Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ২০ জুলাই, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৯ জুলাই, ২০১৮ ২৩:০৭

কে কোথায় ভোটের ফ্যাক্টর

ফলাফলে বিশাল প্রভাব রাখবে বস্তিবাসী

বরিশাল

নিজামুল হক বিপুল ও রাহাত খান, বরিশাল থেকে

ফলাফলে বিশাল প্রভাব রাখবে বস্তিবাসী

বরিশাল সিটি করপোরেশনের ভোট রাজনীতিতে বস্তি ভোটের ভূমিকা অনেক শক্তিশালী। বলা হয়ে থাকে এই সিটির মেয়র পদে জয়-পরাজয়ের নিয়ামক শক্তি শহরের বস্তি ভোট। অনেকগুলো বস্তি থাকলেও পাঁচটি বস্তির ভোটাররাই নির্বাচনে জয়-পরাজয় নির্ধারণ করে দেন। এ কারণে বড় দুই দলের মেয়র প্রার্থীসহ অন্য দলের মেয়র প্রর্থীরা এবং তাদের অনুসারীরা বরাবরের মতো এবারও জোর দিচ্ছেন বস্তির ভোটের ওপর নিজেদের নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠার। এবারের নির্বাচনে বস্তির ভোটারের পাশাপাশি জয়-পরাজয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা থাকবে প্রায় ৩১ হাজার নতুন ভোটারেরও। তাদের মন জয়েরও চেষ্টা করছেন প্রার্থীরা। বিশেষ করে বড় দুই দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মেয়র প্রার্থীরা নতুন ভোটারদের কাছে টানতে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে প্রচারণা চালাচ্ছেন।  বরিশাল সিটি করপোরেশনের ৪, ৫, ৮, ৯, ১০ ও ১১ ওয়ার্ডে আশ্রয়ণ প্রকল্প, কলোনি ও বস্তি মিলিয়ে ছোট বড় অন্তত ১৫টি বস্তি রয়েছে। এগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বড় বস্তি হচ্ছে ১১ নম্বর ওয়ার্ডের স্টেডিয়াম বস্তি, ১০ নম্বর ওয়ার্ডের কেডিসি বস্তি, ৯ নম্বর ওয়ার্ডের রসুলপুর বস্তি, ৪ নম্বর ওয়ার্ডের পলাশপুর বস্তি এবং ৬ নম্বর ওয়ার্ডের হাটখোলা বস্তি। এই পাঁচটি বস্তির ভোটারের সংখ্যা প্রায় ১৫ হাজার। প্রতি বস্তির ভোটাররা প্রত্যেক নির্বাচনেই এক জোট হয়ে ভোট দিয়ে থাকেন। এবারও তার ব্যতিক্রম হবে বলে মনে করছেন না স্থানীয়রা। তবে এবার এই ৫ বস্তির ১৫ হাজার ভোট কার পক্ষে যাবে তা নিয়েই চলছে হিসাব-নিকাশ। গতকাল দিনভর শহরের স্টেডিয়াম, কেডিসি, রসুলপুর বস্তি সরেজমিন ঘুরে স্থানীয় ভোটারদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বরাবরের মতো এবারও এসব বস্তির ভোটারদের দ্বারাই নির্ধারণ হবে মেয়র পদে জয়-পরাজয়। স্থানীয়রা বলছেন, বরিশাল সদরে সব সময়ই বিএনপির পক্ষেই ভোটের পাল্লা ভারী। শহরের বস্তিগুলোতেও বিএনপি সিটি করপোরেশন নির্বাচন ও সংসদ নির্বাচনে সব সময়ই ভালো ভোট পেয়ে আসছে। ব্যতিক্রম ছিল শুধু শওকত হোসেন হিরণের সময়। ওই বছর নির্বাচনে বস্তির ভোটারদের বড় অংশই হিরণের পক্ষে ছিলেন। যার ফলে হিরণ মেয়র হিসেবে জয়লাভ করেন। কিন্তু পরের নির্বাচনে বিএনপির আহসান হাবিব কামাল মেয়র নির্বাচিত হন। সেবারও বস্তির ভোট বড় ভূমিকা রাখে কামালের পক্ষে। তবে এবার চিত্র পাল্টাতে পারে।

