শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ২৩:০৭

শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানে ইসলামের বিশ্বাস

এম এ মান্নান

শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানে ইসলামের বিশ্বাস
Google News

আল কোরআনে ইরশাদ হয়েছে, দীনের ক্ষেত্রে কোনো বাড়াবাড়ি নেই। ইসলাম এমন এক জীবন বিধান যা সব ধর্মের মানুষের শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানে বিশ্বাসী। অন্য ধর্মাবলম্বীদের ভিন্ন অনুভূতি ও বিশ্বাসকে ইসলাম সম্মান দেয়। ধর্মীয় ক্ষেত্রে ভিন্ন ধর্মাবলম্বীদের ওপর কোনোরকম হস্তক্ষেপের বিরুদ্ধে ইসলাম। ইসলাম অন্য ধর্মের অনুসারীদের সম্পর্কে সহিষ্ণুতার শিক্ষা দিয়েছে। রসুল (সা.) দুনিয়ায় এসেছিলেন মানব জাতির মুক্তিদূত হিসেবে। তিনি বিশেষ কোনো সম্প্রদায় কিংবা জাতি-গোষ্ঠীর নবী ছিলেন না। মানব জাতিকে শান্তি ও কল্যাণের পথে নেওয়ার জন্য আল্লাহ তাঁকে রহমাতুল্লিল আলামিন হিসেবে দুনিয়ায় পাঠান। ধর্মবিশ্বাস নির্বিশেষে সব মানুষের সহাবস্থানের তত্ত্বে বিশ্বাস করতেন রসুল (সা.)।

বিভিন্ন ধর্মীয় সম্প্রদায়ের পারস্পরিক শ্রদ্ধাবোধ ও সহিষ্ণুতার সর্বশ্রেষ্ঠ দৃষ্টান্ত হলো মানবতার মুক্তির দিশারি রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম লিখিত মদিনার প্রথম সনদ। অনেকের মতে এটি হলো বিশ্বের কোনো দেশের প্রথম লিখিত সংবিধান। সহাবস্থান ও শান্তির এ চুক্তি সম্পাদিত হয়েছিল মুসলমান, ইহুদি ও মূর্তিপূজারিদের মধ্যে। মদিনা সনদে লেখা ছিল প্রত্যেকেই নির্বিঘ্নে নিজ নিজ ধর্ম পালন করতে পারবে। অমুসলিমদের নিরাপত্তার ব্যাপারে রসুল (সা.) দ্ব্যর্থহীনভাবে ঘোষণা করেন, মুসলিম রাষ্ট্রের কোনো ব্যক্তি অমুসলিম নাগরিককে অন্যায়ভাবে হত্যা করলে সে জান্নাতের ঘ্রাণ পর্যন্ত পাবে না। সোজা কথায় যারা অমুসলিমদের অন্যায়ভাবে হত্যা করবে তাদের পরিণাম ভয়াবহ। তাদের সম্পদের নিরাপত্তা সম্পর্কে রসুল (সা.) বলেছেন, কোনো অমুসলিম নাগরিকের সম্পদ অন্যায়ভাবে গ্রহণ করা যাবে না। অমুসলিমদের সঙ্গে রসুল (সা.) উত্তম আচরণ করতেন। মক্কার যেসব অমুসলিম তাঁর সঙ্গে খারাপ আচরণ করেছে এবং তাকে কষ্ট দিত এমনকি তাকে যারা হত্যার পরিকল্পনা করেছে তাদেরও তিনি ক্ষমা করেছেন। তাদের সঙ্গেও তিনি উত্তম আচরণ করতেন। প্রতিহিংসায় বিশ্বাস করতেন না রসুল (সা.)।

রসুল (সা.) যে পথ দিয়ে যেতেন সে পথে এক বুড়ি প্রতিদিন কাঁটা পুঁতে রাখত। তিনি কষ্ট পেলে বুড়ি আনন্দ পেত। হঠাৎ একদিন রসুল (সা.) দেখলেন পথে কাঁটা নেই। তিনি খোঁজ নিয়ে সেই বুড়ির বাড়ি গেলেন এবং দেখলেন বুড়ি অসুস্থ। তিনি বুড়ির সেবাযত্ন করলেন আপনজনের মতো। বুড়ি রসুল (সা.)-এর মহানুভবতায় মুগ্ধ হয়ে ইসলাম গ্রহণ করেন। অমুসলিমদের প্রতি চার খলিফার আমলেও সহনশীল আচরণ করা হয়েছে। গরিব অমুসলিমদের তারা সাহায্যও করেছেন। এক ইহুদিকে ভিক্ষা করতে দেখে খলিফা হজরত ওমর (রা.) জিজ্ঞাসা করলেন : তুমি ভিক্ষা করছ কেন? বৃদ্ধ ইহুদি জবাব দিল সরকারি কর পরিশোধের জন্য। সে জানাল তার জীবিকারও কোনো ব্যবস্থা নেই, তাই ভিক্ষা করতে বাধ্য হচ্ছে। হজরত ওমর (রা.) তাকে সঙ্গে করে নিয়ে আসেন এবং সরকারি কোষাগার থেকে সাহায্য করেন। আর বলেন, এটা তো ইনসাফের কথা হলো না- যৌবনে আমরা যাকে দিয়ে কাজ করাব, যার শ্রমের দ্বারা উপকৃত হব বার্ধক্যে তাকে ছেড়ে দেব আর সে ভিক্ষা করতে বাধ্য হবে।

অমুসলিমদের উপাসনালয়ের প্রতিও রসুল অনুকরণীয় সহনশীলতার দৃষ্টান্ত রেখেছেন। যুদ্ধের সময় রসুল (সা.) অন্য ধর্মের উপাসনালয়ের সঙ্গে সম্পৃক্ত লোকদের হত্যা করতে নিষেধ করেছেন। হজরত ওমর ইবনে আজিজ (রা.) তাঁর আমলে গভর্নরদের পত্র লিখেছিলেন যাতে গির্জাগুলো অক্ষত থাকে। বায়তুল মুকাদ্দাস বিজয়ের পর হজরত ওমর (রা.) সেখানে যান। সেখানে মসজিদ না থাকায় এক পাদরির অনুরোধে একটি গির্জায় তিনি নামাজ আদায় করেন। পরে ওই গির্জার স্বীকৃতিস্বরূপ একটি সতর্ককারী পত্র পাঠান। যাতে পরবর্তীকালে খলিফা ওমরের (রা.) নামাজকে কেন্দ্র করে গির্জাকে কেউ মসজিদে রূপান্তরিত না করে।

হজরত মুয়াবিয়া (রা.) দামেশকে জামে মসজিদ নির্মাণ করেন। এ মসজিদের পাশেই ছিল খ্রিস্টানদের গির্জা। মুয়াবিয়া (রা.) খ্রিস্টানদের প্রস্তাব দেন ওই গির্জার জায়গাটুকু মসজিদের জন্য দিয়ে দেওয়া হোক। এজন্য তারা যে মূল্য চাইবে তা দিয়ে দেওয়া হবে। এতে মসজিদের আঙিনা প্রশস্ত হবে। খ্রিস্টানরা রাজি হয়নি। মারওয়ান ক্ষমতায় আসার পরও একই ধরনের প্রস্তাব দেন। খ্রিস্টানরা তা নাকচ করে। এরপর আবদুল মালিক ইবনে মারওয়ান ক্ষমতায় এসে গির্জার জায়গাটি মসজিদের জন্য কিনে নেওয়ার চেষ্টা করেন। ইবনে মারওয়ান নিজেই কোদাল হাতে গির্জা ভেঙে মসজিদ সম্প্রসারণ করেন। হজরত ওমর ইবনে আবদুল আজিজ (রা.) খলিফা হওয়ার পর উমাইয়া শাসকদের আমলে সংঘটিত অন্যায়ের প্রতিকার করার উদ্যোগ নেন। ওই এলাকার খ্রিস্টানরা তাদের গির্জার বেদখল হওয়ার বিষয়টি খলিফাকে অভিহিত করেন। তখন হজরত ওমর ইবনে আবদুল আজিজ (রা.) সিরিয়ার গভর্নরকে পত্র লেখেন, মসজিদ ভেঙে গির্জার জায়গাটি যেন খ্রিস্টানদের হস্তান্তর করা হয়। খলিফার উদারতায় মুগ্ধ হয়ে খ্রিস্টানরা তাদের গির্জা ফেরত পাওয়ার দাবি প্রত্যাহার করে। মুসলমানের উচিত অন্যের ধর্মবিশ্বাসের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকা। অন্য ধর্ম নিয়ে বিরূপ মন্তব্য কোনো মুসলমানের জন্য শোভনীয় নয়। অন্য ধর্মের মানুষের অনুভূতিতে আঘাত হানে এমন কোনো আচরণে জড়িত না হওয়াই রসুল (সা.)-এর সুন্নত। ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি না করাই মহান আল্লাহর নির্দেশ। মুসলমানদের জন্য যা লঙ্ঘন করার সুযোগ নেই। আল্লাহ আমাদের কোরআন-হাদিস অনুযায়ী পথ চলার তৌফিক দান করুন।

লেখক : ইসলামবিষয়ক গবেষক।