায়া ছাড়তে পারছিলেন না তিনি। মক্কার প্রতি ভালোবাসায় তাঁর হৃদয়ে রক্তক্ষরণ শুরু হয়। মদিনায় যাওয়ার সময় পেছন ফিরে বারবার মক্কার দিকে তাকাচ্ছিলেন আর বলছিলেন, ‘আল্লাহর কসম! হে মক্কা, নিশ্চয়ই তুমি সবচেয়ে প্রিয় ও পৃথিবীর শ্রেষ্ঠতম স্থান। আমাকে যদি এখান থেকে বের করে না দেওয়া হতো আমি কিছুতেই তোমাকে ছেড়ে যেতাম না।’ তিরমিজি। মদিনায় হিজরতের পর রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম পিতৃভূমি মক্কার কথা ভোলেননি। হিজরত করার পর মদিনাকে নিজের দেশ হিসেবে গণ্য করে মদিনার সার্বভৌমত্ব রক্ষার জন্য সর্বাত্মক ব্যবস্থা গ্রহণ করেন। ধর্মবর্ণনির্বিশেষে মদিনার সব নাগরিককে নিয়ে এর সুরক্ষার জন্য অনেক যুদ্ধও করেছেন। ঐতিহাসিক মদিনা সনদের অন্যতম মৌলিক ধারা ছিল মদিনা আক্রান্ত হলে সব নাগরিক ঐক্যবদ্ধভাবে তা প্রতিহত করবে। সর্বশক্তিমান আল্লাহ মানুষের জন্মগত বৈশিষ্ট্য ও চাহিদার উপযোগী ভূখন্ডে তার জন্মের ব্যবস্থা করেছেন বলে আমরা সারা বিশ্বে ভিন্ন ভিন্ন অঞ্চলের অধিবাসী হয়েছি। যে যে অঞ্চলের অধিবাসী তাকে সে অঞ্চলে স্বাধীনভাবে বিচরণ করার লক্ষ্যে প্রাকৃতিক নিয়মে সে অঞ্চল তাকে স্বাধীন ভূখ- হিসেবে দান করা হয়েছে। যতক্ষণ একে অন্যকে অত্যাচার করার মাধ্যমে সে স্বভাবজাত স্বাধীনতা ছিনিয়ে নেওয়া না হয় ততক্ষণ সে অঞ্চলটি তার জন্য স্বাধীন ভূখ- হিসেবে বিবেচিত হয়। একটি স্বাধীন ভূখন্ডের স্বাধীনতার প্রথম বৈশিষ্ট্য হলো নিরাপত্তা। সে জন্য হজরত ইবরাহিম (আ.) যখন মক্কাকে নিজ নগর হিসেবে গ্রহণ করেছিলেন তখন সে ভূখন্ডের জন্য প্রথম যে দোয়াটি করেছিলেন তা হলো নিরাপত্তার দোয়া। এ দোয়ার বিষয়টি উল্লেখ করতে গিয়ে আল্লাহ বলেন, ‘স্মরণ কর সেই সময়ের কথা যখন ইবরাহিম বলেছিল, হে আমার প্রতিপালক! তুমি এ নগরীর নিরাপত্তা দান কর।’ সুরা বাকারা, আয়াত ১২৬। কোরআনে বর্ণিত নিরাপত্তার অর্থ ব্যাপক। একটি নগরী বা দেশের চারদিকে শুধু পাহারা রাখার নামই নিরাপত্তা নয় বরং ওই ভূখন্ডে  বসবাসকারী প্রতিটি পক্ষ অন্য পক্ষের কাছে নিরাপদ থাকার নামই নিরাপত্তা। এক পক্ষ অন্য পক্ষকে ঝুঁঁকি মনে করলে তখন এক পক্ষ অন্য পক্ষকে ঘায়েল করার আত্মঘাতী কাজে লিপ্ত হয়ে যায়, অন্যদিকে এই ফাঁকে আল্লাহ -প্রদত্ত নিয়ামত স্বাধীনতা লুণ্ঠিত হয়ে যায়। স্বাধীনতার সুরক্ষার জন্য যা খুবই জরুরি তা হলো পারস্পরিক জুলুম পরিহার করা। ঐক্যবদ্ধ অবস্থান অটুট রাখা। আল্লাহ ইরশাদ করেন, ‘আমি এসব জনপদ ধ্বংস করে দিয়েছি যখন তারা পারস্পরিক জুলুম শুরু করে দিয়েছে।’ সুরা কাহাফ, আয়াত ৫৯। মানবীয় দুর্বলতার সুযোগে পারস্পরিক জুলুম যখন প্রতিশোধস্পৃহা জাগিয়ে তোলে তখন জাতীয় ঐক্য বিনষ্ট হয়, স্বাধীনতান্ডসার্বভৌমত্ব বিপদাপন্ন হয়। এ জন্যই রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম মক্কা বিজয়ের পর মক্কার অধিবাসীদের মধ্যে একে অন্যকে  ঝুঁকি মনে করার প্রবণতা সৃষ্টি হওয়া থেকে দূরে রাখা এবং নিরাপত্তাবোধ সৃষ্টির লক্ষ্যে ঘোষণা দেন, ‘আজকে কারও বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ নেই।’ অর্থাৎ অতীতের ঘটনাকে কেন্দ্র করে অনৈক্য সৃষ্টি করে এ ভূখন্ডের ক্ষতিসাধন ও অর্জিত স্বাধীনতার ক্ষতি হয় সে রকম কোনো কাজ করা যাবে না। মহান আল্লাহ আমাদের শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের শান্তিতে রাখুন। তাদের জান্নাতের সুশীতল ছায়া দান করুন।

 

লেখক : ইসলামবিষয়ক গবেষক।


আপনার মন্তব্য