শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ৩১ মে, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৩০ মে, ২০২১ ২৩:০২

বিচিত্রতা

ধূমপান-বিষপান

Google News

ক্যান্সার বলতে আমরা বুঝি অনেকগুলো রোগের সমষ্টি। এ রোগের কয়েকটি সাধারণ বৈশিষ্ট্য থাকে এবং শুরু হয় শরীরের মূল ভিত্তিকোষ থেকে। কোনো কোষ যখন ক্যান্সারে আক্রান্ত হয় তখন ওই কোষ ক্রমাগত বিভাজিত হতে থাকে। অতিরিক্ত এ কোষগুলো টিউমারের সৃষ্টি করে। সুস্থ কোষও বিভাজিত হয়। সব টিউমার কিন্তু এক রকম হয় না। যেসব টিউমার একটা নির্দিষ্ট স্থানে থাকে এবং ছড়িয়ে পড়ে না সেসব টিউমারকে ক্যান্সার বলা হয় না এবং এগুলোর চিকিৎসাও সহজ। যেমন শল্যচিকিৎসা দ্বারা টিউমারটি কেটে বাদ দিলেই হয়। কিন্তু অন্য টিউমারের ক্ষেত্রে কাহিনি সম্পূর্ণ ভিন্ন। এগুলো লসিকাতন্ত্র ও সংবহনতন্ত্রের মাধ্যমে শরীরের অন্যান্য দূরবর্তী স্থানে ছড়িয়ে পড়ে। বস্তুত এ দ্বিতীয় পর্যায়ের টিউমার নিয়েই সব সমস্যা। এগুলো ক্যান্সার বা কর্কট রোগ। ক্যান্সার ছোঁয়াচে রোগ নয়। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে ক্যান্সারের সৃষ্টি হয় এবং বেড়ে ওঠে। কারণগুলোর মধ্যে পরিবেশ, জীবনধারা, পারিবারিক বা বংশগতধারা, খাদ্যাভ্যাস, বিশেষ কিছু মৌলের প্রভাব ইত্যাদি অন্তর্গত। কিছু কিছু ক্ষেত্রে ভাইরাস সংক্রমণ ক্যান্সারের প্রবণতা বৃদ্ধি করে। এ জন্যই এমন ক্যান্সার অনেকের হতে পারে যাদের ক্ষেত্রে প্রবণতা বৃদ্ধিকারী কারণও খুঁজে পাওয়া ভার। কিন্তু তবুও ক্যান্সার প্রতিরোধে এ প্রবণতা বৃদ্ধিকারী কারণগুলোর গুরুত্ব অপরিসীম। কারণ এর অনেকগুলোই নিয়ন্ত্রণযোগ্য। তামাক, ধূমপান, জর্দা, খৈনি ইত্যাদি ক্যান্সার সৃষ্টির প্রধান কারণ। পরিসংখ্যানগতভাবে সম্ভবত এক-তৃতীয়াংশ দায়ী। ধূমপানের ফলে ফুসফুস, স্বরযন্ত্র, খাদ্যনালি, জরায়ু, মুখগহ্বরে ক্যান্সার হয়। এ প্রবণতা ধূমপানের মাত্রার ওপর ও স্থায়িত্বের ওপর নির্ভর করে। তামাক সেবনের ফলে খাদ্যনালি, খাদ্যথলি, মূত্রথলি এমনকি প্রস্টেট ক্যান্সারের প্রবণতাও বৃদ্ধি পায়। জর্দা, খৈনি বা নসি নাক ও মুখগহ্বরের গলার ক্যান্সারের প্রবণতা বাড়ায়। ক্যান্সারের অন্যান্য কারণের মধ্যে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ কারণ হচ্ছে তেজস্ক্রিয়তা। সাধারণভাবে তেজস্ক্রিয় বলতে বুঝায় তেজস্ক্রিয় বস্তু থেকে নির্গত বিকিরণ। এ বিকিরণ ছাড়াও অন্যান্য বিভিন্ন উৎস থেকেও আসতে পারে। উদাহরণস্বরূপ বলা যায় সৌরমন্ডলের বিকিরণ বায়ুমন্ডলের বাইরে থেকে পৃথিবীতে প্রবেশ করে। এ ছাড়া পারমাণবিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা বা আনবিক বোমা  বিস্ফোরণের ফলেও মানুষের ওপর  বিকিরণ ছড়িয়ে পড়ে।

               ► আফতাব চৌধুরী