Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ১০ আগস্ট, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ৯ আগস্ট, ২০১৮ ২২:৪৫

নৈরাজ্যের যত কারণ

সাঈদুর রহমান রিমন

নৈরাজ্যের যত কারণ

যানবাহন চালকরা কোনো নিয়ম-কানুন মানেন না, লেন মেনে গাড়ি চালান না। ব্যস্ততম মহাসড়কেও রিকশা-ঠেলা থেকে শুরু করে দ্রুত গতির আন্তজেলা কোচ পর্যন্ত মিশ্র গতির গাড়ি একই লেনে চলাচল করে। অল্প গতির গাড়ির পেছনেই ঘণ্টার পর ঘণ্টা আটকে থাকে দ্রুত গতির গাড়ি। পদে পদে চলে ট্রাফিক আইন অমান্যের প্রতিযোগিতা। আইন ভঙ্গকারীর বিরুদ্ধে মোটরযান আইনের যথাযথ ধারায় ব্যবস্থা না নেওয়া, মাসোয়ারা পদ্ধতিতে ‘চলাচল অযোগ্য’ হাজার হাজার গাড়িকে অবাধে চলাচলের সুযোগ করে দেওয়া, চালকদের কাঁধে প্রতিদিনের যাবতীয় খরচ চাপানো, মালিকের চাহিদা পূরণসহ নিজের বেতন-ভাতা জোটানোর টেনশন চাপানো থেকেই ‘সড়ক নৈরাজ্য’ সৃষ্টি হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এসব কারণেই চালকদের মধ্যে বেপরোয়া মনোভাব গড়ে ওঠে, এর জের হিসেবেই নানা অরাজকতার সূত্রপাত। পরিবহন শ্রমিক, চালক, মালিক ও নগর পরিবহন বিশেষজ্ঞদের অভিন্ন অভিমত থেকেই এ তথ্য বেরিয়ে এসেছে।

দেশের সড়ক-মহাসড়কে নির্বিঘ্নে যান চলাচলের জায়গা না রেখেই একাংশ দখল করে গড়ে তোলা হয়েছে হোটেল-রেস্তোরাঁ, পেট্রল পাম্প, সিএনজি পাম্প, অনুমোদিত-অননুমোদিত পুলিশ চেকপোস্ট, ক্যাম্প, পরিবহন কাউন্টার, বিভিন্ন সংগঠন, সমিতি, ক্লাব-ঘর। রাস্তার ওপর অবৈধ টার্মিনাল ও স্ট্যান্ড গড়ে তোলা, যত্রতত্র বাস-ট্রাক থামিয়ে রাখা, রাস্তাজুড়ে জবরদখলসহ হাটবাজার বসানো, নসিমন, করিমনসহ অনিয়ন্ত্রিত যানবাহনের বেপরোয়া চলাচল মিলিয়ে সৃষ্ট নৈরাজ্যে আটকে থাকে সড়ক-মহাসড়কগুলো। এসব অরাজকতা আর যানজট নিয়ন্ত্রণের জন্য নিয়োজিত ট্রাফিক পুলিশ সদস্যরা অবৈধ ভটভটি, লেগুনা, মালবাহী ট্রাক ও ফিটনেসবিহীন বাস-মিনিবাস থামিয়ে চাঁদাবাজিতেই বেশি ব্যস্ত থাকে। চাঁদাবাজির জের ধরেই জটলা বাধে। রাজধানীর উত্তর প্রবেশমুখে আবদুল্লাহপুর, গাজীপুর চৌরাস্তা, টঙ্গী, ভুলতা চৌরাস্তার মতো দেশের ব্যস্ত মহাসড়কগুলোর ৩০০ পয়েন্টে ভয়াবহ যানজটসহ নানা অরাজকতার ধকল পোহাতে হয়। সেসব পয়েন্ট এলাকায় এলোপাতাড়ি পার্কিং, সড়কের ওপর অবৈধ টার্মিনাল গড়ে তোলা, ফুটপাথ-রাস্তায় হাটবাজার বসানো, অবৈধ অযান্ত্রিক যানবাহনের ভিড়-ভাড়াক্কাসহ শতেক জঞ্জালে ঠাসা রয়েছে। এসব টার্মিনাল-বাজারের জটলা পেরোতেই বাসচালকরা সীমাহীন ভোগান্তি পোহান।