এবারের নির্বাচনে বস্তির ভোটারদের ওপর গুরুত্ব দিচ্ছেন বড় দুই দলের মেয়র প্রার্থীরা। স্টেডিয়াম বস্তির বঙ্গবন্ধু কলোনির বাসিন্দা বাবুল মিয়া বলছিলেন, এখানে বরিশাল সদরে সব সময় বিএনপি পাস করে। কলাগাছ দাঁড় করালে পাস করে। কিন্তু এবার চিত্র একটু ভিন্ন। তিনি বলেন, এবার এই স্টেডিয়াম বস্তিতে নৌকার প্রার্থীর পক্ষে প্রকাশ্যে হাওয়া দেখা যাচ্ছে। এ কথা বলেই নিজে একটা বিশ্লেষণও দাঁড় করালেন। বললেন, প্রকাশ্যে তো অনেক কিছুই দেখা যায় কিন্তু গোপনে কী হয় সেটা বলা মুশকিল। তারপরও মনে হচ্ছে মানুষ এবার একটু পরিবর্তন চায়। উন্নয়ন চায়। এ কারণে হয়তো সরকারদলীয় প্রার্থীর পক্ষে যেতে পারে এই বস্তির ভোট। তার পাশে বসা কামাল মিয়া বললেন, এখন যে যাকেই সমর্থন করুক না কেন, নির্বাচনের আগে আগে সেই মত পাল্টাতে পারে। তাই এখনো কিছু বলা মুশকিল। তবে এটা সত্য যে এখানকার বস্তির ভোটেই জয়-পরাজয় নির্ধারণ হবে। কেডিসি বস্তির বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে বোঝা গেল, এখানকার ভোটাররাও মেয়র পদে জয়-পরাজয়ের বড় নিয়ামক। বস্তির ব্যবসায়ী সুমন মিয়ার মতে এখানেও ধানের শীষের পক্ষে ভোট বেশি। এবার কী হবে বলা মুশকিল। তবে এই বস্তির আরেক বাসিন্দা মনির হোসেন সরাসরি বললেন, নৌকার পালেই হাওয়া বইছে। কেডিসি বস্তিতে আওয়ামী লীগের পক্ষে প্রচারণায় পাওয়া গেল শহরের নাট্য ও সংস্কৃতি কর্মী ফারুক হোসেনকে। তিনি বলছিলেন, শহরের বস্তির ভোটগুলোই বড় ফ্যাক্টর। এই ভোট যার বাক্সে যাবে তিনিই জয়ের মালা পরবেন। তাই আমরা এবার বস্তির ভোটারদের ওপর জোর দিচ্ছি। সবগুলো বস্তিতে প্রত্যেক ভোটারের দ্বারে দ্বারে যাচ্ছি। তাতে ইতিবাচক সাড়াও পাওয়া যাচ্ছে। তিনি বলেন, বস্তির ভোটাররা বলছেন, এবার যদি শওকত হোসেন হিরণ বেঁচে থাকতেন তাহলে তাকেই তারা ভোট দিতেন। এই সুযোগটাকেই কাজে লাগানোর চেষ্টা করছি আমরা। এই পাঁচ বস্তি ছাড়াও নতুন ভোটারদের ভোটও নিয়ামক শক্তি হিসেবে কাজ করবে।

এবার বরিশাল সিটিতে নতুন ভোটারের সংখ্যা ৩০ হাজার ৯০৯ জন। যাদের মধ্যে নারী ভোটার হচ্ছেন ১৭ হাজার ৯৮ জন এবং পুরুষ ভোটার ১৩ হাজার ৮১১ জন। এই ভোটারদের বড় অংশই হচ্ছেন তরুণ-তরুণী, যুবক-যুবতী। বড় দুই দলই প্রত্যাশা করছে এই নতুন ভোটারের বড় অংশই তাদের দিকে ঝুঁকবে। তবে শহর ঘুরে যে চিত্র পাওয়া গেছে, তাতে মনে হচ্ছে নতুন ভোটাররা উন্নয়নকে বেশি অগ্রাধিকার দিচ্ছেন। মো রুবেল নামের একজন তরুণ ভোটার বললেন, আমি মনে করি বরিশাল সিটি করপোরেশনে যে উন্নয়ন হয়েছিল শওকত হোসেন হিরণ মেয়র থাকার সময়ে, সেই উন্নয়নই এখন জরুরি। সেক্ষেত্রে সাদিক আবদুল্লাহর বিকল্প নেই। তাছাড়া তিনি বয়সে তরুণ। তাকে দিয়ে অনেক কাজ করিয়ে নেওয়া যাবে। ফাহমিদা নামে বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া এক তরুণী বললেন, আমরা নতুন জেনারেশন চাই আধুনিক একটা শহর। তরুণ নেতৃত্ব, যাকে দিয়ে এই শহরকে বদলে দেওয়া যাবে সেরকম কেউ যেন নির্বাচিত হন। গতকাল দুপুরে শহরের একটি হোটেলে এক নাগরিক সংলাপে অংশ নিয়ে বিএনপি নেত্রী বিলকিস জাহান শিরিন বলেন, নতুন ভোটারদের বড় অংশই আমাদের প্রার্থীর পক্ষে রয়েছেন। অন্যদিকে আওয়ামী লীগ কর্মী ফারুক মনে করেন, নতুন ভোটারদের মধ্যে সাদিক আবদুল্লাহর গ্রহণযোগ্যতা বেশি। কারণ তিনি বয়সে তরুণ। তার মতে, বয়সের কারণে তরুণ ভোটারদের কাছে সাদিক আবদুল্লাহর চেয়ে অনেক পিছিয়ে আছেন বিএনপি প্রার্থী মজিবর রহমান সরোয়ার।


আপনার মন্তব্য