শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২০ জুন, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৯ জুন, ২০১৯ ২২:৩১

সিনেমার গান আর মুখে মুখে ফেরে না

আলাউদ্দীন মাজিদ

সিনেমার গান আর মুখে মুখে ফেরে না

১৯৫৬ সালে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে প্রথম বাংলা পূর্ণদৈর্ঘ্য সবাক চলচ্চিত্র ‘মুখ ও মুখোশ’ নির্মাণ করলেন আবদুল জব্বার খান। ছবিটি জনপ্রিয় হওয়ার পাশাপাশি এর গানগুলোও দর্শক মনে ভিন্ন আবহ তৈরি করে। এর স্বল্প সময় পরই বাংলা ছবির যে গানটি আকাশ-পাতাল জনপ্রিয়তা বয়ে আনে  সেটি হলো ‘তোমারে লেগেছে এত যে ভালো চাঁদ বুঝি তা জানে’। কে জি মোস্তফার লেখা এবং তালাত মাহমুদের কণ্ঠে ১৯৬০ সালে এহতেশাম নির্মিত ‘রাজধানীর বুকে’ চলচ্চিত্রের গান এটি। এরপর বাংলা ছবির গান মানেই গুনগুনিয়ে গাওয়া, দর্শক-শ্রোতার মুখে মুখে ফেরা। যেমন একই গীতিকারের অশোক ঘোষ নির্মিত ‘নাচের পুতুল’ চলচ্চিত্রের গান ‘আয়নাতে ওই মুখ  দেখবে যখন কপোলের কালো তিল পড়বে চোখে’, আজও সমান জনপ্রিয়।  কে জি মোস্তফা ছাড়াও মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান, আবু হেনা মোস্তফা কামাল, খান আতাউর রহমান, সৈয়দ শামসুল হক, গাজী মাজহারুল আনোয়ার, আমজাদ হোসেন, আহমদ জামান চৌধুরী, রফিকুজ্জামানসহ আরও অনেকের লেখা গান চলচ্চিত্রের ইতিহাসে কালজয়ী হয়ে আছে। ‘আয়রে মেঘ আয়’, ‘জাদু বিনা বাঁশি বাজিতে পারে না’, ‘ওই রাত ডাকে আর চাঁদ জাগে আজ তুমি কোথায়’, ‘চুল ধইর না খোঁপা খুলে যাবে যে নাগর’, ‘মাগো মা ওগো মা আমারে বানাইলি তুই দিওয়ানা’, ‘ওই চোখে চোখ পড়েছে যখনই’, ‘নীল আকাশের নিচে আমি’, ‘পিচঢালা এই পথটারে ভালো বেসেছি’, ‘ও অনুপমা ও নিরূপমা’, ‘তুমি কি দেখেছ কভু জীবনের পরাজয়’, ‘ও পাখি তোর যন্ত্রণা’, ‘চুমকি চলেছে একা পথে’, ‘ঢাকা শহর আইস্যা আমার আশা পুরাইছে’, ‘আমাদের দেশটা স্বপ্নপুরী’, ‘একদিন ছুটি হবে অনেক দূরে যাব’, ‘মাস্টার সাব আমি নাম দস্তখত শিখতে চাই’, ‘আকাশের হাতে আছে একরাশ নীল’, ‘আছেন আমার মোক্তার আছেন আমার ব্যারিস্টার’, ‘হায়রে মানুষ রঙিন ফানুস’, ‘ওরে নীল দরিয়া’, ‘এমনও তো প্রেম হয়’ ও ‘চোখের জলে কথা কয়’Ñ এমন শত শত গান বলতে গেলে আশির দশক পর্যন্ত শ্রোতাদের মন্ত্রমুগ্ধ করেছে। এসব গান আজও অনেককে নস্টালজিয়ায় আক্রান্ত করে। বলতে গেলে বাংলাদেশি চলচ্চিত্রের গানের রয়েছে একটি সমৃদ্ধ ভাণ্ডার। এই সমৃদ্ধতা প্রায় নব্বই দশক থেকে রীতিমতো উধাও হয়ে গেছে। তখন থেকে চলচ্চিত্রের গানে আর প্রাণ নেই। একবার শোনার পরই কারও মনে থাকে না চলচ্চিত্রের গান। মাঝে মধ্যে দুই- একটি গান জনপ্রিয় হয় বটে কিন্তু তা নিতান্তই অপ্রতুল। মানে  কৌলীন্য হারিয়েছে দেশীয় চলচ্চিত্রের গান। কিন্তু কেন? এর কারণ বর্ণনা করেছেন কয়েকজন সংগীতকার।

প্রখ্যাত গীতিকার কে জি মোস্তফা বলেন, গানের প্রধান বৈশিষ্ট্য হচ্ছে কাব্যময়তা ও মেলোডি। এখন তা কোথায়? আগে গান লিখতে  পড়ালেখা করতে হতো। যারা সাহিত্যচর্চা করতেন তারাই গান, গল্প লিখতেন। এখন ইচ্ছা করলেই যে কেউ গীতিকার-গল্পকার হয়ে  যেতে পারছেন। বিষয়টি যেন একেবারেই সহজ হয়ে গেছে। এক্ষেত্রে এখন সাহিত্যনির্ভরতাকে বাদ দিয়ে বাণিজ্যকে প্রাধান্য দেওয়া হচ্ছে। আগে চলচ্চিত্রের গান-গল্পে জীবনের ছায়া খুঁজে পাওয়া যেত। এখন তো গান মানে ফান। উচ্চলয়ে যন্ত্র বাজতে থাকে। গানের কথা  বোধগম্য হয় না।     

 

তাই শুরুতেই  শেষ হয়ে যায় এসব গান। এখন গানের  ক্ষেত্রে যন্ত্রই প্রধান যন্ত্রণা হয়ে দাঁড়িয়েছে। চিৎকার করতে হবে, লাফালাফি করতে হবে, না হলে গান হবে না। এখনকার গানে মেলোডি, কাব্যময়তা, জীবনবোধ, শিক্ষা এবং গভীরতা বলতে কিছু নেই। তাই এখনকার গান সহজে হারিয়ে যাচ্ছে। প্রখ্যাত গীতিকার গাজী মাজহারুল আনোয়ার বলেন, চলচ্চিত্রের গল্প টেনে নিতে গানের প্রয়োজন। দীর্ঘ সময় ধরে গল্প দেখতে দেখতে দর্শক যখন ঝিমিয়ে পড়ে তখন বিনোদনের জন্য গানের আগমন ঘটাতে হয়। দর্শক রিল্যাক্স ফিল করে। গল্প ও সিকোয়েন্সের প্রয়োজনেই চলচ্চিত্রে গানের আয়োজন হয়। ষাট থেকে আশির দশক পর্যন্ত গান নিয়ে নির্মাতারা রীতিমতো গবেষণা করতেন। গানের কারণে সিকোয়েন্স হতো। এখন বলা হয় সিচিউশনের জন্য গান দরকার। এটি আসলেই অবক্ষয়। এখন লেখা, সুর দেওয়া আর গাওয়া যার যার মতো করে চলছে। এক্ষেত্রে ব্যাকরণের ধার ধারা হচ্ছে না। তাই গানের স্থায়িত্ব বা মান বলে কিছুই থাকছে না। তা ছাড়া এখন সবকিছুই আধুনিক হয়ে পড়ছে। এই আধুনিকতার কারণে সবকিছুতেই পরিবর্তন আসছে। এই পরিবর্তন ভালো হলে তাকে মন্দ বলব না। কিন্তু সংগীতশিল্প এখন তথাকথিত আধুনিকতার ছোঁয়ায় ক্রমেই বিবর্ণ হচ্ছে। প্রখ্যাত কণ্ঠশিল্পী সৈয়দ আবদুল হাদীর কথায়, দুঃখজনক হলো বর্তমানে গানের মৌলিকত্ব হ্রাস পেয়েছে। তাই এখনকার গান আর শ্রোতাদের মনে স্থায়ী আসন গড়তে পারছে না। এর অনেক কারণ রয়েছে। যোগ্য গীতিকার ও সুরকারের অভাব। গানের কথা ও সুরে এখন মেলোডি এবং জীবনবোধের অভাব, কথা ও সুরে গভীরতা নেই। মান ও প্রাণহীন গান শ্রোতারা গ্রহণ করবে  কেন? এখন আর শানাই, সেতার, বাঁশি, তবলা, হারমোনিয়ামসহ কোনো অ্যাকোয়িস্টিক ব্যবহার করা হয় না। এখন সবই কি-বোর্ডনির্ভর হয়ে পড়েছে। এখন যে  কেউ ইচ্ছা করলেই গান লিখে ফেলতে পারছে। মানে গান লেখা, সুর করা এবং কণ্ঠ দেওয়া অনেক সহজ হয়ে গেছে। চাইলেই যে কেউ গান লিখতে আর সুর করতে পারছে। মনে রাখতে হবে, কোনো কিছু সহজলভ্য হয়ে গেলে তার মান আর থাকে না। চলচ্চিত্রের গানের ক্ষেত্রে এখন তাই হয়েছে। শ্রোতাপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী খুরশীদ আলম বলেন, গান হচ্ছে গুরুমুখী বিদ্যা। সাধনার বিষয়। এখন গুরুর কাছেও কেউ দীক্ষা নেয় না। সাধনাও করে না। তাই শুধু চলচ্চিত্রের গান নয়, সব গানই প্রাণহীন হয়ে পড়েছে। আগে একটি গান তুলতে কয়েক মাস সময় লেগে যেত। কথা, সুর, গায়কী নিয়ে রীতিমতো গবেষণা হতো। আর এখন মুহূর্তে লেখা থেকে শুরু করে এক বসায়ই গেয়ে ফেলা হচ্ছে। তাই এসব গান আর প্রাণ ছুঁতে পারছে না। মানে আঁতুড়ঘরেই গানের মৃত্যু হচ্ছে। এখন একেবারেই যে ভালো গান হচ্ছে না, তা কিন্তু নয়। এর পরিমাণ নিতান্তই স্বল্প। এই স্বল্পতা দিয়ে এদেশের ঐতিহ্য হিসেবে সংগীতকে ধরে রাখা যাবে না। একসময় চলচ্চিত্রে গল্পের প্রয়োজনে গান হতো। আর এখন গানের প্রয়োজনে চলচ্চিত্র হয়। এই অবস্থার জন্যই চলচ্চিত্রের গানের অবস্থা নাকাল হয়ে পড়েছে। এ অবস্থার উত্তরণে ওই যে বললাম গুরুর দীক্ষা আর সাধনা অত্যন্ত জরুরি। জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী কনকচাঁপা আধুনিক প্রযুক্তিকে দায়ী করে বলেন, গানে প্রযুক্তির ছোঁয়া লেগেছে। এটি ভালো, তবে এর অপব্যবহারের কারণে এখনকার গান  জনপ্রিয়তা পাচ্ছে না। বর্তমান বিশ্ব অনেকটাই প্রযুক্তিনির্ভর হয়ে পড়েছে। সবকিছুতেই এখন প্রযুক্তির ছোঁয়া লেগেছে। যার প্রভাবটা গানের ওপরেও পড়েছে। গান যদি শুধুই যন্ত্রনির্ভর হয়ে পড়ে তাহলে সুরের অস্তিত্ব থাকে না। আমদের মনে রাখতে হবে, প্রযুক্তির ইতিবাচক-নেতিবাচক দুটো দিক রয়েছে। সে ক্ষেত্রে শিল্পীকে অবশ্যই  নেতিবাচক দিকগুলো এড়িয়ে চলতে হবে। লক্ষ্য রাখতে হবে, প্রযুক্তি ব্যবহার করতে গিয়ে যেন গানের মৌলিকত্ব হারিয়ে না যায়। কিন্তু অনেক ক্ষেত্রেই দেখা যাচ্ছে, প্রযুক্তি ব্যবহারকারী শিল্পীদের অধিকাংশই প্রযুক্তির অপব্যবহার করছেন। এতে গান হারাচ্ছে মান।


আপনার মন্তব্য