শিরোনাম
প্রকাশ : ১ জুন, ২০২০ ১২:২৭
আপডেট : ১ জুন, ২০২০ ১৩:০৯

ফেসবুক লাইভের কতিপয় মেডিসিন বিশেষজ্ঞের দৃষ্টি আকর্ষণ!

ড. আবুল হাসনাত মিল্টন

ফেসবুক লাইভের কতিপয় মেডিসিন বিশেষজ্ঞের দৃষ্টি আকর্ষণ!

বাংলাদেশের কতিপয় মেডিসিন বিশেষজ্ঞ অধ্যাপকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। প্রমাণ ও যুক্তিহীন কিছু ওষুধের পক্ষে ফেসবুক লাইভে এসে অনৈতিক প্রচারণা চালিয়ে দয়া করে নিজেদের হাতুড়ে ডাক্তারের পর্যায়ে নামাবেন না। এতে সাধারণ জনগণও বিভ্রান্ত এবং ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে, এখন অন্তত এসংক্রান্ত কিছু জার্নাল আর্টিকেল পড়েন, নিজেদের কাজগুলোকেও যতটুকু সম্ভব, বৈজ্ঞানিকভাবে মূল্যায়ন করার চেষ্টা করুন।

করোনায় সংক্রমিত ৮০% মানুষই যেহেতু উপসর্গহীন বা সামান্য উপসর্গে ভুগেই ভাল হয়ে যায়, তাই এটা নিয়ে কেরামতি দেখিয়ে লাভ নাই। আমি অস্ট্রেলিয়া বসে টেলিফোনে ফু দিয়েও এই ৭০-৮০% করোনা পজিটিভ মানুষকে সুস্থ করে দিতে পারব। আমাদের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা বরং বাকী ২০% করোনায় আক্রান্ত রোগীর চিকিৎসা সেবা নিয়ে মনোযোগী হন। বিদ্যমান সীমাবদ্ধতার মধ্যেও কী করে আমরা চিকিৎসা সেবাটা আরেকটু ভাল করতে পারি, সেটা নিয়ে ভাবুন। মনে রাখবেন, আপনারা একেকজন অনেক বড় অধ্যাপক, আমাদের কাছে আপনারা একেকজন খুব সম্মানিত মানুষ। নিজেকে ওষুধ কোম্পানীর সেলসম্যান হিসেবে উপস্থাপন করবেন না।

আজকের দিনে যেহেতু লকডাউন খুলে দেওয়া হয়েছে, এখন বাঁচার জন্য সাবান পানিতে হাত ধোওয়া, ঘরের বাইরে সার্জিক্যাল মাস্ক পড়া, নাক-চোখ-মুখ স্পর্শ থেকে বিরত থাকা এবং বাইরে থাকাকালিন অন্যের থেকে যতটা সম্ভব শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখার মত জরুরী স্বাস্থ্যবিধিসমূহ মেনে চলাই প্রধান উপায়। খুব প্রয়োজন না হলে ঘরের বাইরে যাবেন না। সম্ভব হলে ঘরে থেকেই অফিসের কাজ করুন।

নিজে বাঁচুন, অন্যকে বাঁচতে দিন।

(ফেসবুক থেকে সংগৃহীত)

লেখক: চিকিৎসক

বিডি প্রতিদিন/ফারজানা


আপনার মন্তব্য