প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ২২:০১

শুরু হচ্ছে আটকে পড়া ছবির মুক্তি

আলাউদ্দীন মাজিদ

শুরু হচ্ছে আটকে পড়া ছবির মুক্তি
Google News

বৈশ্বিক মহামারী করোনা আটকে দিয়েছিল নতুন ছবি মুক্তি। এখন দেশে করোনা মহামারী পরিস্থিতির উন্নতি হলে নির্মাতারা আবার তাঁদের আটকে পড়া নতুন ছবি মুক্তি দেওয়ার উদ্যোগ নিতে শুরু করেছেন। করোনার কারণে ছবি মুক্তি আটকে যাওয়া শুধু বাংলাদেশে নয়। বিশ্বজুড়েই করোনা লকডাউনের কবলে পড়ে থমকে যায় নতুন ছবি মুক্তি। গত বছরের ১৮ মার্চ দেশে করোনা লকডাউন শুরু হলে সিনেমা হলও বন্ধ হয়ে যায়। ফলে মুক্তি আটকা পড়ে যায় প্রায় দেড় ডজন নতুন ছবি। চরম আর্থিক ক্ষতির মুখে চলচ্চিত্র প্রযোজক ও প্রদর্শকরা। এরপর প্রায় ৭ মাস পর ১৬ অক্টোবর সিনেমা হল খুললেও দর্শক আসার নিশ্চয়তা না থাকায় লোকসানের ভয়ে কোনো বিগ বাজেটের ছবি মুক্তি দিতে সাহস পায়নি প্রযোজকরা। সিনেমা হল মালিকরা প্রযোজকদের কাছে ছবি চাইলে তাঁরা লোকসান হবে না এই মর্মে সিনেমা হল মালিকদের কাছে গ্যারান্টি চাইলে তা দিতে রাজি হননি তাঁরা। প্রযোজকদের কথায় করোনার ভয়ে সিনেমা হলে দর্শক কতটা আসবে তাতে সন্দেহ থেকেই যায়। তার ওপর স্বাস্থ্যবিধি মেনে সিনেমা হলের অর্ধেক আসন খালি রাখতে গিয়ে চলচ্চিত্রে লগ্নিকৃত অর্থ কতটা ফেরত আসবে তা নিয়ে সংশয় রয়েছে। প্রযোজকরা টাকা ফেরত দেওয়ার গ্যারান্টি চেয়েছেন প্রদর্শকদের কাছে আর প্রদর্শকরা বলেছেন, ছবি যে মানসম্মত এই গ্যারান্টি আগে দিতে হবে প্রযোজকদের। এই পাল্টাপাল্টি অবস্থানের কারণে অক্টোবরে সিনেমা হল খোলার পরও ঝুলে যায় বড় তারকাদের নিয়ে বিগ বাজেটের ছবি মুক্তি। এতে হতাশ প্রদর্শকরা। এ অবস্থা প্রায় ১১ মাস ধরে চলছে। চলতি বছরের মার্চে সরকার আবার করোনা সতর্কতার লকডাউন জারি করলেও এ সম্পর্কিত সরকারি প্রজ্ঞাপনে সিনেমা হল বন্ধের কথা উল্লেখ ছিল না। তাই গত রমজানের ঈদে ‘সৌভাগ্য’ শিরোনামে ডিপজল প্রযোজিত ও অভিনীত একটি নতুন ছবি মুক্তি দিলেও স্থানীয় জেলা প্রশাসন ঢাকাসহ দেশের বেশির ভাগ স্থানে করোনার কারণে সিনেমা হল খুলতে বাধা দেয় এবং ‘সৌভাগ্য’ ছবিটি আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়ে। এতে অন্য প্রযোজকরা নতুন ছবি মুক্তি দিতে লোকসানের ভয়ে আগ্রহ হারিয়ে ফেলেন। এমন অবস্থা যখন চলতেই থাকে তখন প্রযোজক-প্রদর্শক উভয়েই অনবরত লোকসান গুনতে গিয়ে তাঁদের পিঠ দেয়ালে ঠেকে যায়। বর্তমানে দেশ-বিদেশে করোনা পরিস্থিতির উন্নতি শুরু হলে প্রযোজকরা এবার তাঁদের বিগ বাজেট ও তারকাবহুল ছবি মুক্তি দিতে আগ্রহী হয়ে ওঠেন। প্রথমেই দীপংকর দীপেন তাঁর ‘অপারেশন সুন্দরবন’ ছবিটি ১৭ সেপ্টেম্বর মুক্তি দেওয়ার পরিকল্পনা নেন। অনন্ত জলিল জানান করোনায় দীর্ঘদিন আটকে থাকা তাঁর বিগ বাজেট ও অ্যারেঞ্জমেন্টের যৌথ প্রযোজনার ‘দিন : দ্য ডে’ ছবি মুুক্তির তারিখ শিগগিরই ঘোষণা করবেন। সোহানী হোসেন প্রযোজিত ও সুমন ওয়াজেদ পরিচালিত শাকিব খান ও দর্শনা অভিনীত ‘অন্তরাত্মা’ ছবিটির মুক্তির তারিখও অচিরেই ঘোষণা করা হবে বলে প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান সূত্রে জানা গেছে। আরিফিন শুভ অভিনীত ‘অ্যাডভেঞ্চার অব সুন্দরবন’ ছবিটির প্রযোজনা সংস্থা জানিয়েছিল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুললেই তাঁরা তাঁদের ছবিটি মুক্তি দেবে। চলতি সপ্তাহে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে যাওয়ায় এখন মুক্তির প্রস্তুতি নিচ্ছেন এ ছবির  প্রযোজক। জাজ মাল্টিমিডিয়া প্রযোজিত ‘জিন’ ছবিটিও দীর্ঘদিন ধরে করোনার কারণে আটকে আছে। সংস্থার সিইও আলিমউল্লাহ খোকন জানান, শিগগিরই তাঁরা ছবিটির মুক্তির তারিখ ঘোষণা করবেন। মোস্তাফিজুর রহমান মানিক জানান, অচিরেই ‘স্বপ্নে দেখা রাজকন্যা’ ছবির মুক্তির তারিখ ঘোষণা করা হবে। নির্মাতা সৈকত নাসিরসহ অন্য আটকে থাকা ছবিগুলোর নির্মাতারাও জানান করোনা পরিস্থিতির আর অবনতি না হলে তাঁরা তাঁদের ছবিগুলো মুক্তি দেওয়া শুরু করবেন। এসব আটকে থাকা ছবির মধ্যে অন্যতম- ‘শ্বশুরবাড়ি জিন্দাবাদ-২’, ‘মিশন এক্সট্রিম’ পর্ব-১, ‘শান’, ‘বিদ্রোহী’, ‘পরাণ’,  ‘ক্যাসিনো’, ‘বর্ডার’, ‘আনন্দ অশ্রু’, ‘মানুষের বাগান’, ‘পেয়ারার সুবাস’, ‘বিউটি সার্কাস’, ‘কমান্ডো’, ‘ওপারে চন্দ্রাবতী’, ‘সাইকো’, ‘সাহসী যোদ্ধা’, ‘পদ্মপুরাণ’, ‘তালাশ’ প্রভৃতি।