Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ২২:০১

এই নায়িকারা এখন...

এই নায়িকারা এখন...
নব্বইয়ের দশক থেকে দুই হাজার সালের প্রথম পর্যন্ত ঢালিউডে অভিষেক ঘটে অনেক নায়িকার। তবে জনপ্রিয়তার মানদণ্ডে যে নায়িকারা এখনো দর্শকহৃদয়ে স্থান গড়ে  রেখেছেন এমন ৬ তারকার বর্তমান কর্মকাণ্ডের চিত্র তুলে ধরেছেন- আলাউদ্দীন মাজিদ

 

শাবনাজ

প্রখ্যাত চিত্রপরিচালক এহতেশাম ১৯৯১ সালে ‘চাঁদনী’ ছবির মাধ্যমে শাবনাজকে বড় পর্দায় আনেন। এক সময় তার সফল পর্দা জুটি চিত্রনায়ক নাঈমকে ভালোবেসে বিয়ে করেন এবং নব্বই দশকের  শেষভাগে চলচ্চিত্র থেকে  স্বেচ্ছায় বিদায় নিয়ে সংসার জীবনে মনোযোগী হন শাবনাজ। ‘জিদ’, ‘লাভ’,  ‘চোখে চোখে’, ‘আঞ্জুমান’র মতো অনেক সফল চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন শাবনাজ। বর্তমানে তিনি সংসার আর ধর্মকর্ম নিয়েই ব্যস্ত রয়েছেন। চলচ্চিত্রে ফেরার আর কোনো ইচ্ছা নেই বলেই জানান এই অভিনেত্রী।

 

শাবনূর

১৯৯৩ সালে প্রখ্যাত চিত্রপরিচালক এহতেশামের ‘চাঁদনী রাতে’ ছবিতে নায়িকা হিসেবে অভিষেক ঘটে শাবনূরের। দেড় শতাধিক ছবিতে অভিনয় এবং জাতীয় পুরস্কার লাভ করেন তিনি। ২০১২ সালে বিয়ে এবং ২০১৩ সালে মা হন।

তার অভিনীত সর্বশেষ ছবি ‘পাগল মানুষ’ মুক্তি পায় গত বছর। ২০১৩ সাল থেকেই সংসার আর সন্তানের টানে শাবনূর চলচ্চিত্র থেকে স্বেচ্ছায় নির্বাসনে চলে গেলেও গত বছর তিনি মোস্তাফিজুর রহমান মানিকের ‘এত প্রেম এত মায়া’ ছবিতে চুক্তিবদ্ধ হন। এই ছবির জন্য প্লে-ব্যাকও করেন শাবনূর। ছবি নির্মাণও করবেন তিনি।

 

মৌসুমী

১৯৯৩ সালে ‘কেয়ামত থেকে কেয়ামত’ ছবির মাধ্যমে চলচ্চিত্রে অভিনয় শুরু করা মৌসুমী এখন পর্যন্ত বড় পর্দার অভিনয়ে সম্পৃক্ত আছেন। পাশাপাশি ছোট পর্দার টেলিফিল্ম ও নাটকেও রয়েছে তার সরব পদচারণা। চলচ্চিত্র ও টিভি নাটক প্রযোজনা এবং পরিচালনায়ও সম্পৃক্ত রয়েছেন তিনি। গত বছর তার অভিনীত ‘পবিত্র ভালোবাসা’ এবং চলতি সপ্তাহে ‘রাত্রির যাত্রি’ ছবিটি মুক্তি পেয়েছে। মৌসুমী এখন একনাগারে অভিনয়, রাজনীতি এবং সমাজসেবামূলক কর্মকাণ্ডের সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন এবং আবার নির্মাণে আসছেন তিনি।

 

পূর্ণিমা

১৯৯৭ সালে ‘এ জীবন তোমার আমার’ ছবির মাধ্যমে চলচ্চিত্রে অভিষেক  পূর্ণিমার। এরপর একটানা বড় পর্দায় অভিনয় অব্যাহত রাখেন। ২০০৭ সালে বিয়ে করার পর চলচ্চিত্রে প্রায় অনিয়মিত হয়ে পড়েন তিনি। বড় পর্দার পাশাপাশি ছোট পর্দার নাটক ও টিভিসিতেও কাজ করেন তিনি। গত বছর টিভির একটি রিয়েলিটি শো-এর মাধ্যমে উপস্থাপকের দায়িত্ব পালন করেন। এর আগে টিভি রিয়েলিটি শোর বিচারকের আসনও অলঙ্কৃত করেন পূর্ণিমা। বর্তমানে ‘গাঙচিল’ ও ‘জ্যাম’ শিরোনামের দুটি চলচ্চিত্রে অভিনয় করছেন তিনি।

 

পপি

১৯৯৭ সালে ‘আমার ঘর আমার বেহেশত’ ছবির মাধ্যমে চলচ্চিত্রে অভিনয়ে আসেন পপি। মাঝে মধ্যে অভিনয়ে বিরতি দিলেও এখনো তিনি বড় ও ছোট পর্দার অভিনয়ে সরব। চলচ্চিত্রের পাশাপাশি বর্তমানে তিনি টিভি নাটক, মঞ্চে পারফরম, ওয়েব সিরিজে অভিনয় নিয়েই ব্যস্ত রয়েছেন। সম্প্রতি ইন্দুবালা শিরোনামের একটি ওয়েব সিরিজের কাজ শেষ করেছেন। এর আগে ‘কাঠগড়ায় শরৎচন্দ্র’ ছবির কাজ শেষ করেছেন। চলছে তার ‘সাহসী যোদ্ধা’ ছবির কাজ। এ ছাড়া ‘কাটপিছ’ শিরোনামের একটি ছবিতেও অভিনয় করতে যাচ্ছেন পপি।

 

অপু বিশ্বাস

২০০৫ সালে প্রখ্যাত চলচ্চিত্রকার আমজাদ হোসেনের ‘কাল সকালে’ ছবির মাধ্যমে চলচ্চিত্রে অভিষেক ঘটে অপু বিশ্বাসের। এতে ছোট্ট একটি চরিত্রে অভিনয় করলেও ২০০৬ সালে এফ আই মানিকের ‘কোটি টাকার কাবিন’ ছবিতে নায়িকা হিসেবে যাত্রা শুরু তার।  প্রায় তিন বছর বড় পর্দা থেকে দূরে থাকলেও বর্তমানে ‘শ্বশুরবাড়ি জিন্দাবাদ টু’ এবং ওপার বাংলায় ‘শর্টকাট’ শিরোনামের দুটি ছবির কাজে ব্যস্ত তিনি। এ ছাড়া স্টেজ শোসহ নানা সামাজিক কর্মকাণ্ডেও সম্পৃক্ত রয়েছেন অপু বিশ্বাস।


আপনার মন্তব্য