মহাসড়কের নানা জঞ্জাল : সড়ক পরিবহন খাতের সংশ্লিষ্টদের বিবেচনায়, দেশের আন্তজেলা মহাসড়ক, আঞ্চলিক সড়ক ও জেলা কানেকটিং রোডগুলোয় ভয়াবহ যানজটের প্রধান কারণগুলো হলো- রাস্তার ধারণক্ষমতার তুলনায় যানবাহন বেড়ে যাওয়ার পাশাপাশি রাস্তার ওপর যানবাহন বিকল হওয়া, দুর্ঘটনাকবলিত গাড়ি ও ধ্বংসাবশেষ দ্রুত সরিয়ে নেওয়ার ব্যবস্থা না করা, লেন পদ্ধতি মেনে না চলা, মহাসড়কের ওপর অবৈধ হাটবাজার বসানো, চালকদের এলোপাতাড়ি চালনা, যত্রযত্র গাড়ি থামানো, ভাঙাচোরা রাস্তায় বিপজ্জনক খানাখন্দ ইত্যাদি। অনুসন্ধানে নানা জঞ্জাল-অরাজকতার নেপথ্যে ১০টি কারণ পাওয়া গেছে। এগুলোর মধ্যে আছে হাইওয়ে ট্রাফিক সিস্টেমের অব্যবস্থাপনা, ট্রাফিক আইন না মানা, ট্রাফিক পুলিশের চাঁদাবাজি, কর্তব্যে অবহেলা, প্যাট্রল টহল পর্যাপ্ত না থাকা, মুনাফা লাভের আশায় পুরনো লক্কড়ঝক্কড় গাড়ি নামানো, দূরপাল্লার সড়কে সিটি সার্ভিসে যাত্রী পরিবহন, সড়কের বেহাল অবস্থা, রাস্তা দখল করে মার্কেট নির্মাণ, যানজট নিয়ন্ত্রণে পুলিশ ছাড়া অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সহযোগিতা না থাকার কারণেই যানজটের সূত্রপাত ঘটে। তবে রাস্তাঘাটের সমস্যার জন্য যানজট হচ্ছে না বলে দাবি করেছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। যানজটের কারণ হিসেবে তিনি রাস্তায় হাটবাজার, মহাসড়কে ‘আনফিট’ গাড়ি বিকল হয়ে যাওয়াকে দায়ী করেন। তবে পরিবহন সেক্টরের বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, সড়ক-মহাসড়কে অরাজকতা সৃষ্টির মূলে রয়েছে লাইসেন্সবিহীন চালক ও আনাড়ি হেলপার।

বন্ধ হয় না নসিমন-করিমন-ভটভটি : সড়ক-মহাসড়ক থেকে নসিমন, করিমন, আলমসাধু, ভটভটি মার্কা অনিয়ন্ত্রিত যানবাহন চলাচল বন্ধ হচ্ছে না, থামছে না সড়ক দুর্ঘটনা। শ্যালো ইঞ্জিনচালিত অবৈধ রিকশা, নসিমন, করিমন, ভটভটি স্থানীয় কারিগরদের হাতুড়ি-বাঁটালে তৈরি ত্রুটিযুক্ত যানবাহন দেশের বিভিন্ন জাতীয় ও আঞ্চলিক মহাসড়ক, পৌরসভা, সিটি করপোরেশন এলাকায় অবাধে চলাচল করছে। এসব যানবাহনের কোনো লাইসেন্স নেই, রুট পারমিট বা বৈধ কোনো কাগজপত্র নেই। ইঞ্জিন বা ব্যাটারিচালিত যানবাহনে গতি নিয়ন্ত্রণেরও কোনো ব্যবস্থা নেই। গত এক বছরেই অটোরিকশা, ইজিবাইক, লেগুনা নসিমন, টেম্পু, ভটভটি, আলমসাধু ও মহেন্দ্রসহ অবৈধ যানবাহনের কারণে চার শতাধিক দুর্ঘটনা ঘটেছে। এসব ঘটনায় প্রায় ৬০০ জন নিহত এবং সহস্রাধিক লোক আহত হয়েছেন।

আছে সড়ক নৈরাজ্যের সহজ সমাধান : বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাকসিডেন্ট রিসার্চ ইনস্টিটিউটের পরিচালক ড. মোহাম্মদ মিজানুর রহমান বিবিসি বাংলাকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন, বাসগুলোর মধ্যে প্রতিযোগিতা এবং চালকের বেপরোয়া মনোভাবের কারণে ঢাকা শহরে অধিকাংশ সড়ক দুর্ঘটনা ঘটছে। চালকদের এ বেপরোয়া মনোভাবের জন্য অনেকাংশে মালিকরাই দায়ী। কারণ মালিকরা প্রতিদিন বাসটি চুক্তিতে চালকদের হাতে ছেড়ে দেন। ফলে চালকদের মাথায় সব সময় চুক্তির বাইরে আরও বেশি টাকা আয় করার চিন্তা থাকে। তিনি বলেন, চালকদের বেপরোয়া মনোভাব দূর না করা পর্যন্ত অন্য কোনো পদক্ষেপই সড়কে শৃঙ্খলা ফিরে আসার সম্ভাবনা খুব একটা নেই।

ড. রহমান বলেন, সড়ক নেটওয়ার্ক ভালো না থাকায় ট্রাফিক সিগন্যালও কার্যকর হয় না। পৃথিবীর অনেক দেশেই একই রাস্তায় বিভিন্ন আকারের যানবাহন চলে না। কিন্তু ঢাকায় লেন মেনে গাড়ি চালানো সম্ভব হয় না। পরিবহন ব্যবস্থাকে শৃঙ্খলার মধ্যে আনতে চাইলে কিছু নির্দিষ্ট পদক্ষেপ নিতে হবে বলে মনে করেন অধ্যাপক রহমান। তিনি জানান, ঢাকার মতো ছোট একটি শহরে ২৭৯টি বাস রুট থাকা মোটেও প্রয়োজন নেই। বাস চলাচলের জন্য পুরো শহরকে চার থেকে পাঁচটি রুটে ভাগ করে প্রতিটি রুটের জন্য একটি করে বাস কোম্পানি গঠন করা যেতে পারে। এর আওতায় চালকদের জন্য মাসিক নির্দিষ্ট আয়ের ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হলেই আর তাদের মধ্যে বেপরোয়া ভাব আসবে না। তখন সড়কের শৃঙ্খলা সম্ভব হবে। এদিকে নগর পরিবহন বিশেষজ্ঞরা জানান, ঢাকার মতোই জনসংখ্যা ঘনত্বের মুম্বাই শহরে মাত্র ৩৬০০ বাস প্রতিদিন ৪৮ লাখ যাত্রী পরিবহন করে। অথচ ঢাকায় ছয় হাজার বাস প্রতিদিন পরিবহন করছে মাত্র ৩০ লাখ যাত্রী। এক্ষেত্রে গাড়ির চালকরা মালিকের চাহিদা পূরণসহ নিজেদের আয় নিশ্চিত করতে বেশি বেশি যাত্রী বহনের জন্য বিপজ্জনক প্রতিযোগিতায় লিপ্ত হন। রাজধানী ঢাকা ছাড়াও দেশের প্রতিটি সড়ক-মহাসড়কেই নৈরাজ্যের অভিন্ন চিত্র চোখে পড়ে। রুট ও বাস মালিক কোম্পানি বিন্যাসের মাধ্যমে এই অরাজকতা থেকে রেহাই পাওয়া সম্ভব বলেও মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।


আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর